ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ জুন ২০১৮, ৫ আষাঢ় ১৪২৫


আইপিওর মাধ্যমে শিল্পখাতের উন্নয়ন

২০১৮ ফেব্রুয়ারি ১১ ২৩:৪০:৫১

বিজনেস আওয়ার ডেস্ক: আইপিওর মাধ্যমে শিল্পখাতের উন্নয়ন সেমিনারের মূল উপপাদ্য। সোমবার (১২ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর ফারস হোটেলে অনলাইন বিজনেস পোর্টাল বিজনেসআওয়ার২৪.কম আয়োজিত ‘শিল্পায়নে আইপিও’র গুরুত্ব’ শীর্ষক সেমিনার আয়োজন করা হয়েছে।

সেমিনারে প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন জিটিভি’র প্রধান প্রতিবেদক রাজু আহমেদ । সেমিনারের সভাপতিত্ব করেন বিজনেস আওয়ার২৪.কমের প্রধান উপদেষ্টা ও ওমেরা ফুয়েলস লিমিটেডের সিইও আক্তার হোসেন সান্নামাত। আর সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) সাবেক চেয়ারম্যান ও তত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক অর্থ উপদেষ্টা এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম।

প্রবন্ধে রাজু আহমেদ বলেন, একটি কোম্পানির আইপিও প্রক্রিয়া শুরুর পর অনুমোদন নিয়ে মূলধন সংগ্রহে যথেষ্ট সময় লেগে যায়। আইপিও সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র (ডকুমেন্ট) তৈরি থেকে শুরু করে প্রতিটি পদক্ষেপেই এই দীর্ঘসূত্রিতা দেখা দেয়। নির্ধারিত মূল্য (ফিক্সড প্রাইস) এবং বুকবিল্ডিং দুই পদ্ধতির ক্ষেত্রেই এই দীর্ঘসূত্রিতা দেখা যায়। তবে নানা পথ পাড়ি দিয়ে বুকবিল্ডিং পদ্ধতিতে তুলনামূলক সময় লাগে বেশি। অনেক কোম্পানির ক্ষেত্রে দুই থেকে আড়াই বছর সময় ব্যয় হওয়ার নজিরও দেখা গেছে। অথচ প্রতিবেশি দেশ ভারতে আইপিওর পুরো প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে সময় লাগে ১০ থেকে ১২ সপ্তাহ। এমতাবস্থায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশের পদ্ধতি পর্যালোচনা করে আইপিও প্রক্রিয়া সহজে ও স্বল্প সময়ে সম্পন্ন করা গেলে বিভিন্ন কোম্পানি তালিকাভুক্ত হতে উৎসাহিত হবে।

তিনি শিল্প খাতে মূলধনের উৎস পুঁজিবাজার বিষয়ে বলেন, জাতীয় অর্থনীতির উন্নয়নের সম্ভাবনা কাজে লাগাতে শিল্প খাতের মূলধনের প্রধান উৎস হিসেবে পুঁজিবাজারকে গড়ে তুলতে হবে। এজন্য উৎপাদনশীল খাতে নতুন নতুন কোম্পানি গড়ে তোলা বা বিদ্যমান ভাল কোম্পানির কার্যক্রম সম্প্রসারণে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে পুঁজিবাজার থেকে মূলধন সংগ্রহের মাত্রা বাড়াতে হবে। অর্থাৎ এসব প্রতিষ্ঠানকে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত করতে হবে। কিন্তু সেকেন্ডারি মার্কেটের অগ্রগতির সাথে তাল মিলিয়ে বাজার থেকে মূলধন স্থানান্তরের মাত্রা বাড়ছে না। পরিসংখ্যানে দেখা যায়, কোনো কোনো বছর আইপিও বা রাইট শেয়ারের মাধ্যমে মূলধন উত্তোলন বাড়লেও বৃদ্ধির এই প্রবণতা স্থিতিশীল হচ্ছে না।

এছাড়া সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে বিএসইসির সাবেক চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদ সিদ্দিকী, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্ণর খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ ও বিএসইসির কমিশনার ড. স্বপন কুমার বালা উপস্থিত ছিলেন। প্যানেল আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন-ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মাহমুদ ওসমান ইমাম (এফসিএমএ), বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স এসোসিয়েশনের ফার্স্ট ভাইস-প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ আহসান উল্লাহ ও আইডিএলসি ইনভেষ্টমেন্টসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মনিরুজ্জামান।

বিজনেস আওয়ার/এন

উপরে