ঢাকা, সোমবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৭, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৪

Bijoy-month-businesshour24

জাপা’য় আগাম মনোনয়ন

২০১৭ নভেম্বর ১৭ ১৬:৪৭:৩৫

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদকঃ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন প্রায় আরো এক বছর দেরিতে। তবে এখনই আগ্রহী প্রার্থীদের মনোনয়ন দিতে শুরু করেছে জাতীয় পার্টি। গত কয়েকদিনে রাজশাহী, বরিশালসহ কয়েকটি এলাকার একাধিক আগ্রহী প্রার্থীর হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে সংসদ নির্বাচনের মনোনয়নপত্র। তড়িঘড়ি করে এসব মনোনয়ন দেওয়ার পেছনে কী কারণ থাকতে পারে তা নিয়ে শুরু হয়েছে আলোচনা।

একটি সুত্র বলছে, সরকারকে চাপে রাখতেই নাকি জাপা চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদ এই কৌশল নিয়েছেন। তবে এর পেছনে বাণিজ্য ও লেনদেনের সম্পৃক্ততা থাকতে পারে বলেও অভিযোগ উঠেছে।

জাপার সিনিয়র নেতাদের অভিযোগ, আগাম মনোনয়নের বিষয়টি চূড়ান্ত না হলেও প্রাথমিক বাছাইয়ের কারণ মূলত দু’টি। এর মধ্যে একটি হচ্ছে, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে চাপে রাখার কৌশল হিসেবে অগ্রিম মনোনয়ন দিচ্ছেন এরশাদ। আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোট বেঁধে নির্বাচন করলে জাপার চাহিদা মোতাবেক আসন প্রাপ্তিই হবে প্রধান কারণ।

দ্বিতীয় কারণ হিসেবে দলের তিন সিনিয়র নেতার অভিযোগ, অগ্রিম মনোনয়নের পেছনে বাণিজ্যচিন্তা কাজ করছে এরশাদঘনিষ্ট দলের একাংশের মধ্যে।

এব্যাপারে জাপার মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, আমরা তিন বার সরকারের সঙ্গে ছিলাম। দীর্ঘ সময় তাদের সঙ্গে আমাদের সহাবস্থান চলছে। আমরা সরকারকে যতটা জানি তাতে চাপ দেওয়ার প্রয়োজন হবে না। আলোচনার ভিত্তিতে অতীতেও সমাধান হয়েছে, ভবিষ্যতেও হবে।

তিনি বলেন, আমাদের একটা চা খাওয়ারও সুযোগ নেই। আম ও লিচুর সময় হলে তো পেতাম। আত্মীয়স্বজন, নেতাকর্মী সবাই আম-লিচু খাওয়ায়। এর বেশি না। বাণিজ্যের কোনও সুযোগ নেই। দলের চেয়ারম্যান মনোনয়নের আগে যাচাই-বাছাই করবেন, এরপরই চূড়ান্ত মনোনয়ন। তবে যাদের দেওয়া হয়েছে তারা আমাদের দীর্ঘদিনের পরীক্ষিত মানুষ, তাদের উপেক্ষা করা যাচ্ছে না।

এব্যাপারে এরশাদের রাজনৈতিক সচিব ও প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনীল শুভরায় বলেন, যেখানে আমাদের দলের সাংগঠনিক অবস্থা জোরদার করা প্রয়োজন সেসব এলাকায় কিছু প্রার্থীকে দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে। এটা সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত ছিল, যেখানে সমস্যা আছে সেখানে কাউকে দায়িত্ব দিতে হবে। এটি নিয়ে ভুল বোঝাবুঝির অবকাশ নেই।

বিজনেস আওয়ার / ১৭ নভেম্বর ২০১৭ / এমএএস

উপরে