ঢাকা, শুক্রবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৮, ৪ কার্তিক ১৪২৫

ss-steel-businesshour24
Runner-businesshour24

না ফেরার দেশে কলেজছাত্র রাজীব

২০১৮ এপ্রিল ১৭ ০৯:০৯:৫৬

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদকঃ রাজধানীর কারওয়ান বাজার এলাকায় দুই বাসের প্রতিযোগিতায় ডান হাত হারানো কলেজছাত্র রাজীব হোসেন (২১) আর বেচে নেই। সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই ) বাচ্চু মিয়া বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন। তিনি মহাখালীর সরকারি তিতুমীর কলেজের স্নাতকের (বাণিজ্য) দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ছিলেন।

উল্লেখ্য, গেল ৩ এপ্রিল রাজধানীর বাংলামোটরের দিক থেকে ফার্মগেটমুখী বিআরটিসির একটি দোতলা বাসের পেছনের ফটকে দাঁড়িয়ে গন্তব্যে যাচ্ছিলেন সরকারি তিতুমীর কলেজের স্নাতকের (বাণিজ্য) দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র রাজীব হোসেন। হাতটি সামান্য বাইরে বেরিয়েছিল।

হঠাৎই পেছন থেকে একটি স্বজন পরিবহনের একটি বাস বিআরটিসির বাসটিকে ওভারটেক করার জন্য বাঁ দিক গা ঘেঁষে পড়ে। দুই বাসের প্রবল চাপে রাজীবের হাত শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

স্থানীয়দের সহায়তায় তাকে রাজধানীর শমরিতা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরদিন বুধবার তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রাজীবের সুচিকিৎসার জন্য সাত সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়। চিকিৎসার সমস্ত খরচ বহন করে সরকার।

সেখানে সাময়িক উন্নতির পর গত সোমবার থেকে তার মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ শুরু হয়। রাজীবের মস্তিষ্ক অবস হয়ে যায়। তারপর আর জ্ঞান ফেরেনি রা্জীবের।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তির পর তাকে দেখতে গিয়েছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। তখন তিনি বলেছিলেন, রাজীবের জীবন রক্ষা করাই এখন বড় দায়িত্ব।

রাজীব আগেই মা-বাবাকে হারিয়েছে। তার দুটো ছোট ভাই আছে। তাই তার শিক্ষাগত যোগ্যতা অনুসারে তাকে চাকরির ব্যবস্থা করা হবে।

চিফ হুইপ এ এস এম ফিরোজ সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, রাজিবের চিকিৎসায় সবধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে মেডিকেল কর্তৃপক্ষ ও সরকার। সেই সঙ্গে তার ক্ষতিপূরণে আদালত যে রায় দিয়েছেন তা পরিশোধের ব্যবস্থা নেয়া উচিত।

রাজীবের গ্রামের বাড়ি পটুয়াখালীর বাউফলে। তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ার সময় মা এবং অষ্টম শ্রেণিতে পড়ার সময় বাবাকে হারান। রাজীব ও তার ছোট দুই ভাই পটুয়াখালীর বাউফলে নানার বাড়িতে ছিলেন। ঢাকার মতিঝিলে খালার বাসায় থেকে এসএসসি ও এইচএসসি পাস করে ভর্তি হন স্নাতকে।

নিজের পায়ে দাঁড়াতে কম্পিউটার কম্পোজ, গ্রাফিকস ডিজাইনের কাজ শিখছিলেন। ছাত্র পড়াতেন। দম ফেলার ফুরসত পাননি। লক্ষ্য ছিল একটাই, নিজের পায়ে দাঁড়ানো, ভাই দুটির দায়িত্ব নেয়া। কিন্তু আজ সবাইকে রেখে রাজীব চলে গেলেন না ফেরার দেশে।

বিজনেস আওয়ার / ১৭ এপ্রিল ২০১৮ / এমএএস

উপরে