ঢাকা, রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১১ ফাল্গুন ১৪২৬


১৭০ রানে থামলো জিম্বাবুয়ের ইনিংস

০৩:২৮পিএম, ১৫ জানুয়ারি ২০১৮


বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদকঃ ম্যাচের শুরুতেই জোড়া আঘাত হেনে জিম্বাবুয়েকে চেপে ধরেছিলেন সাকিব। পরে ১টি করে উইকেট নিয়ে তাদের ওপর চাপ বাড়িয়েছিলেন মাশরাফি-মুস্তাফিজ।

শেষ পর্যন্ত সেই চাপ কাটিয়ে উঠতে পারল না অতিথিরা। টাইগার বোলারদের বিধ্বংসী বোলিংয়ে ৪৯ ওভারে ১৭০ রানে গুটিয়ে গেছে তারা।

রকেট ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রথম ম্যাচে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা।

ফিল্ডিংয়ে নেমে প্রথম ওভারেই বল তুলে দেন দলের অন্যতম ভরসা সাকিব আল হাসানের হাতে। আস্থার প্রতিদানও দেন বিশ্বসেরা এ অলরাউন্ডার। মিরপুরের দর্শকেরা গ্যালারিতে বসার আগেই জোড়া আঘাত হানলেন সাকিব আল হাসান।

ওভারের দ্বিতীয় বলেই সলোমন মিরেকে স্টাম্পিংয়ের ফাঁদে ফেলেন সাকিব। ওয়াইড ডেলিভারিটি খেলতে গিয়ে মিরের পেছনের পা উঠে গিয়েছিল।

এ সুযোগে তাঁকে স্টাম্পিং করেন মুশফিকুর রহিম। এক বল পরই আরভিনকে মিড উইকেটে সাব্বির রহমানের ক্যাচে পরিণত করেন সাকিব। তারা কেউই রানের খাতা খুলতে পারেননি।

এরপর হ্যামিল্টন মাসাকাদজাকেও সাজঘরে পাঠিয়ে দেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। অষ্টম ওভারের শেষ বলে মাশরাফির করা অফ স্টাম্পের বাইরের ডেলিভারি খেলতে গিয়ে উইকেটের পেছনে মুশফিককের গ্লাভসবন্দী হান মাসাকাদজা। ৩০ রানে তিন উইকেট হারিয়ে চাপের মুখেই পড়ে সফরকারীরা।

চতুর্থ উইকেটে সিকান্দার রাজার সঙ্গে ব্রেন্ডন টেলরের ২১ রানের জুটি ভেঙে দেন মোস্তাফিজুর রহমান।

১৬.৪ ওভারের মাথায় জিম্বাবুয়ে শিবিরে চতুর্থ আঘাত হেনেছেন টাইগার বোলিং বিস্ময় মোস্তাফিজু। মুশফিকের তালুবন্দি করেতিনি ফেরালেন অভিজ্ঞ ব্রেন্ডন টেলরকে (২৪)।

পঞ্চম উইকেটে ম্যালকম ওয়ালারকে সঙ্গে নিয়ে ৩০ রানের জুটি গড়ে স্রোতের বিপরীতে প্রতিরোধ গড়ে তোলার চেস্টা করেছিলেন সিকান্দার রাজা। কিন্তু সেই প্রতিরোধ ভেঙে দেন সানজামুল ইসলাম।

দলীয় ৮১ রানের মাথায় ম্যালকম ওয়ালার (১৩)কে সাজঘরে পাঠায় এই স্পেশাল স্পিনার। সানজামুলের বলে ১৩ রান করে ওয়ালার সাব্বির রহমানের হাতে ক্যাচ দিয়ে মাঠ ছাড়েন।

এর পর সিকান্দার রাজা পিটার মুরকে সাথে নিয়ে লড়াই করতে থাকেন। কিন্তু সে লড়াই থামালেন সাকিব-মুশফিক।

তাদের যৌথ প্রচেষ্টায় রানআউটে কাটা পড়ে সাজঘরে ফিরলেন লড়তে থাকা এ ব্যাটসম্যান। দলীয় ১৩৪ রানের মাথায় সিকান্দার রাজা ৯৯ বলে দুই চার ও দুই ছক্কায় দলীয় সর্বোচ্চ ৫২ রান করে বিদায় নেন তিনি।

দ্রুত রান নিয়ে গিয়ে মুরের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে সাকিবের থ্রোতে উইকেটে পৌঁছানোর আগেই স্ট্যাম্প ভেঙে দিলেন মুশফিক। ফলে ৫২ রানেই সাজঘরে ফিরে গেলেন রাজা।

এরপর ৪৬.৩ ওভারে ফের আঘাত হানেন সাকিব। অধিনায়ক গ্রায়েম ক্রেমার রুবেলে হোসেনের হাতে ক্যাচ দিয়ে ড্রেসিংরুমে দিতে এগিয়ে যান। মাঠ ছাড়ার আগে ২০ বলে ১২ রান করেন তিনি।

নিজের পঞ্চম ও দলের ৪৮ ওভারে পর পর দুই বলে দুই উইকেট তুলে নেন রুবেল। ৪৯তম ওভারের শেষ বলে দ্য ফিজের ইয়র্কারে বোল্ড হন ব্লেসিং মুজার্বানি।

শুরুটা করেছিলেন সাকিব, শেষটা করলেন মোস্তাফিজ। মাঝে উইকেটের দেখা পেলেন মাশরাফি, সানজামুল ও রুবেলরা।


বিজনেস আওয়ার / ১৫ ডীসেম্বর / এমএএস

এই বিভাগের অন্যান্য খবর

উপরে