ঢাকা, শুক্রবার, ২৭ এপ্রিল ২০১৮, ১৪ বৈশাখ ১৪২৫


সৌদিতে যৌন ও শারীরিকভাবে নির্যাতিত বাংলাদেশি নারীরা

২০১৮ এপ্রিল ০১ ১১:৩৮:৩৮


বিজনেস আওয়ার ডেস্কঃ সৌদি আরবে যাওয়া বাংলাদেশি নারীরা নিয়োগ কারীদের দ্বারা যৌন ও শারীরিকভাবে নির্যাতিত হয়ে কর্মস্থল ছেড়ে পালাতে বাধ্য হচ্ছেন। মধ্যপ্রাচ্য ভিত্তিক সংবাদমাধ্যম মিডলইস্ট আই'তে প্রকাশিত এক অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে এ তথ্য। রিয়াদ থেকে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো ফাঁস হওয়া গোপনীয় কূটনৈতিক বার্তা থেকে এসব তথ্য জানা গেছে বলে দাবি সংবাদমাধ্যমটির।

ওই কূটনৈতিক বার্তায় বলা হয়, প্রতিদিন গড়ে ৩ থেকে ৪ জন নারী আশ্রয় কেন্দ্রে আসেন। অব্যাহতভাবে আশ্রয়কেন্দ্রে আসা নারীদের সংখ্যা বাড়তে থাকায় তাদের থাকার ব্যবস্থা করতে রিয়াদে বাংলাদেশ দূতাবাস কর্মকর্তারা আশ্রয় কেন্দ্রে আরও আসন বৃদ্ধি ও সিসিটিভি-সিস্টেম পাঠানোর অনুরোধ করেছেন ওই বার্তায়।

আশ্রয় কেন্দ্রে আসা নারীদের সহযোগিতার জন্য দূতাবাসে কোনো নারী কূটনীতিক নেই বলে জানিয়ে ওই বার্তায় একজন কাউন্সেলর পাঠানোর অনুরোধ জানানো হয় বলে দাবি সংবাদমাধ্যমটির।

ঢাকার একজন কূটনীতিককে উদ্ধৃত করে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পালিয়ে আশ্রয় কেন্দ্রে আসা নারীরা অভিযোগ করেন নিয়োগকর্তারা তাদের ওপর নানা ধরনের নিপীড়ন চালান। কেউ আবার অসুস্থ হয়েও আসেন। তাই তারা এখানে আশ্রয় নিতে চান।

প্রতিবেদন বলা হয়, আশ্রয় নেয়া নারীরা দেশে ফিরে আসতে দূতাবাসের সহযোগিতা চেয়ে থাকেন। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, তাদের সাথে পাসপোর্ট বা অন্যান্য কাগজপত্র থাকে না।

সংবাদমাধ্যমটিকে কয়েকজন নারী জানিয়েছেন, সৌদি আরবে পৌঁছার পরপরই গৃহকর্তারা তাদের কাছ থেকে সব ধরনের কাগজপত্র নিয়ে নেয়। এতে অনেকের পক্ষে সহজে দেশে ফিরে আসা সম্ভব হয় না।

আবার কিছু ক্ষেত্রে ভুক্তভোগীদের বিরুদ্ধে মামলা করে তাদের দেশে ফেরার প্রক্রিয়াকে বিলম্বিত করেন নিয়োগকর্তারা। ফাঁস হওয়া কূটনৈতিক বার্তায় বলা হয়েছে, এমন ক্ষেত্রে ভুক্তভোগীর দেশে ফিরতে কখনো ১৫ দিন বা এক মাস আবার কখনো ৬ মাস পর্যন্ত সময় লেগে যায়।

তবে দেশটিতে এরকম ঠিক কতগুলো আশ্রয় কেন্দ্র রয়েছে সে সম্পর্কে নির্দিষ্ট কোনো তথ্য ওই বার্তায় দেয়া হয়নি বলে জানানো হয়েছে ওই প্রতিবেদনে।


বিজনেস আওয়ার / ০১ এপ্রিল ২০১৮ / এমএএস

উপরে