যে দানে আরশের ছায়া লাভে ধন্য হবে মুমিন

17

হাদিসে এসেছে- প্রতিটি সৎ কাজই একটি দান। তুমি তোমার ভাইয়ের সঙ্গে হাসি মুখে সাক্ষাৎ করবে এবং তোমার ভাইয়ের পানির পাত্রে তোমার বালতি থেকে (পানি) ঢেলে দেবে; এটাও সৎকাজ (সুতরাং এটাও দান)।

গরিব অসহায়দের মাঝে অর্থ সম্পদ বিলিয়ে দেয়াও দান। অসহায় মানুষের মাঝে দান অনুদানে রয়েছে দুনিয়া ও পরকালের অপরিসীম ফজিলত।

তবে গরিব মাঝে গোপনে দান করা উত্তম। যে ব্যক্তি অতি গোপনে দান করবে, তার জন্য রয়েছে অনেক বড় নেয়ামত।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘গোপন দান বরকতময়; যা আল্লাহ তাআলার ক্রোধকে নিপতিত করে।’ (তাবরানি, তারগিব)

গোপনে দানের ফজিলত সম্পর্কে প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন-
হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যখন আল্লাহর ছায়া ব্যতিত কোনো ছায়া থাকবে না, তখন আল্লাহ তাআলা সাত শ্রেণির লোককে তাঁর (আরশের) ছায়ায় স্থান দান করবেন। (তাদের মধ্যে একজন হলো) যে ব্যক্তি এতো গোপনে সাদকাহ বা দান করে যে, ডান হাত যা দান করে, বাম হাত তা টের পায় না।’ (বুখারি, মুসলিম, তিরমিজি, মুসনাদে আহমদ)

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহর সব সম্পদশালী ব্যক্তিকে সমাজের সব গরিব ও অসহায়দের মাঝে অতি গোপনে দান করার তাওফিক দান করুন।

পরকালের কঠিন সময়ে যখন আল্লাহর ছায়া ব্যতিত কোনো ছায়া থাকবে না; তখন আল্লাহর আরশে ছায়া লাভের তাওফিক দান করুন। আমিন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here