ঢাকা, বুধবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৮, ১২ বৈশাখ ১৪২৫


বার্ধক্য ধীর করার উপায়

২০১৮ এপ্রিল ০৯ ১৮:১৭:৪১

বিজনেস আওয়ার ডেস্কঃ‘আরএএস লাক্সারি ওয়েল্স’য়ের প্রতিষ্ঠাতা সুভিকা জৈন, ‘কিহল’স ইন্ডিয়া’র শিক্ষা ব্যবস্থাপক সাম কুমার এবং ‘স্কিন অ্যালাইভ ক্লিনিক’য়ের পরিচালক ও ত্বকবিশেষজ্ঞ ও পরামর্শক চিরঞ্জিব ছাবরা বুড়ো হওয়ার প্রক্রিয়া ধীর করার কয়েকটি পন্থা জানিয়েছেন।

* ত্বকে বয়সের ছাপ পড়ার অন্যতম কারণ দীর্ঘস্থায়ী পানিশূন্যতা। পর্যাপ্ত পানি পান চামড়ার স্থিতিস্থাপকতা এবং আর্দ্রতা বজায় রাখে; ত্বক হয় তারুণ্যদীপ্ত।

প্রতিদিন অন্তত আট গ্লাস পানি করলে শরীর আর্দ্র থাকবে। ফলে ত্বক হবে স্বাস্থ্যোজ্জ্বল।

* কর্টিসল হচ্ছে ‘স্ট্রেস হরমোন’ যা শরীর ও মনকে অবসাদগ্রস্ত করে। ফলাফল- ত্বকে বয়সের ছাপ। প্রতিদিনের ‘চাপ’ কাটাতে ব্যায়াম, মেডিটেশন, শান্তিময় মালিশ ও অ্যারোমাথেরাপি কার্যকর।

* ত্বক উপযোগী ক্লিঞ্জার ব্যবহার করে দিন শুরু করুন। বিশেষ করে ক্যালেনন্ডুলা বা শসার নির্যাস সমৃদ্ধ ক্লিঞ্জার বেছে নিন। এগুলো প্রদাহরোধী এবং দেবে শান্তিময় অনুভূতি।

ত্বক পরিষ্কারের পর উপযোগী টোনার ব্যবহার করুন। যা মুখের ত্বক আলতোভাবে পরিষ্কার করবে। পাশাপাশি লোমকূপ রাখবে টানটান আর ত্বক রাখবে আর্দ্র।

ভিটামিন সি, ‘মাইক্রো ফিল্টার্ড ইস্ট’য়ের নির্যাস বা গ্লিসারিন সমৃদ্ধ উপাদান রয়েছে এমন টোনার বেছে নিন। এগুলো ত্বক আর্দ্র রাখতে পারে। পাশাপাশি মলিন ত্বকে নিয়ে আসে দীপ্তি। এছাড়া সূক্ষ্ম বলিরেখাও দূর করতে পারে।

* ‘হায়লরনিক অ্যাসিড’, ‘জাসমোনিক অ্যাসিড’, ‘কপার পিসিএ’ এবং ‘ক্যালশিয়াম পিসিএ’ এরকম উপাদান সমৃদ্ধ হালকা ময়েশ্চারাইজার ক্রিম প্রতিদিন ব্যবহার করুন। এগুলো বৃদ্ধভাব দূর করে। আর ত্বক রাখে আর্দ্র।

* ‘কোলাজেন’- কোষকলার এই প্রোটিন ত্বক, কেশ ও নখে শক্তি যোগায়। পর্যাপ্ত প্রোটিন ত্বকের ঝুলে পড়া ও অল্প বয়সে বুড়োটে দেখানো রোধ করতে পারে।

তবে প্রাণিজ নয়, উদ্ভিজ্জ প্রোটিন সবচেয়ে ভালো। এজন্য কাঠবাদাম, ব্রকোলি, ওটস, আখরোট, টোফু এবং সয়া মিল্ক খাওয়ার অভ্যাস করলে পাওয়া যাবে উদ্ভিজ্জ প্রোটিন। যাগুলো ত্বকের কোষ রাখবে অক্ষত।

* জোঁকের মতো লেগে থাকা দেহের দূষিত পদার্থ অকাল পক্কতার কারণ। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যেমন- ভিটামিন সি, এ, ই এবং বেটা ক্যারোটিন শরীরের হারানো পুষ্টি ফিরিয়ে আনে। সবুজ শাক-সবজি রক্তের শর্করা স্বাস্থ্যকর মাত্রায় রাখতে সাহায্য করে, রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে এবং ‘অক্সিডেটিভ স্ট্রেস’ দূর করতে পারে।

* ‘পারাবিন্স’ থেকে ‘প্রিজারভেটিস’- এই ধরনের বিষাক্ত রাসায়নিক পদার্থ কমবেশি সব সৌন্দর্যচর্চার পণ্যে থাকে। যা শরীরকেই বিষাক্ত করে না পাশাপাশি ত্বকেও বয়সের ছাপ ফেলে দ্রুত।

তাই ভেতর ও বাহির থেকে তারুণ্যময় দেখাতে ত্বকে মাখার প্রাকৃতিক তেল ব্যবহার করুন। এরজন্য ল্যাভেন্ডার, রোজহিপ, জেরানিয়াম, পোমেগ্রানাট এবং চন্দনকাঠের তেল উৎকৃষ্ট। এগুলোতে রয়েছে আর্দ্র রাখার উপাদান যা ত্বককে উজ্জ্বল দেখানোর পাশাপাশি বলিরেখা মুক্ত রাখতে পারে।

* সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি ত্বকের মারাত্বক ক্ষতি করতে পারে। অকালপক্কতা, কোষের ক্ষতি এবং ত্বকের ক্যান্সারের জন্যেও দায়ী সূর্যের ‘ইউভি এ’ এবং ‘ইউভি বি’ রশ্মি। সানস্ক্রিন এই ধরনের ক্ষতি রক্ষা করে।

দিনের বেলায় এসপিএফ ৫০ মানের সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে হবে। পাশাপাশি ‘মেক্সোরেল এসএক্স’, ‘মেক্সোরেল এক্সএল’ এবং ‘টাইটানিয়াম ডিঅক্সাইড’ আছে এমন সানস্ক্রিন বেছে নিন। এগুলো সূর্যের ‘ইউভি’ বা অতিবেগুনি রশ্মির ছাঁকনি হিসেবে কাজ করে।

* কষ্ট হলেও ধূমপানের অভ্যাস থাকলে তা ছাড়তে হবে। কারণ অকালে বৃদ্ধ দেখানোর অন্যতম উপহার হচ্ছে ধূমপান।

* যতটা সম্ভব প্রক্রিয়াজাত খাবার থেকে দূরে থাকতে হবে। বৃদ্ধ হওয়ার অন্যতম কারণ ‘ফসফেটস’ ভিটামিন ডি’র কার্যকারিতা কমায়। ফলে হাড় হয়ে যায় দুর্বল। প্রিক্রিয়াজাত খাবার বৃদ্ধ হওয়ার প্রক্রিয়াও দ্রুত করে। তাই যতটা সম্ভব প্রাকৃতিভাবে প্রস্তুতকৃত খাবার খাওয়ার চেষ্টা করতে হবে।

বিজনেস আওয়ার /০৮ এপ্রিল / আর এইচ

উপরে