ঢাকা, সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৭ আশ্বিন ১৪২৬


ডায়াবেটিস মাপুন সঠিক পদ্ধতিতে

২০১৯ জুলাই ০৭ ১৬:০৯:৫৩

বিজনেস আওয়ার ডেস্কঃ ডায়াবেটিস কোনো রোগ নয়, অথচ একে বলা হয় সব রোগের মা। ডায়াবেটিসের জটিলতাগুলোই আসলে এই রোগের মূল সমস্যা। শরীরে এমন কোনো অঙ্গ নেই, যেখানে ডায়াবেটিস তার ক্ষতিকর প্রভাব বিস্তার করে না। উন্নত বিশ্বের বেশির ভাগ দেশে ডায়াবেটিসকে মৃত্যুর চতুর্থ প্রধান কারণ হিসেবে ধরা হয়ে থাকে। ডায়াবেটিক রোগী ছাড়াও যাঁদের নিকটাত্মীয়ের ডায়াবেটিস আছে, যাঁদের ওজন বেশি, ব্যায়াম বা শারীরিক পরিশ্রমের কাজ তেমন করেন না, তাঁরা নিম্নে উল্লিখিত রক্তের পরীক্ষাগুলোর মাধ্যমে ডায়াবেটিস সম্পর্কে জানতে পারেন।

খালি পেটে বা খাবারের আগে

এ পরীক্ষাটি সকালে নাশতার আগে খালি পেটে করতে হয়। এর স্বাভাবিক মাত্রা ৬.১ মিলিমল/লিটার বা তার কম।

খাবারের দুই ঘণ্টা পর

এ পরীক্ষাটি নাশতা খাওয়ার দুই ঘণ্টা পর করতে হয়। এর স্বাভাবিক মাত্রা ১০ মিলিমল/লিটার বা তার কম।

যেকোনো সময়

পরীক্ষাটি দিনের যেকোনো সময় করা যেতে পারে। এর স্বাভাবিক মাত্রা ৫.৫ থেকে ১১.১ মিলিমল/লিটার।

ওরাল গ্লুকোজ টলারেন্স টেস্ট (ওজিটিটি)

যাঁদের খালি পেটে ঋই ে৬.১-এর বেশি কিন্তু ৭.০ মিলিমল/লিটারের কম কিংবা দিনে যেকোনো সময় ৫.৫-এর বেশি; কিন্তু ১১.১ মিলিমল/লিটারের কম, তাঁদের এ পরীক্ষাটি করা খুবই জরুরি। কারণ এর মাধ্যমে কারো ডায়াবেটিস আছে কি নেই, সে ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া যাবে। এ জন্য রোগীকে প্রথমে খালি পেটে রক্ত দিতে হবে। এরপর ৭৫ গ্রাম গ্লুকোজ পানিতে মিশিয়ে খেতে হবে এবং ঠিক দুই ঘণ্টা পর রোগীকে আবার রক্ত দিতে হবে। এই দুই ঘণ্টা রোগী অন্য কোনো খাবার খেতে পারবে না। কোনো ধরনের শারীরিক পরিশ্রমের কাজও করতে পারবে না। ধূমপান করা যাবে না।

এ পরীক্ষায় যে রোগীর খালি পেটে ৭.০ মিলিমল/লিটারের চেয়ে বেশি এবং দুই ঘণ্টা পর ১১.১ মিলিমল/লিটারের চেয়ে বেশি হবে, তাঁকে নিশ্চিত ডায়াবেটিক রোগী হিসেবে চিহ্নিত করা যাবে।

গ্লাইকোলাইলেটেড হিমোগ্লোবিন

এ পরীক্ষার মাধ্যমে রক্তে গত চার মাসের গ্লুকোজের মাত্রার একটা ধারণা পাওয়া যাবে। এ পরীক্ষাটি খালি পেটে অথবা খাওয়ার পর যেকোনো অবস্থায় করা যায়। এর স্ব্বাভাবিক মাত্রা ৭ শতাংশের নিচে থাকা বাঞ্ছনীয়।

বিজনেস আওয়ার/০৭ জুলাই,২০১৯/আরআই

উপরে