ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৮, ১৩ বৈশাখ ১৪২৫


ফের রাসায়নিক হামলা হলে যুক্তরাষ্ট্রও পাল্টা আঘাত হানবে

২০১৮ এপ্রিল ১৫ ০৯:১৬:১৮

বিজনেস আওয়ার ডেস্কঃ সিরিয়ার সরকারকে সতর্ক করে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, নতুন করে রাসায়নিক হামলা হলে যুক্তরাষ্ট্র আবারও আঘাত হানবে। এ জন্য তাঁর দেশ প্রস্তুত রয়েছে।

সপ্তাহখানেক আগে সিরিয়ার দুমা শহরে রাসায়নিক হামলা চালানো হয়। এ জন্য সিরিয়ার সরকারকে দায়ী করে গতকাল শনিবার একযোগে হামলা শুরু করে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স। আর সিরিয়া বলছে তারা কোনো রাসায়নিক হামলা চালায়নি। বিদ্রোহীদের পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী এ হামলা হয়েছে।

এদিকে, জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে এ হামলার নিন্দা প্রস্তাব উত্থাপন করে সিরিয়ার ঘনিষ্ঠ মিত্র রাশিয়া। প্রস্তাবটি নাকচ হয়ে যায়। ১৫ সদস্যের নিরাপত্তা পরিষদে নিন্দা প্রস্তাব আনা রাশিয়ার পক্ষে ভোট দিয়েছে কেবল বলিভিয়া ও চীন।

জাতিসংঘে রাশিয়ার দূত ভাসিলি নেবেনজিয়া প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের একটি বিবৃতি পড়ে শোনান। দুমার ঘটনায় তদন্ত শেষ হওয়ার আগে এ হামলা যুক্তরাষ্ট্রসহ মিত্রদের তীব্র ঘৃণার প্রকাশ বলে উল্লেখ করা হয়।

জাতিসংঘে মার্কিন দূত নিকি হেলি বলেছেন, সিরিয়ার ওপর এ হামলা ন্যায়সংগত, বৈধ ও উপযুক্ত। তিনি বলেন, “আমি সকালে প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কথা বলেছি।

তিনি বলেছেন, ‘যদি সিরিয়ার সরকার আবার বিষাক্ত রাসায়রিক অস্ত্র ব্যবহার করে, যুক্তরাষ্ট্র প্রস্তুত (লকড অ্যান্ড লোডেড) রয়েছে।’”

হামলার পক্ষে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাকরোঁ জানিয়েছেন, সিরিয়ার সরকার দুমায় রাসায়নিক হামলা চালিয়েছে, এর পক্ষে তাঁদের কাছে প্রমাণ রয়েছে।

এ-সংক্রান্ত গোপন নথিও তাঁরা প্রকাশ করেছেন। এতে সিরিয়ার হামলার যৌক্তিকতাও তুলে ধরা হয়েছে।

এদিকে, হামলার পর ব্রিটিশ পার্লামেন্টে সমালোচনার মুখে পড়েছেন প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মে। বিরোধী লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন বলেছেন, সিরিয়ায় হামলার আগে পার্লামেন্টের অনুমতি নিতে হতো টেরিজা মের।

এদিকে, জাতিসংঘে সিরিয়ার দূত বাশার জাফারি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স মিথ্যাবাদী, লুণ্ঠনকারী ও ভণ্ড।

বিজনেস আওয়ার / ১৫ এপ্রিল ২০১৮ / এমএএস

উপরে