ঢাকা, শুক্রবার, ২০ জুলাই ২০১৮, ৫ শ্রাবণ ১৪২৫


সরকার ভ্যাট কমালেও, কমায়নি মোবাইল অপারেটররা

২০১৮ জুলাই ১২ ০৯:৩৬:৪৯

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক: বাজেটে ইন্টারনেটের ওপর থেকে ভ্যাট কমেছে ১০ শতাংশ। কিন্তু গ্রাহকের খরচ কমেনি এক পয়সাও। মোবাইল ফোন অপারেটররা এখনো গ্রাহকদের কাছ থেকে ১৫ শতাংশই হারে ভ্যাট আদায় করছে। অথচ সরকারি কোষাগারে তাদের জমা দিতে হবে পাঁচ শতাংশ হারে। এই বাকি ১০ শতাংশ যাবে কোম্পানির লাভের ঘরে।

অপারেটরদের দাবি, যে সেবা কোডের ভ্যাট কমানো হয়েছে সেটার সঙ্গে মোবাইল অপারেটদের সেবা কোডের মিল নেই। অন্যদিকে সরকার বলছে, খুচরা পর্যায়ে ব্র্যাডব্যান্ড ও মোবাইল ব্র্যান্ডে ব্যবহৃত ইন্টারনেটের ওপর থেকে গ্রাহক পর্যায়ে ইন্টারনেটের ভ্যাট কমানো হয়েছে। তারা সরকারের নির্দেশ না মানলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মোবাইল ফোন অপারেটরদের সংগঠন অ্যামটব বলছে, বাজেটে ইন্টারনেটের ওপর যে ভ্যাট কমানো হয়েছে তার সেবা কোড এস ০১২.১৪। অন্যদিকে টেলিকম অপারেটরগুলো টেলিকমিউনিকেশন সেবা কোড ০১২.১০ এর অন্তুর্ভুক্ত। তাই অপারেটরগুলো আগের মতই গ্রাহকদের কাছ থেকে ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট আদায় করছে।

তবে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, আমাদের কাছে মন্ত্রী পর্যায়ের যে সিদ্ধান্ত আছে সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সেখানে স্পষ্টভাবে বলা হয়েছে ইন্টারনেটে সেবার উপর ৫ শতাংশ ভ্যাট ধার্য করা হলো। অপারেটরগুলো দাবি করছে তারা আলাদা সেবা কোডের আওতাভুক্ত। ওই এসআরও এর কোনো কপি এখনও পর্যন্ত আমার কাছে পৌঁছায়নি।

মন্ত্রী বলেন, অপারেটরেরা তাদের পক্ষ থেকে কী বলছে সেটা আলাদা কথা। ব্রডব্যান্ড এবং মোবাইল ব্র্যান্ড বলতে ডিফারেন্ট কিছু নেই। দুটোর উপরই ভ্যাট ১৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ করা হয়েছে। ইন্টারনেট ইন্টারনেটই। সেটা মোবাইলে দেয়া হোক বা তারে দেয়া হোক অথবা বেতারে দেয়া হোক। খুচরা পর্যায়ে গ্রাহকরা যে ভ্যাট দিতে সেই ভ্যাট কমানো হয়েছে।

কোড নিয়ে মোবাইল অপারেটদের যুক্তির বিষয়ে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, আমরা সরকারের পক্ষ থেকে গ্রাহক পর্যায়ের ভ্যাট কমিয়েছি। বাংলাদেশে যারা ইন্টারনেট সেবা দেবে তাদেরকে গ্রাহক পর্যায়ে ১০ শতাংশ ভ্যাট কমাতে হবে। সরকারের নির্দেশ কোনো অপারেটরই অমান্য করতে পারবে না। সরকার তাদেরকে নির্দেশ দিয়েছে ইন্টারনেটের উপর থেকে গ্রাহকদের কাছ থেকে ৫ শতাংশের বেশি আদায় করতে পারবে না।

আমরা ইতিমধ্যে অপারেটরদের নির্দেশ দিয়েছি। যাতে তারা গ্রাহকদের কাছ থেকে পাঁচ শতাংশ ভ্যাট সংগ্রহ করে। একই নির্দেশ আইএসপি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোকেও দেয়া হয়েছে।তাদের কাছে আমরা চিঠি দিয়েছি। তারা সেই চিঠির জবাব দেবে। তখন আমাদের কথা যদি না মানে তবে যে ব্যবস্থা নেয়ার তা আমরা নেব।

এই ভ্যাট কমানোটা হচ্ছে জনগণের জন্য এবং আমরা এটা নিশ্চিত করব যে যাতে অপারেটর ও আইএসপি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান এটা মানতে বাধ্য হয়।

বিজনেস আওয়ার/১২জুলাই/এমএএস

উপরে