ঢাকা, রবিবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ১ পৌষ ১৪২৫


ভিকারুননিসার শিক্ষিকা হাসনা হেনা গ্রেফতার

২০১৮ ডিসেম্বর ০৬ ০৮:৪৮:৩৭

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক: ভিকারুননিসা স্কুলের দশম শ্রেণীর ছাত্রী অরিত্রীকে আত্মহত্যায় প্ররোচণার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের বরখাস্ত হওয়া শিক্ষক হাসনা হেনাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বুধবার (০৫ ডিসেম্বর) দিনগত রাত ১১টার দিকে রাজধানীর উত্তরা থেকে তাকে গ্রেফতার করে গোয়েন্দা পুলিশ।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উপকমিশনার খন্দকার নুরুন্নবী বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, শিক্ষক হাসনা হেনাকে ডিবি কার্যালয়ে নেওয়া হয়েছে। ডিবির পশ্চিম ডিভিশনের এসি আতিকের নেতৃত্বে মতিঝিল জোনাল পূর্ব টিম উত্তরার এক হোটেল থেকে হাসনা হেনাকে গ্রেফতার করে।

এদিকে, অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায় ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের তিন শিক্ষকের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। বুধবার (০৫ ডিসেম্বর) মামলাটির তদন্ত ভার পল্টন থানা থেকে ডিবিতে হস্তান্তর করা হয়।

উল্লেখ্য, গত সোমবার (৩ ডিসেম্বর) দুপুরে রাজধানীর শান্তিনগরের নিজ বাসায় ফ্যানের সঙ্গে গলায় ফাঁস দেয় অরিত্রী। মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল (ঢামেক) কলেজ হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনার পরদিন মঙ্গলবার (৪ ডিসেম্বর) রাতে রাজধানীর পল্টন থানায় 'আত্মহত্যার প্ররোচণাকারী' হিসেবে স্কুলের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, প্রভাতী শাখার শিফট ইনচার্জ জিনাত আখতার ও প্রভাতী শাখার শ্রেণি শিক্ষিকা হাসনা হেনার বিরুদ্ধে মামলা করেন অরিত্রির বাবা।

ভিকারুননিসার শিক্ষক আতাউর রহমান, খুরশিদ জাহান এবং গভর্নিং বডির সদস্য ফেরদৌসী বেগমকে নিয়ে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে স্কুল কর্তৃপক্ষ। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌসসহ তিন শিক্ষককে বরখাস্ত করে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের গভর্নিং বডি।

অভিযানে অংশ নেয়া ডিবির এক কর্মকর্তা বলেন, হাসনা হেনাকে গ্রেফতারে তার মগবাজারের বাসায় নারী পুলিশ নিয়ে অভিযান চালানো হলে সেখানে তাকে পাওয়া যায়নি। তাকে খুঁজতে তথ্যপ্রযুক্তির সহযোগিতা নেয়া হয়।

তার ও তার পরিবারের সদস্যদের কল রেকর্ডের সূত্র ধরে তার অবস্থান সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যায়। এরপর হোটেলে অভিযান চালানো হয়। সেখানে একটি কক্ষ থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারের পর তাকে ডিবি কার্যালয়ে আনা হয়। বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) সকালে আবারও তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে দুপুরেই তার রিমান্ড চেয়ে আদালতে তোলা হতে পারে।

ডিবির (পূর্ব) সহকারী কমিশনার (এসি) আতিকুল ইসলাম বলেন, এই মামলায় আরও দুইজন আসামি পলাতক এদের মধ্যে জিনাত আখতারের বাড়িতে অভিযান চালালে সেখানে তাকে পাওয়া যায়নি। তবে তাদের গ্রেফতারে একাধিক টিম কাজ করছে।

বিজনেস আওয়ার/০৬ ডিসেম্বর, ২০১৮/এমএএস

উপরে