ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬


গৃহঋণ মিলবে আমমোক্তারনামা ছাড়াই

২০১৯ মার্চ ২৫ ২২:০৩:২৪

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : সরকারি কর্মচারীদের জন্য ৫ শতাংশ সুদে গৃহঋণের আওতায় আনাসহ কয়েকটি শর্ত শিথিল করে পুনরায় প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার। সম্প্রতি এমন প্রজ্ঞাপন জারি হলেও এক্ষেত্রে আরও ছাড় দেয়া হচ্ছে।

অন্যান্য ক্ষেত্রে ব্যাংক থেকে ঋণ নেয়ার জন্য আমমোক্তারনামার প্রয়োজন হলেও সরকারি কর্মচারীদের জন্য গৃহঋণের ক্ষেত্রে এটি লাগবে না। অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, কোনো ব্যক্তি যৌক্তিক কারণে অন্যকে আইনগতভাবে যে ক্ষমতা অর্পণ করেন তাকে ‘পাওয়ার অব অ্যাটর্নি’ বা ‘আমমোক্তারনামা’ বলে। এ-সংক্রান্ত দলিলই আমমোক্তারনামা। সাধারণত সম্পত্তির ভোগদখল, রক্ষণাবেক্ষণ, কেনা-বেচার জন্য কাউকে এ ক্ষমতা অর্থাৎ আমমোক্তারনামা দেয়া হয়। গৃহঋণ নেয়ার ক্ষেত্রে আমমোক্তারনামা দিতে হলে ঋণগ্রহিতা কখনও যদি খেলাপিতে পরিণত হন, তাহলে ওই ঋণের বিপরীতে মডগেজ তথা যে গৃহটি বানানোর জন্য ঋণ নেয়া হয়েছিল আইনগতভাবে ওই গৃহের মালিকানা ঋণপ্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের হয়ে যাবে।

এ বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বলেন, সম্প্রতি সরকারি কর্মচারীদের জন্য ৫ শতাংশ সুদে গৃহঋণ দেয়ার জন্য মনোনীত প্রতিষ্ঠান ও ঋণগ্রহিতাদের মধ্যে আমমোক্তারনামা জমা দেয়া নিয়ে একটু সমস্যার সৃষ্টি হয়েছিল। এক্ষেত্রে ঋণগৃহিতাদের দাবি হলো, অন্য কোনো জায়গা থেকে গৃহ তৈরির জন্য ঋণ নিলে শুধুমাত্র ওই গৃহ মডগেজ হিসেবে রাখতে হয়। কিন্তু আমাদের ক্ষেত্রে মডগেজ হিসেবে রাখা হচ্ছে চাকরি, বেতন, পেনশন, গ্রাচুইটি। তাহলে আমরা আমমোক্তারনামা দেব কেন?

তিনি বলেন, এ নিয়ে অর্থ মন্ত্রণালয় ৫ শতাংশ সুদে গৃহঋণ বাস্তবায়নকারী ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে বৈঠক করে বিষয়টি সুরাহা করেছে। এ ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানগুলো আমমোক্তারনামা ছাড়াই গৃহঋণ দিতে সম্মত হয়েছে। একটি ঋণের ক্ষেত্রে আমমোক্তারনামা প্রস্তুত করতে ১০-১২ হাজার টাকা খরচ হতো, সেটা আর হবে না।

দশম থেকে ১৩তম গ্রেড পর্যন্ত যাদের মূল বেতন ১১ হাজার থেকে ১৬ হাজার টাকা তারা ঢাকাসহ সব সিটি কর্পোরেশন ও বিভাগীয় সদরের জন্য ৫৫ লাখ টাকা, জেলা সদরের জন্য ৪০ লাখ এবং অন্যান্য এলাকার জন্য ৩০ লাখ টাকা ঋণ পাবেন।
১৪তম থেকে ১৭তম গ্রেড বা নয় হাজার থেকে ১০ হাজার ২০০ টাকা বেতন স্কেলে ঢাকাসহ সব সিটি কর্পোরেশন ও বিভাগীয় সদরের জন্য ৪০ লাখ টাকা, জেলা সদরের জন্য ৩০ লাখ এবং অন্যান্য এলাকার জন্য ২৫ লাখ টাকা ঋণ পাবেন। ১৮তম থেকে ২০তম গ্রেড বা ৮ হাজার ২৫০ টাকা থেকে ৮ হাজার ৮০০ টাকা পর্যন্ত মূল বেতন পান এমন কর্মচারীরা ঢাকাসহ সিটি কর্পোরেশন ও বিভাগীয় সদরের জন্য গৃহনির্মাণ ঋণ পাবেন ৩০ লাখ টাকা। জেলা সদরে এটি হবে ২৫ লাখ এবং অন্যান্য এলাকার জন্য পাবেন ২০ লাখ টাকা।

বিজনেস আওয়ার/২৫ মার্চ, ২০১৯/আরএইচ

উপরে