sristymultimedia.com

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬


লন্ডন ব্রিজে হামলাকারী কে এই উসমান?

০৫:৫১পিএম, ৩০ নভেম্বর ২০১৯

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : লন্ডন ব্রিজে শুক্রবারের হামলা পর নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের গুলিতে নিহত ব্যক্তিকে পুলিশ সনাক্ত করেছে। পুলিশ জানায়, ২৮ বছর বয়সী এ ব্যক্তির নাম ওসমান খান।

এক বিবৃতিতে সহকারী কমিশনার নেইল বসু বলেন, এ ব্যক্তির পরিচয় কর্তৃপক্ষের জানা ছিল। ২০১২ সালে সন্ত্রাসবাদের অপরাধে তার কারাদণ্ড হয়েছিল। ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে সে কারাগার থেকে মুক্তি পায়।

বসু বলেন, আরও বলেন, কীভাবে তিনি এই হামলা চালালেন, তা নিয়ে এখন তদন্ত শুরু করা হয়েছে। স্ট্যাফোর্ডশায়ারে যেখানে উসমান থাকতেন সেখানে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ।

তার শরীরে একটি ইলেকট্রনিক ট্যাগ লাগানো থাকবে, যার মাধ্যমে তার গতিবিধি নজরদারিতে রাখা হবে এমন শর্তে এক বছর আগে তাকে কারাগার থেকে মুক্তি দেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, শুক্রবার লন্ডনের স্থানীয় সময় দুপুর ১টা ৫৮ মিনিটে লন্ডন ব্রিজের উত্তর অংশে, ফিশমোনগারস হলে হামলার ঘটনাটি ঘটে। এ সময় ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়োজনে বন্দীদের পুনর্বাসন সংক্রান্ত একটি সম্মেলন চলছিল।

ছাত্র ও সাবেক কারাবন্দীসহ অনেক মানুষ সেমিনারে অংশ নিয়েছিলেন। সন্দেহভাজন ঐ ব্যক্তিও অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছিলেন।

সামাজিক মাধ্যমে পোস্ট করা একটি ভিডিওতে দেখা যায়, ব্রিজের একপাশে কয়েকজন পথচারী মিলে এক ব্যক্তিকে মাটিতে ফেলে দিতে দেখা যায়। একজন পুলিশ কর্মকর্তা এসে ঐ পথচারীদের সরে যাওয়ার ইঙ্গিত করেন এবং ঐ ব্যক্তিকে গুলি করেন।

ঐ ব্যক্তির কর্মকাণ্ডে সন্দেহ হলে কয়েকজন সাধারণ নাগরিক তাকে আটক করে মাটিতে ফেলে দেন। এরপরেই পুলিশ এসে ঘটনাস্থলের নিয়ন্ত্রণ নেয়। নিহত ব্যক্তি ভুয়া বিস্ফোরকের ডিভাইস পড়েছিল বলে পুলিশ জানিয়েছে।

হামলা রুখে দেয়া সাধারণ মানুষের প্রশংসা করেছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ও বিরোধী দল লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিনসহ অনেকে।

ব্রিটিশ সংবাদপত্র দ্য টেলিগ্রাফ জানায়, উসমান স্কুলে পড়া অবস্থায় তার মা অসুস্থ হয়ে পড়লে পাকিস্তানেও বেশ কয়েক বছর কাটিয়েছে সে। যুক্তরাজ্যে ফেরত যাওয়ার পর ইন্টারনেটে চরমপন্থার প্রচার শুরু করেন তিনি।

দ্রুত উল্লেখযোগ্য সংখ্যক অনুসারীও তৈরি করে ফেলেছিলেন।তার চরমপন্থা প্রচারের বিষয়টি যুক্তরাজ্যের পুলিশ ও গোয়েন্দার নজরে এলে তাকে সন্ত্রাসী আইনে আটক ও বিচার করা হয়। ২০১০ সালে একটি বোমা হামলার পরিকল্পনার অভিযোগে তাকে আট বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছিলো।

বিজনেস আওয়ার/৩০ নভেম্বর, ২০১৯/এ

এই বিভাগের অন্যান্য খবর

উপরে