ঢাকা, বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ৩০ আশ্বিন ১৪২৬


সী পার্লের প্রথম দিনে ২৬৪ শতাংশ দর বৃদ্ধি

২০১৯ জুলাই ১৬ ১৪:৫১:৩০

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত রয়েল টিউলিপ ফ্রাঞ্চাইজ সী পার্ল বীচ রিসোর্ট অ্যান্ড স্পা’র লেনদেনের প্রথম দিনে শেয়ার দর বেড়েছে ২৬৪ শতাংশ। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, ১০ টাকা মূল্যের শেয়ারটির দর প্রথম দিনের লেনদেন শেষে ৩৬.৪০ টাকায় দাড়িঁয়েছে। এ হিসেবে দর বেড়েছে ২৬.৪০ টাকা বা ২৬৪ শতাংশ।

এদিকে প্রথম দিনে সী পার্লের শেয়ারটি লেনদেন শুরু হয় ২৫.২০ টাকা দিয়ে। যা সর্বনিম্ন ২৫.১০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৩৮.৭০ টাকায় লেনদেন হয়েছে। আর সর্বশেষ ৩৬.৯০ টাকায় লেনদেন হয়েছে।

প্রথম দিন কোম্পানিটির ৫০ লাখ ১৩ হাজার ৯৯টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এসব শেয়ার হাত বদল হয়েছে ৯ হাজার ৮৯৬ বার। এর মাধ্যমে কোম্পানিটির ১৫ কোটি ৪১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

‘এন’ ক্যাটাগরিভুক্ত ডিএসইতে কোম্পানিটির ট্রেনিং কোড: "SEAPEARL" এবং কোম্পানি কোড হচ্ছে: ২৯০০৪।

জানা গেছে, আইপিও লটারিতে বরাদ্দ পাওয়ার পর কোম্পানিটির শেয়ার ২৬ জুন শেয়ারহোল্ডারদের বিও হিসাবে প্রেরণ করা হয়েছে। গত ২৩ মে লটারির মাধ্যমে কোম্পানিটির আইপিওতে আবেদনকারীদের মধ্যে শেয়ার বরাদ্দ দেয়া হয়।

এর আগে ২৩ এপ্রিল থেকে ৬ মে পর্যন্ত কোম্পানিটির আইপিওতে আবেদন গ্রহণ করা হয়। আর বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৬৭৬তম কমিশন সভায় কোম্পানিটির আইপিও অনুমোদন দেয়া হয়।

সী পার্ল শেয়ারবাজার থেকে ১৫ কোটি টাকা উত্তোলনের জন্য ১ কোটি ৫০ লাখ শেয়ার ইস্যু করেছে। এ জন্য প্রতিটি শেয়ারের মূল্য নেয়া হয় ১০ টাকা।

শেয়ারবাজার থেকে অর্থ উত্তোলনযোগ্য ১৫ কোটি টাকার মধ্যে ১০ কোটি ৬৮ লাখ ২৭ হাজার ৩০০ টাকা দিয়ে হোটেলের ১৫৭টি রুমের আসবাবপত্র ক্রয় ও ফিনিশিংয়ের কাজে ব্যবহার করা হবে। এছাড়া ২ কোটি ৬৬ লাখ ৬০ হাজার টাকা দিয়ে জমি ক্রয় ও ১ কোটি ৬৫ লাখ ১২ হাজার ৭০০ টাকা দিয়ে আইপিও ব্যয় নির্বাহ করা হবে।

সী পার্লের ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ৪ কোটি ৬১ লাখ টাকার নিট মুনাফা হয়েছে। যা শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হিসাবে হয়েছে ০.৬৭ টাকা। কোম্পানিটিতে ২০১৮ সালের ৩০ জুন নিট শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১০.৪৮ টাকা।

২০০৯ সালের ২৬ মে প্রাইভেট কোম্পানি হিসাবে গঠিত সী পার্লের বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু হয় ২০১৫ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর। এরপরে ২০১৭ সালের ১৪ নভেম্বর প্রাইভেট কোম্পানি থেকে পাবলিক কোম্পানিতে রূপান্তর হয়।

আইপিওতে কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে বানকো ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট ও প্রাইম ব্যাংক ইনভেস্টমেন্ট।

বিজনেস আওয়ার/১৬ জুলাই, ২০১৯/পিএস

উপরে