ঢাকা, বুধবার, ২৩ মে ২০১৮, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫


ছাত্রলীগের শীর্ষ পদ প্রত্যাশী প্রার্থীদের ডেকেছেন শেখ হাসিনা

২০১৮ মে ১৭ ১০:২৫:৪০

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদকঃ ছাত্রলীগের শীর্ষ দুই পদের জন্য মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করা ৩২৩ প্রার্থীর সঙ্গে সরাসরি কথা বলবেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে গতকাল বুধবার রাতে গণভবনে এক বৈঠকে এই সিদ্ধান্তের কথা জানান আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

বৈঠকে উপস্থিত একাধিক সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, নেতা হিসেবে দায়িত্ব তুলে দেওয়ার আগে প্রার্থীদের রাজনৈতিক মেধা, দক্ষতা ও যোগ্যতার পরীক্ষা নিতে এই পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন তিনি।

আগামী রবিবার ও সোমবার নেতা হতে ইচ্ছুক প্রার্থীদের গণভবনে ডাকা হতে পারে। এ কারণে এই সপ্তাহেও ছাত্রলীগের নতুন কমিটির ঘোষণা হচ্ছে না। বুধবার (১৬ মে) রাতে গণভবনে দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

জানা যায়, সেখানে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা ছাড়াও ছাত্রলীগের সদ্য বিদায়ী সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকও উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে উপস্থিত একাধিক কেন্দ্রীয় নেতা এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। ছাত্রলীগের নেতা হতে ইচ্ছুক প্রার্থীদের সাক্ষাতকার নেওয়া শেষে কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে আবারও বৈঠক করবেন প্রধানমন্ত্রী।

ছাত্রলীগের ২৯তম জাতীয় দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে সভাপতি পদে ১১১ ও সাধারণ সম্পাদক পদের জন্যে ২১২ জন প্রার্থী মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন। এ মাসের ১১ ও ১২ তারিখে সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। তবে দলটির শীর্ষ দুই পদে নতুন নেতা নির্বাচন করা ছাড়াই শেষ হয় সম্মেলন।

এর আগে তিন দফা ভোটে মাধ্যমে সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতা নির্বাচিত হয়েছে। এ প্রক্রিয়ায় সারাদেশ থেকে আসা কাউন্সিলররা ভোটাধিকার প্রয়োগ করে নেতা নির্বঅচন করে।

তবে গত দুইবার ভোটের মাধ্যমে নেতা নির্বাচিত হলেও তাদের নিয়ে নানা ধরনের সমালোচনা হয়। সর্বশেষ দুই কমিটির মাধ্যমে সংগঠনটিতে অনুপ্রবেশ ঘটেছে বলেও অভিযোগ উঠেছে।

সংগঠনের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে হতাশ করেছে। এরই পরিপ্রক্ষিতে সংগঠনের নেতৃত্ব নির্বাচনে ভোট প্রক্রিয়া বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত জানান শেখ হাসিনা। এরপর ইলেকশন নয়, বরং সিলেকশনে নেতা বানানোর সিদ্ধান্ত জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বিজনেস আওয়ার/১৭মে/এমএএস

উপরে