sristymultimedia.com

ঢাকা, শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ৩০ কার্তিক ১৪২৬


চলতি মাসেই বসছে মেট্রোরেলের লাইন

০৫:৫৩পিএম, ০৪ নভেম্বর ২০১৯

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : চলতি মাসের শেষদিকে উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত মেট্রোরেলের পাত বসানো শুরু হবে। এখন চলছে সেই পাত বসানোরই পূর্বপ্রস্তুতি। আর নতুন বছরের জানুয়ারিতে দেশে আসবে মেট্রোরেলের নমুনা।

ঢাকা মাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ এন সিদ্দিক বলেন, আমাদের রেলওয়ে ট্র্যাক ইতোমধ্যে চলে এসেছে। মেট্রোরেল-৬ এর জন্য ট্র্যাক বসানোর প্রস্তুতিও শুরু হয়ে গেছে।

ট্র্যাক বসানোর জন্য কিছু পূর্বপ্রস্তুতি লাগে। এখন পুর্বপ্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। নভেম্বরের শেষ দিকে এসব ট্র্যাক বসানোর কাজ শুরু হয়ে যাবে। উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত অংশে ভায়াডাক্টের ওপরে রেললাইন বসে যাবে। বাহ্যিকভাবে ডিসেম্বরে এটা দেখা যাবে।

উত্তরার দিয়াবাড়িতে দেখা গেছে, ডিপো থেকে উড়ালপথে ট্রেন ওঠার পথ তৈরির কাজ চলছে। সেখানে কর্মরত প্রকল্পের কর্মীরা জানিয়েছেন, পাথর-বালুর মিশ্রণে সাববেইজ এর কাজ শেষ। সাব বেইজের ওপর থাকবে পাথর, পাথরের ওপর স্লিপার আর পাত বসবে।

ডিএমটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ এন সিদ্দিক জানিয়েছেন, রেল কোচ ও ডিপোর যন্ত্রাংশ সংগ্রহের কাজ দৃশ্যমান হতে দেরি হবে। প্যাকেজ আটের আওতায় রোলিং স্টক এবং ডিপো ইকুইপমেন্ট আসবে। এটা তেমন দৃশ্যমান হচ্ছে না।

কারণ বেশিরভাগ যন্ত্রপাতি বিদেশে তৈরি হচ্ছে। এগুলো তৈরির পর পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে জাহাজীকরণ করা হবে। এগুলো আসতে শুরু করলে খুব কম সময়ে বিষয়গুলো দৃশ্যমাণ হবে।

ট্রেনের প্রথম 'মকআপটা' তৈরি হয়ে গেছে, দেশে আসবে জানুয়ারি মাসে। আমরা এটা ডিপোতে বসাব। কারণ বাংলাদেশে ইতিপূর্বে কোনো মেট্রোরেল ছিল না।

টিকেট কাটা, ট্রেনে চড়া, দাঁড়ানো, নামা, ট্রেনের ভেতরে এবং স্টেশনের নির্দেশিকাগুলো কেমন থাকবে- এসব বিষয়ে মানুষকে ধারণা দিতেই এমআরটি তথ্য ও প্রদর্শনীকেন্দ্রে এটা থাকবে।

ডিএমটিসিএলের হিসাবে, মেট্রোরেল-৬ প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি এখন পর্যন্ত ৩৫ ভাগ। এ প্রকল্পের প্রথম পর্যায়ে উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত অগ্রগতি ৫৫ শতাংশ এবং দ্বিতীয় পর্যায়ের আগারগাঁও থেকে মতিঝিল অংশের অগ্রগতি ২৪ দশমিক ৭৪ শতাংশ।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ২০২১ সালের ১৬ ডিসেম্বর মেট্রোরেল প্রকল্পের পুরো অংশ চালু করে দেওয়া হবে জানান ঢাকা মাস ট্রান্সপোর্ট কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

এই সময়ের মধ্যে নির্মাণকাজ শেষ করা সম্ভব কিনা জানতে চাইলে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সাবেক এই সচিব বলেন, তারা নির্ধারিত সময়েই শেষ করতে পারবেন। এমআরটির প্ল্যানিং স্টেজটা অনেক বড় থাকে। ২০১৬ সালে ২৬ জুন এ প্রকল্পের মূল কাজ শুরু হয়েছে।

এর আগে ২০টার মতো স্টাডি করা হয়েছে। এরপর এর বেসিক ডিজাইন করা হয়েছে। তার সঙ্গে সঙ্গে এটার ফিজিবিলিটি স্টাডি করা হয়েছে। মূল কাজ শুরুর আড়াই বছরের বেশি সময় পার হওয়ার পর যে অগ্রগতি হয়েছে তা দেখলেই বোঝা যাবে প্রকল্পটি নির্ধারিত সময়ে শেষ হবে কিনা।

আমরা এখন ২৪ ঘণ্টা প্রকল্পের কাজ চালু রাখার ব্যবস্থা করেছি। ঠিকাদার এবং পরামর্শকদের সঙ্গে চুক্তিতে এসেছি টানা ২৪ ঘণ্টা কাজ করার ব্যাপারে। নির্ধারিত সময়ের আগে যে প্রকল্পের কাজ হবে এতে কোনো সন্দেহ নাই।

উত্তরার দিয়াবাড়ী থেকে মতিঝিল পর্যন্ত ২০ দশমিক ১০ কিলোমিটার দীর্ঘ মেট্রোরেল-৬ বাস্তবায়নে খরচ হচ্ছে ২২ হাজার কোটি টাকা।

২০১৬ সালের ৮ সেপ্টেম্বর এ প্রকল্পের মূল কাজ শুরু হয়। প্রকল্পের কাজ শেষ করে মেট্রোরেল চলাচল শুরুর জন্য কয়েক দফা সময় নির্ধারণ করা হয়। সবশেষ ২০২১ সালের ১৬ ডিসেম্বর মেট্রোরেল চালুর কথা জানাচ্ছে কর্তৃপক্ষ।

বিজনেস আওয়ার/০৪ নভেম্বর, ২০১৯/এ

উপরে