ঢাকা, শনিবার, ১৭ আগস্ট ২০১৯, ২ ভাদ্র ১৪২৬


স্বল্প মূলধনী কোম্পানির শেয়ার দরে বিপরীত চিত্র

২০১৯ ফেব্রুয়ারি ০৯ ১৪:৩৪:০৯

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক: বিদায়ী সপ্তাহে প্রধান পুঁজিবাজার ঢা্কা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) দর বৃদ্ধির শীর্ষ তালিকায় স্বল্প মূলধনী তিন কোম্পানি স্থান করে নিয়েছে। অন্যদিকে, দর পতনের শীর্ষ তালিকা্য়ও স্বল্প মূলধনী এক কোম্পানি উঠে এসেছে। দর বৃদ্ধির তিন কোম্পানি হলো-লিবরা ইনফিউশন, মুন্নু জুট স্ট্যাফলার্স এবং রেকিট বেনকিজার। আর দর পতনের কোম্পানিটি হলো-বিডি অটোকারস। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, পরিশোধিত মূলধন ৫ কোটি টাকা বা শেয়ার সংখ্যা ৫০ লাখের কম রয়েছে এমন স্বল্প মূলধনী ১৫টি কোম্পানির মধ্যে বিদায়ী সপ্তাহে ১৪টি কোম্পানিরই শেয়ার দর বেড়েছে। এ সময়ে লিবরা ইনফিউশন ১৮.৬১ শতাংশ, মুন্নু স্ট্যাফলার্স ১৭.৯৪ শতাংশ এবং রেকিট বেনকিজার ১১.২৬ শতাংশ শেয়ার দর বৃদ্ধি নিয়ে সাপ্তাহিক দর বৃ্দ্ধির শীর্ষ তালিকায় স্থান করে নেয়।

এছাড়া, সোনালী আঁশের ৯.২৪ শতাংশ, কেএন্ডকিউ’র ৯.০৯ শতাংশ, ইস্টার্ন লুব্রিকেন্টের ৮.৬৬ শতাংশ, জেমিনি সী ফুডের ৬.৫২ শতাংশ, এ্যাম্বি ফার্মার ৪.৭৩ শতাংশ, ফার্মা এইডের ২.৬৩ শতাংশ এবং শ্যামপুর সুগারের ২.৫৪ শতাংশ শেয়ার দর বাড়তে দেখা যায়।

অন্যদিকে, স্বল্প মূলধনী কোম্পানি বিডি অটোকারসের শেয়ার দর কমেছে ১৩.৭৩ শতাংশ। বিদায়ী সপ্তাহে কোম্পানিটি শীর্ষ দরপতনের তৃতীয় কোম্পানি হিসাবে উঠে আসে। সপ্তাহজুড়ে কোম্পানিটির সর্বমোট ১২ কোটি ৯২ লাখ ৮১ হাজার টাকা লেনদেন হয়। তবে এ সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার দরে পতন হলেও এর লেনদেন বাড়তে দেখা যায়। উল্লেখ্য, আগের সপ্তাহেও বিডি অটোকারসের শেয়ার দর পতনে ছিল। ঐ সপ্তাহে কোম্পানিটির শেয়ার দর কমেছে ৫.৭৬ শতাংশ। দুই সপ্তাহে কোম্পানিটির শেয়ার দর ৩৭৮ টাকা থেকে ৩১০.৪০ টাকায় নেমে এসেছে।

উল্লেখ্য, স্বল্প মূলধনী ১৫ কোম্পানির মধ্যে ইস্টার্ন লুব্রিকেন্টের শেয়ার রয়েছে ৯ লাখ ৯৪ হাজার, সাভার রিফেক্টরিজের ১৩ লাখ ৯৩ হাজার, লিবরা ইনফিউশনের ১৫ লাখ ২ হাজার, জুট স্পিনার্সের ১৭ লাখ, রেনউইক যজেনশ্বরের ২০ লাখ, মুন্নু স্ট্যাফলার্সের ২০ লাখ ৭০ হাজার, নর্দার্ন জুটের ২১ লাখ ৪৩ হাজার, এ্যাম্বি ফার্মার ২৪ লাখ, সোনালী আঁশের ২৭ লাখ ১২ হাজার, ফার্মা এইডের ৩১ লাখ ২০ হাজার, জেমিনি সী ফুডের ৪২ লাখ ৬৯ হাজার, বিডি অটোকারসের ৪৩ লাখ ২৬ হাজার, রেকিট বিনকিজারের ৪৭ লাখ ২৫ হাজার, কে এন্ড কিউর ৪৯ লাখ ৩ হাজার এবং শ্যামপুর সুগারের ৫০ লাখ।

কোম্পানিগুলোর মধ্যে বিদায়ী হিসাব বছরে ১১টি কোম্পানি বিনিয়োগকারীদের লভ্যাংশ দিয়েছে। এরমধ্যে রেকিট বিনকিজার লভ্যাংশ দিয়েছে ৭৯০ শতাংশ ক্যাশ, মুন্নু স্ট্যাফলার্স ৩৫০ শতাংশ বোনাস, ইস্টার্ন লুব্রিকেন্ট ১০০ শতাংশ ক্যাশ, ফার্মা এইড ৫০ শতাংশ ক্যাশ, এ্যাম্বি ফার্মা ৩০ শতাংশ ক্যাশ, লিবরা ইনফিউশন ২০ শতাংশ বোনাস, বিডি অটোকার্স ১৫ শতাংশ (৩ শতাংশ ক্যাশ ও ১২ শতাংশ বোনাস), জেমিনি সী ফুড ১৫ শতাংশ বোনাস, রেনউইক যজেনশ্বর ১২ শতাংশ ক্যাশ এবং কে এন্ড কিউ ৫ শতাংশ ক্যাশ। আর ৪টি কোম্পানি-সাভার রিফেক্টরিজ, জুট স্পিনার্স, নর্দার্ন জুট ও শ্যামপুর সুগার কোন লভ্যাংশ দেয়নি।

কোম্পানিগুলোর মধ্যে চলতি হিসাব বছরের প্রথম ৬ মাসে মুন্নু স্ট্যাফলার্স, নর্দার্ন জুট, এ্যাম্বি ফার্মা, ফার্মা এইড, বিডি অটোকারস এবং কেএন্ডকিউ’র মুনাফা বেড়েছে। অন্যদিকে, ইস্টার্ন লুব্রিকেন্ট ও জেমিনি সী ফুডের মুনাফা কমেছে। আর লিবরা ইনফিউশন, সাভার রিফেক্টরিজ, জুট স্পিনার্স, রেনউইক যজেনশ্বর ও শ্যামপুর সুগার লোকসানে রয়েছে।

বিজনেস আওয়ার/এসএম

উপরে