নিহত স্ত্রীর নাম রুমা আক্তার (৩৬)। পুলিশ ও এলাকাবাসী জানান স্ত্রী রুমা আক্তারকে রাতে মশার কয়েলে আগুন ধরাননি বলে ছুরিকাঘাতে হত্যা করেন জামাল। তারপর ভোরে আটপাড়া থানায় গিয়ে আত্মসমর্পণ করেন। সকাল ১০টার দিকে পুলিশ রুমার লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। পরে সেখান থেকে দুপুরে ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

পুলিশ বলছে, জামাল উদ্দিনের বিরুদ্ধে আরও হত্যা মামলা আছে। এর আগেও জামাল উদ্দিন তাঁর ভাবিকে হত্যার পর থানায় গিয়ে আত্মসমর্পণ করেন। ওই মামলায় এখন জামিনে আছেন তিনি।

আটপাড়া থানার পরিদর্শক তদন্ত এ টি এম মাহমুদুল হক বলেন, ‘জামাল নিজেই থানায় এসে স্ত্রী রুমাকে হত্যার ব্যাপারে স্বীকারোক্তি দিয়েছেন। এর আগে ভাবিকে হত্যা করার কথাও তিনি পুলিশকে জানিয়েছিলেন।

আসামীর পরিবারের ভাষ্য মতে, রুমার বাবার বাড়িও একই গ্রামে। ১৯৯৯ সালে জামাল উদ্দিনের সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়। তাঁদের দুটি ছেলে রয়েছে। বড় ছেলে কলেজে পড়ে আর ছোটটি অষ্টম শ্রেণিতে। দীর্ঘদিন ধরেই স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বনিবনা ছিল না বলে জানান প্রতিবেশী রোকসানা বেগম। দুজনের মধ্যে প্রায়ই অশান্তি হতো বলেও জানান তিনি।

কয়েকজন এলাকাবাসী ও পুলিশ বলছে, জামাল উদ্দিন ২০০৭ সালে বড় ভাই জালাল উদ্দিন সরকারের স্ত্রী জহুরা আক্তারকে দা দিয়ে গলা কেটে হত্যা করেন। অভিযোগ ছিল, জোহুরা তাঁর কথা শুনতেন না এবং প্রায়ই ঝগড়া করতেন। ওই হত্যার পরই তিনি দৌড়ে থানায় গিয়ে আত্মসমর্পণ করেন। হত্যা মামলাটি বর্তমানে বিচারাধীন রয়েছে। তিনি ২০১১ সাল থেকে জামিনে রয়েছেন। ২০০০ সালে গ্রামবাসীর সঙ্গে সংঘর্ষে দুটি হত্যা মামলারও আসামি ছিলেন জামাল উদ্দিন। এসব মামলার রায়ে তিনি খালাস পান।

নেত্রকোনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মোহাম্মদ শাহজাহানের ভাষ্য, রুমার বড় ভাই সুলতান উদ্দিন বাদী হয়ে থানায় হত্যা মামলা করেছেন।

বিজনেস আওয়ার/ রিয়াদুল ইসলাম