ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫


যে দুই কোম্পানির শেয়ার কিনে বিনিয়োগকারীরা দিশেহারা

২০১৭ নভেম্বর ২১ ১৬:০৯:৫৭

বিনিয়োগকারীদের এবার ভালো লভ্যাংশ দেবে–এমন আশায় চড়া দরে তালিকাভু্ক্ত দুই কোম্পানির শেয়ার কিনে বিনিয়োগকারীরা এখন প্রায় দিশেহারা। ভালো লভ্যাংশ প্রদানের পরিবর্তে ‘নো ডিভিডেন্ড’ দেয়ায় মুনাফার আশায় যারা কোম্পানি দুটির শেয়ার কিনেছিলেন, তাদের এখন মাথায় হাত। কোম্পানি দুটি হলো- হাক্কানী পাল্প ও অ্যারামিট সিমেন্ট। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, কিছুদিন আগে স্বল্প সময়ের ব্যবধানে ৫২ টাকার শেয়ার দর বেড়ে ১০০ টাকার কাছাকাছি চলে যায় ‘বি’ ক্যাটাগরিতে থাকা হাক্কানী পাল্পের শেয়ার। বাজারে গুজব ছিল কোম্পানিটি একটি টিস্যু কারখানা স্থাপন করবে। এর পাশাপাশি ভালো লভ্যাংশ দিয়ে কোম্পানিটি ‘এ’ ক্যাটাগরিতে ফিরে আসবে। পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার নিয়ে কারসাজি হচ্ছে এমন গুজবও বাজারে চড়াও হয়। যে কারণে কোম্পানিটির শেয়ার দর লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ে। যারা শেয়ারটি নিয়ে কারসাজি করেছিলেন, তারা এ সুযোগে চড়া দামে কোম্পানিটির শেয়ার সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাঁধে গছিয়ে কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে যায়। বিপাকে পড়ে যায় সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। এর পর ‘নো ডিভিডেন্ড’ ঘোষণা করলে কোম্পানিটির শেয়ার দর ৫০ টাকার নিচে নেমে যায়।

এ প্রসঙ্গে হাক্কানী পাল্পের কোম্পানি সচিব মোহাম্মদ মুসা বলেন, ‘মূলত মুনাফা করতে না পারায়, ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও বিনিয়োগকারীদের নিরাশ করতে হয়েছে।’ কারণ হিসেবে ‘ব্যবসায়িক মন্দা’র কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আশা করছি ভবিষ্যতে আমাদের মন্দা কেটে যাবে। তখন নিশ্চয়ই বিনিয়োগকারীদের জন্য ভালো কিছু করতে পারব।’

এদিকে একইভাবে ভালো রিটার্ন পাওয়ার আশায় অ্যারামিট সিমেন্টের শেয়ার চড়া দরে বিনিয়োগকারীরা কিনেন। কোম্পানিটি বিনিয়োগকারীদের ভালো ডিভিডেন্ড দেবে–এম গুজবে কোম্পানিটির শেয়ার দর স্বল্প সময়ের মধ্যে ৩৪ টাকা থেকে ৪৬ টাকায় উঠে যায়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত এ কোম্পানিটিও বিনিয়োগকারীদের হতাশ করে। ‘নো ডিভিডেন্ড’ ঘোষণা করায় কোম্পানিটির শেয়ার দর এখন ৩০ টাকার নিচে লেনদেন হচ্ছে।

এ বিষয়ে পুঁজিবাজার বিশ্লেষক অধ্যাপক আবু আহমেদ বলেন, গুজবে কান দিয়ে শেয়ার কেনা বোকামি ছাড়া আর কিছুই নয়। তিনি বলেন, আমাদের বাজারে গুজবের বলি হয় সব সময় সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। তারপরও তারা গুজবের উপর নির্ভর করেই বিনিয়োগ করে থাকে। ফলে বছরশেষে দেখা যায়, লাভতো দুরের কথা, আসল টাকাই উধাও হয়ে গেছে। এ কারণে আমারা সব সময় বলি, গুজবে কান না দিয়ে মৌলভিত্তির শেয়ারে বিনিয়োগ করার জন্য। মৌলভিত্তির শেয়ারে বিনিয়োগ করলে দীর্ঘ মেয়াদে হলেও ভালো রিটার্ন পাওয়া যায়।

উপরে