ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৮, ৮ কার্তিক ১৪২৫

ss-steel-businesshour24
Runner-businesshour24

ম্যাচ হেরে যাকে দায়ী করলেন কোহলি

২০১৮ ফেব্রুয়ারি ১১ ১১:১০:৩৬

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদকঃম্যাচের আগে যাবতীয় নজর ছিল এ বি ডিভিলিয়ার্সের উপর। ক্রিকেট পন্ডিতরা এক প্রকার ধরেই নিয়েছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকাকে সিরিজ জিততে হলে ডিভিলায়ার্সের ব্যাটকেই শাসন করতে হবে। কিন্তু শনিবার ২৮ ওভারে ২০২ রান তাড়া করতে গিয়ে ডিভিলিয়ার্স যখন আউট হলেন তখন রান ছিল ১৬.৫ ওভারে ১০২/৪। তখনই ক্রিজে প্রবেশ করলেন তিনি। যাঁকে নিয়ে কোনও ধারণাই ছিল না ভারতীয় বোলারদের। এমনকী ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরাও তাঁকে ধর্তব্যে রাখেননি।

তিনি হেনরিচ ক্লাসেন। ডেভিড মিলারের সঙ্গে তাঁর ৭২ রানের পার্টনারশিপই শেষমেশ ভারতকে জোহনেসবার্গের মাটিতে সিরিজ জিতে ইতিহাস গড়তে দিল না। স্বাভাবিকভাবেই তাই খেলা শেষ হতেই দক্ষিণ আফ্রিকা শিবিরে ৪৫ নম্বর জার্সির সেই অচেনা শত্রু ক্লাসেনকে নিয়েই হইচইটা বেশি দেখা গেল। ক্লাসেনের (৪৩) পাশাপাশি দক্ষিণ আফ্রিকাকে ফিনিশিং লাইনে টেনে নিয়ে গেলেন আন্ডিল ফেলুকাও। যাঁর ৫ বলের ২৩ রানের ক্যামিওতে ১৫ বল বাকি থাকতেই টার্গেটে পৌঁছনো গেল। ২৮ ওভারের ম্যাচে রিভাইসড টার্গেট ছিল ২০২।

সবার থেকে অবাক করার মতো ব্যাপার স্পিন জুটির বোলিং চাহাল ও কুলদীপ। যে জুটি আগের তিন ম্যাচে ২১ উইকেট নিয়েছিল তারা এ দিন দু’জন মিলে ১১.৩ ওভারে ১১৯ রানে ৩ উইকেট পেল। তার উপর চাহালের নো-বলে সব সমীকরণই পালটে গিয়েছিল। ম্যাচ শেষে অবশ্য যাবতীয় দায় কোহলির উপর চাপালেন দক্ষিণ আফ্রিকার প্রাক্তন অধিনায়ক কেপলার ওয়েসেলস। আবহাওয়ার খবর যখন আগে থেকেই পেয়েছিল দুই শিবির তখন টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত কেন নিলেন কোহলি সেই প্রশ্নই তুলছেন ওয়েসেলস। “আমার মনে হয় টস জিতে ফিল্ডিং করা উচিত ছিল,” বলছেন ওয়েসেলস।

টসের কথা না বলে অবশ্য কোহলি হারের জন্য দায়ী করছেন খারাপ পারফরম্যান্সকে। বললেন, “দ্বিতীয় ইনিংসে বৃষ্টির পর টি-টোয়েন্টির মতো পরিস্থিতি হয়ে উঠেছিল। দক্ষিণ আফ্রিকা দারুণ খেলেছে। আমরা সুযোগ নিতে পারিনি। জেতার মতো ক্রিকেট খেলিনি। ওরা সাহস দেখিয়েছে। ” চাহালের নো-বলে বোল্ড হয়েও ফের প্রাণ ফিরে পান মিলার। যে প্রসঙ্গে কোহলি বললেন, “এগুলো ম্যাচের অঙ্গ। আমি কাউকে দোষ দেব না। তবে পরের দুটো ম্যাচে এই ভুলগুলো শুধরোতে হবে। ” শিখর ধাওয়ান শততম ম্যাচে শতরান করলেও ম্যাচের সেরা হলেন ক্লাসেন। সিরিজ বাঁচিয়ে যিনি বললেন, “আমার কেরিয়ারের সেরা মুহূর্ত। ক্রিজে যখন ঢুকলাম তখন খুব নার্ভাস ছিলাম। তবে আমি সব সময় চাই দলকে সাহায্য করতে। ”

বিজনেস আওয়ার /জে ভি

উপরে