ঢাকা, সোমবার, ২০ মে ২০১৯, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

মূলধন বেড়েছে ২১২৬ কোটি টাকা, মুনাফা ৩৯৯ কোটি

ব্যাংকের মুনাফা ৬ হাজার ৮০০ কোটি টাকা, শীর্ষে ইসলামী ব্যাংক

২০১৯ মে ০৬ ১০:৩৫:৪১

রেজোয়ান আহমেদ : আগের বছরের তুলনায় ২০১৮ সালে তালিকাভুক্ত ব্যাংকগুলোর ২ হাজার ১২৫ কোটি ৭৯ লাখ টাকার পরিশোধিত মূলধন বেড়েছে। এর বিপরীতে ব্যাংকগুলোর নিট মুনাফা বেড়েছে ৩৯৮ কোটি ৬০ লাখ টাকা। যাতে ব্যাংকগুলোর ২০১৮ সালে ৬ হাজার ৮০০ কোটি টাকা নিট মুনাফা হয়েছে। এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি মুনাফা হয়েছে ইসলামী ব্যাংকের।

ব্যাংকগুলোর ২০১৮ সালের সমন্বিত (সাবসিডিয়ারিসহ) আর্থিক হিসাব থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

তালিকাভুক্ত ৩০ ব্যাংকের ২০১৭ সালের শুরুতে মোট ২৫ হাজার ৭৩৪ কোটি ৩৬ লাখ টাকার পরিশোধিত মূলধন ছিল। যা এখন বেড়ে হয়েছে ২৭ হাজার ৮৬০ কোটি ১৫ লাখ টাকা। আর ওই বছরের ৬ হাজার ৪০১ কোটি ৪০ লাখ টাকার নিট মুনাফা বেড়ে ২০১৮ সালে হয়েছে ৬ হাজার ৮০০ কোটি টাকা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান বিজনেস আওয়ারকে বলেন, ব্যাংকগুলো ২০১৮ সালে অতিমূল্যায়িত মুনাফা দেখিয়েছে। প্রকৃতপক্ষে প্রদত্ত ঋণের বিপরীতে সঠিকভাবে সঞ্চিতি গঠন করা হলে, ব্যাংকগুলো লোকসানে পতিত হবে। আর এই দুরাবস্থা আড়াল করতেই কৃত্রিম মুনাফা দেখিয়েছে। আর দুঃখজনক হলেও সত্য যে, ব্যাংকগুলো অতিরঞ্জিত মুনাফা দেখালেও বাংলাদেশ ব্যাংক এক্ষেত্রে কোন ভূমিকা রাখে না।

দেখা গেছে, তালিকাভুক্ত ব্যাংকগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৬৩১ কোটি ১২ লাখ টাকা মুনাফা করে শীর্ষে উঠে এসেছে ইসলামী ব্যাংক। এরপরে ৫৫৪ কোটি ৪৮ লাখ টাকা নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে নেমেছে ব্র্যাক ব্যাংক। তৃতীয় সর্বোচ্চ ৪২০ কোটি ২০ লাখ টাকা মুনাফা হয়েছে ডাচ-বাংলা ব্যাংকের।

আরো পড়ুন.....
শেয়ারবাজারে আসছে ব্যাংকের ৬২৫৫.৬০ কোটি টাকার বোনাস শেয়ার
তালিকাভুক্ত ১৭ ব্যাংকের মুনাফার শতভাগ রেখে দেওয়ার সিদ্ধান্ত
অধিকাংশ ব্যাংকের ইপিএসে পতন
ব্যাংকের গড় লভ্যাংশ বেড়েছে ১.৩৭ শতাংশ

২০১৮ সালে একমাত্র আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক লোকসান করে সবার তলানিতে রয়েছে। ব্যাংকটির ৪৮ কোটি ৫২ লাখ টাকা লোকসান হয়েছে। এরপরে সবচেয়ে কম মুনাফা হয়েছে এবি ব্যাংকের। এ সময় ব্যাংকটির ৪ কোটি ৫৫ লাখ টাকা মুনাফা হয়েছে। আর ৪১ কোটি ৪ লাখ টাকা নিয়ে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন রূপালি ব্যাংকের ও ১২৪ কোটি ৭৪ লাখ টাকা নিয়ে তৃতীয় সর্বনিম্ন মুনাফা হয়েছে শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের।

নিম্নে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংকগুলোর নিট মুনাফা ও পরিশোধিত মূলধনের পরিমাণ তুলে ধরা হল। ব্রাকেটে () থাকা হিসাবকে ঋণাত্মক বোঝানো হয়েছে।

ব্যাংকের নাম

মুনাফা-২০১৮ (টাকা)

মুনাফা-২০১৭ (টাকা)

পরিশোধিত মূলধন (টাকা)

ইসলামী ব্যাংক

৬৩১.১২ কোটি

৪৯২.৬৬ কোটি

১৬১০ কোটি

ব্র্যাক ব্যাংক

৫৫৪.৪৮ কোটি

৫১৯.২৮কোটি

১০৭২.৫০ কোটি

ডাচ-বাংলা ব্যাংক

৪২০.২০ কোটি

২৪৫.৫৩কোটি

২০০কোটি

ন্যাশনাল ব্যাংক

৩৮৪.৯৬ কোটি

৪৭৯.৮৩ কোটি

২৬৫৪.৯১ কোটি

পূবালি ব্যাংক

৩৬২.৪০ কোটি

৫.৭২কোটি

৯৯৮.৩৪ কোটি

ইস্টার্ন ব্যাংক

৩১১.৪৪ কোটি

২৪২.৮৩ কোটি

৭৩৮ কোটি

মার্কেন্টাইল ব্যাংক

২৯২.৫৬ কোটি

৩০১.৯৯কোটি

৮১৪.৯২ কোটি

ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক

২৬৫.৬৪ কোটি

২৭২.২৩কোটি

১০৫৪.১৩ কোটি

সাউথইস্ট ব্যাংক

২৪৭.৮১ কোটি

১১৬.৮৬ কোটি

১০৫৪.৪৯ কোটি

আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক

২৪৫.৩৫ কোটি

৩১৩.৪৭ কোটি

১০৪৪.০২ কোটি

এক্সিম ব্যাংক

২৩৩.০২ কোটি

৩২৯.৮৪ কোটি

১৪১২.২৫ কোটি

যমুনা ব্যাংক

২৩০.০১ কোটি

২০৭.৬৬ কোটি

৭৪৯.২৩ কোটি

প্রিমিয়ার ব্যাংক

২২৭.২২ কোটি

১৯৬.৯৩ কোটি

৮০০.০৮কোটি

প্রাইম ব্যাংক

২২৫.৩২ কোটি

১২১.৫৫ কোটি

১১৩২.২৮কোটি

ব্যাংক এশিয়া

২২৩.১৯ কোটি

২১১.২১ কোটি

১১১০.৩৯ কোটি

দি সিটি ব্যাংক

২২২.৬৪ কোটি

৩৪৫.৮৭ কোটি

৯৬৭.৯৯ কোটি

ট্রাস্ট ব্যাংক

১৮৬.৫৮ কোটি

১৭৫.০৯ কোটি

৫৫৬.৯৭ কোটি

এনসিসি ব্যাংক

১৮২.৮৩ কোটি

১৮৪.৪৬ কোটি

৮৮৩.২২ কোটি

মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক

১৭৩.৭৩ কোটি

১৯৮.০৩ কোটি

৫৭৩.৩৬ কোটি

উত্তরা ব্যাংক

১৬৬.৮৩ কোটি

১৫৩.৩৯ কোটি

৪০০.০৮ কোটি

আইএফআইসি ব্যাংক

১৬৪.৬৬ কোটি

২৩৯.৬৭ কোটি

১৩৩৮.৭৪ কোটি

সোশ্যালইসলামীব্যাংক

১৫৯.৯৯ কোটি

১৪৬.৪৫ কোটি

৮১২.১৩ কোটি

ফার্স্ট সিকিউরিটি ব্যাংক

১৫৯.১৭ কোটি

১৩৫.০৩ কোটি

৭৮৪.১০কোটি

ওয়ান ব্যাংক

১৪১.০৪ কোটি

২৬২.৮১ কোটি

৭৬৬.৫৩ কোটি

ঢাকা ব্যাংক

১৪০.৫৮ কোটি

১৬০.৮৭ কোটি

৮১২.৫৮ কোটি

স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক

১২৫.৪২ কোটি

১২৩.৮৫ কোটি

৮৭০.৯৯ কোটি

শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক

১২৪.৭৪ কোটি

১৩৪.২৭ কোটি

৮৪৮.৫৭ কোটি

রূপালি ব্যাংক

৪১.০৪ কোটি

৬০.২৩কোটি

৩৭৬.৫২ কোটি

এবি ব্যাংক

৪.৫৫ কোটি

৪.০৬ কোটি

৭৫৮.১৩ কোটি

আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক

(৪৮.৫২)

(৪০.৫০) কোটি

৬৬৪.৭০ কোটি

মোট-৩০টি ব্যাংক

মোট- ৬৮০০ কোটি টাকা

মোট- ৬৪০১.৪০ কোটি টাকা

মোট-২৭৮৬০.১৫ কোটি টাকা

অধ্যাপক মিজানুর রহমান বলেন, ব্যাংকগুলোর অতিরঞ্জিত বা কৃত্রিম মুনাফার কারনেও সরকারকে কর দিতে হবে। এক্ষেত্রে প্রায় ৪০ শতাংশ হারে কর দিতে হয়। যাতে ভবিষ্যতে ব্যাংকগুলোর জন্য বর্তমানের অতিরঞ্জিত বা কৃত্রিম মুনাফা কাল হয়ে দাড়াবে। কিন্তু সঠিক তথ্য প্রকাশ করলে, ব্যাংকগুলোকে এই কর দিতে হতো না।

তালিকাভুক্ত ব্যাংকগুলোর মধ্যে ন্যাশনাল ব্যাংকের সবচেয়ে বেশি পরিশোধিত মূলধন রয়েছে। ব্যাংকটির ২ হাজার ৬৫৪ কোটি ৯১ লাখ টাকার পরিশোধিত মূলধন রয়েছে। তবে ব্যাংকটি মুনাফার হিসাবে রয়েছে চতুর্থ স্থানে। এরপরে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১ হাজার ৬১০ কোটি টাকার পরিশোধিত মূলধন নিয়ে ইসলামী ব্যাংক মুনাফায় প্রথম স্থানে রয়েছে। এ ছাড়া ১ হাজার ৪১২ কোটি ২৫ লাখ টাকার তৃতীয় সর্বোচ্চ পরিশোধিত মূলধন নিয়ে এক্সিম ব্যাংক মুনাফায় ১১তম অবস্থানে রয়েছে।

অপরদিকে সবচেয়ে কম ২০০ কোটি টাকার পরিশোধিত মূলধন নিয়ে ডাচ-বাংলা ব্যাংক মুনাফায় ৩য় স্থানে রয়েছে। এরপরে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন ৩৭৬ কোটি ৫২ লাখ টাকার পরিশোধিত মূলধন নিয়ে মুনাফায় ২য় সর্বনিম্ন অবস্থানে রয়েছে রূপালি ব্যাংক। এছাড়া তৃতীয় সর্বনিম্ন ৪০০ কোটি ৮ লাখ টাকার পরিশোধিত মূলধন নিয়ে মুনাফায় ২০তম অবস্থানে রয়েছে উত্তরা ব্যাংক।

বর্তমানে ১০টি ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন ১ হাজার কোটি টাকার উপরে রয়েছে। ব্যাংকগুলো হল- ন্যাশনাল ব্যাংক, ব্র্যাক ব্যাংক, ইসলামী ব্যাংক, এক্সিম ব্যাংক, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক, সাউথইস্ট ব্যাংক, আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক, ব্যাংক এশিয়া, আইএফআইসি ব্যাংক ও প্রাইম ব্যাংক।

বিজনেস আওয়ার/০৬ মে, ২০১৯/আরএ

উপরে