ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮, ১ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫


সিঙ্গাপুরের ব্যবসায়ীদের জমি দেয়ার প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর

২০১৮ মার্চ ১৩ ১৫:০১:৩২


বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদকঃ সিঙ্গাপুরের ব্যবসায়ীদের জন্য চট্টগ্রামের মিরেরসরাইয়ে ৫০০ একর জমি দেয়ার প্রস্তাব করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ মঙ্গলবার সাংরিলা হোটেলে বাংলাদেশ-সিঙ্গাপুর বিজনেস ফোরামের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ প্রস্তাব উত্থাপন করেন তিনি।

সিঙ্গাপুরের ব্যবসায়ীদের জন্য একই এলাকায় ৫০০ একর জায়গা দেয়ার প্রস্তাবটি উত্থাপন করে শেখ হাসিনা বলেন, এক জায়গাতেই ৫০০ একর জায়গা বা তার থেকেও বেশি, আপনাদের যা প্রয়োজন মূলত চট্টগ্রামের মিরেরসরাইয়ে। আর বিনিয়োগের জন্য মিরেরসরাই খুবই উপযুক্ত স্থান বলেও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।

দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশে বিদেশি বিনিয়োগের শর্ত সবচেয়ে উদার বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, বিদেশি বিনিয়োগকারীরা আইনের সুরক্ষা পাচ্ছেন। এ ছাড়া তারা কর অবকাশ, যন্ত্রপাতি আমদানির ওপর ছাড় এবং মুনাফা নিজ দেশে ফেরত নিতে পারবেন।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের বিশাল তরুণসমাজ রয়েছে, যারা উদ্যমী। তারা সহজেই প্রশিক্ষিত কর্মীতে পরিণত হতে পারে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, ভারত, জাপান ও নিউজিল্যান্ডের বাজারে বাংলাদেশের তৈরি পণ্যের শুল্ক এবং কোটামুক্ত সুবিধার কথাও তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের তৈরি পোশাক খাতের সফলতা সবার জানা। এই খাত থেকে ২০১৭ সালে ৩০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার রফতানি আয় হয়েছিল। আমরা ২০২১ সালের মধ্যে এই খাতের রফতানি আয় ৫০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নীত করতে চাই।

অভ্যন্তরীণ চাহিদার ৯৭ শতাংশ পূরণের পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ বিশ্বের ১২০ দেশে বাংলাদেশের ওষুধ রফতানি হচ্ছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী। কম খরচে উচ্চমানের ওষুধ উৎপাদনে বাংলাদেশ দ্রুতই প্রধান বৈশ্বিক কেন্দ্রে পরিণত হচ্ছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের জ্ঞান শিল্প ও তথ্যপ্রযুক্তি থেকে শুরু করে সংশ্লিষ্ট শিল্পগুলো দ্রুত সম্প্রসারিত হচ্ছে। জাহাজ নির্মাণ বাংলাদেশের আরেকটি দ্রুত বিকাশমান শিল্প। আমরা ছোট থেকে মাঝারি আকারের বিশ্বমানের সমুদ্রগামী জাহাজ তৈরি করছি।

তিনি বলেন, আইটিশিল্পে বিদেশে বিনিয়োগের জন্য আমরা বেশ কিছু হাইটেক পার্ক গড়ে তুলছি। আইটি পণ্য ও সেবা রফতানি করে ২০২১ সালের মধ্যে পাঁচ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, আমাদের প্রবৃদ্ধির ৪-৫ শতাংশ দখল করে আছে উৎপাদন খাত। ২০৩০ সালের মধ্যে আমাদের মোট জনসংখ্যার অর্ধেক নগরের ভোক্তায় পরিণত হবে এবং এতে একটি বড় বাজার সৃষ্টি হবে।


বিজনেস আওয়ার / ১৩ মার্চ ২০১৮ / এমএএস

উপরে