ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০১৯, ৫ আষাঢ় ১৪২৬

eid-ul-fitor-businesshour24

পুঁজিবাজারে আসছে রেকর্ড পরিমাণ বোনাস শেয়ার

২০১৯ জানুয়ারি ০৯ ০৭:৪৫:১০

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক:২০১৮ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ১৫৪ কোম্পানি বোনাস শেয়ার ইস্যু করেছে। এসব কোম্পানি ৩৫৫ কোটি ৭৬ লাখ বোনাস শেয়ার ইস্যু করেছে। এটি পুঁজিবাজারে সর্বোচ্চ রেকর্ড বোনাস শেয়ার। এর মাধ্যমে কোম্পানিগুলো পুঁজিবাজার থেকে মূলধন বৃদ্ধি করেছে প্রায় তিন হাজার কোটি টাকার বেশি।

ডিএসই থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, ব্যাংক খাতের ২০, আর্থিক খাতের ১২, প্রকৌশল খাতের ২৩, খাদ্য ও আনুষঙ্গিক খাতের ছয়, জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতের সাত, টেক্সটাইল খাতের ২৯, ওষুধ ও রসায়ন খাতের ১৪, সার্ভিস অ্যান্ড রিয়েল এস্টেট খাতের এক, সিমেন্ট খাতের দুই, আইটি খাতের চার, ট্যানারি খাতের দুই, সিরামিক খাতের তিন, ইন্স্যুরেন্স খাতের ২৪ ও বিবিধ খাতের সাতটিসহ মোট ১৫৪ কোম্পানি ৩৫৫ কোটি ৭৬ লাখ বোনাস শেয়ার ইস্যু করেছে। এসব শেয়ারের মাধ্যমে তিন হাজার ৫৫৭ কোটি ৬০ লাখ টাকা মূলধন বৃদ্ধি পেয়েছে।

অন্যদিকে গত বছর অর্থাৎ ২০১৭ সালে মোট ১৪২ কোম্পানি ২৭৭ কোটি ৬৮ লাখ বোনাস শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে দুই হাজার ৭৯১ কোটি ৬০ লাখ টাকা মূলধন বৃদ্ধি করেছিল।

বাজার সংশ্লিষ্টদের মতে, বোনাস লভ্যাংশের মাধ্যমে যে পরিমাণ নতুন শেয়ার আসছে, তা বাজারের জন্য নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। কারণ নতুন শেয়ারের জোগান বাড়লে এর বিপরীতে চাহিদা খুব কম থাকবে। এতে শেয়ারের দর কমে যাওয়ার শঙ্কা রয়েছে। কারণ যেসব কোম্পানি বোনাস শেয়ার ঘোষণা করেছে, তাদের বেশিরভাই কোম্পানিরই শেয়ার চাহিদা এমনিতেই কম। এর মধ্যে বোনাস লভ্যাংশ দিয়ে শেয়ারহোল্ডারদের আরও ঝুঁকির মধ্যে ফেলছেন তারা।

তারা বলছেন, দুর্বল কোম্পানি থেকে লভ্যাংশ হিসেবে বোনাস শেয়ার দেওয়া হলে তা ঝুঁকির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। তিনি বলেন, এ বছর যে পরিমাণ বোনাস শেয়ার যোগ হবে, তা বাজারের জন্য ভালো নাও হতে পারে। কারণ দুর্বল কোম্পানির শেয়ার কেউ কিনতে চান না। যে কারণে এসব শেয়ারের দর কমতে থাকে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হন শেয়ারহোল্ডাররা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ডিএসইর এক পরিচালক এ প্রসঙ্গে বলেন, বোনাস শেয়ার বাজারে আসায় যে পরিমাণ শেয়ারের জোগান বাড়বে, সে পরিমাণ চাহিদা থাকবে না। কারণ কোনো কোম্পানির শেয়ার যখন বেড়ে যায়, সে কোম্পানির শেয়ারদর তখন কমে। বোনাস লভ্যাংশ দেওয়ার জন্য নীতিমালা থাকা উচিত। এটা না থাকায় কোম্পানিগুলোকে সুযোগ করে দেওয়া হচ্ছে। তিনি জানান, বেশিরভাগ কোম্পানি দায় সারার জন্য শেয়ারহোল্ডারদের বোনাস শেয়ার ধরিয়ে দেয়।

বিনিয়োগকারীদের মতে, যেসব কোম্পানির বোনাস শেয়ার দেওয়ার প্রবণতা বেশি, সেসব কোম্পানির অধিকাংশের আর্থিক অবস্থা ধীরে ধীরে দুর্বল হতে থাকে। তাই বিনিয়োগকারীদের এ বিষয়ে সতর্ক থাকা উচিত। তাদের মতে, বোনাস শেয়ার সবচেয়ে বেশি ক্ষতিকর যখন সার্বিক পুঁজিবাজার পরিস্থিতি খুব নাজুক থাকে। দেশের পুঁজিবাজারে এখন সে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। গত এক বছরেরও বেশি সময় ধরে বাজার পরিস্থিতি খুবই বৈরী। এ সময়ের মধ্যে পুঁজিবাজারের সূচক কমার পাশাপাশি কমছে অধিকাংশ কোম্পানির শেয়ারদর। তাই দর হারিয়ে নাগালে থাকলেও তা কিনতে আগ্রহী হচ্ছেন না বিনিয়োগকারীরা। এর মূল কারণ শেয়ারের চাহিদা সৃষ্টি না হওয়া।

বাজার বিশ্লেষকদের মতে, যেসব কোম্পানি কেবল বোনাসের উপর নির্ভরশীল, বুঝতে হবে সেসব কোম্পানির আর্থিক ভিত্তি খুব দুর্বল। যে কারণে কোম্পানিগুলো বিশেষ উদ্দেশ্যে বোনাস শেয়ার ইস্যু করে থাকে। তবে যেসব কোম্পানি বোনাসশেয়ারের সঙ্গে নগদ লভ্যাংশের সমন্বয় ঘটায়, বুঝতে হবে সেসব কোম্পানির আর্থিকভাবে ভিত্তি মজবুত। সেজন্য বিনিয়োগের সময়ে কোম্পানিগুলোর সার্বিক অবস্থা বিবেচনায় নিতে হবে।

বিজনেস আওয়ার/এসএম

উপরে