sristymultimedia.com

ঢাকা, শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯, ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬


ফেমিলিটেক্সের বাড়ছে মূলধন, কমছে মুনাফা

১০:৩০এএম, ১১ আগস্ট ২০১৯

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্তির পর থেকে প্রতিবছর বোনাস শেয়ার প্রদানের মাধ্যমে পরিশোধিত মূলধন বাড়াচ্ছে ফেমিলিটেক্স বিডি। তারপরেও কোম্পানিটির মুনাফা বাড়ার পরিবর্তে নিয়মিত কমছে। এই পতনের সঙ্গে সঙ্গে উদ্যোক্তা/পরিচালকেরাও তাদের শেয়ার বিক্রি করে বেরিয়ে গেছেন।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও কোম্পানিটির প্রসপেক্টাস থেকে এসব এ তথ্য জানা গেছে।

প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) পূর্ব কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন ছিল ১০৫ কোটি ৬ লাখ টাকা। আইপিওতে ৩৪ কোটি টাকা সংগ্রহ ও নিয়মিত বোনাস শেয়ার প্রদানের মাধ্যমে তা এখন বেড়ে দাড়িঁয়েছে ৩৫৪ কোটি ১৬ লাখ টাকায়। অপরদিকে তালিকাভুক্তির বছরের ৯২ কোটি ১৮ লাখ টাকার মুনাফা সর্বশেষ ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ২ কোটি ৪৩ লাখ টাকা লোকসানে নেমে এসেছে।

কোম্পানির ব্যবসায় পতনের সঙ্গে সঙ্গে উদ্যোক্তা/পরিচালকেরাও তাদের শেয়ার সাধারন বিনিয়োগকারীদের হাতে ধরিয়ে দিয়েছেন। যাতে আইপিও পূর্ব উদ্যোক্তা/পরিচালকদের ৫৯.৭৭ শতাংশ মালিকানা এখন নেমে এসেছে মাত্র ৪.০২ শতাংশে। এমন দৃশ্যে কোম্পানির উদ্যোক্তা/পরিচালকদের শেয়ার ব্যবসাকে তালিকাভুক্তির প্রধান কারন হিসেবে মনে করছেন বাজার সংশ্লিষ্টরা।

ফেমিলিটেক্স ২০১৩ সালে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। এরপরে কোম্পানিটির পর্ষদ ৫ বার শেয়ারহোল্ডারদের জন্য লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে এবং প্রতিবারই বোনাস শেয়ার ঘোষণা করেছে।

দেখা গেছে, প্রথমবার ২০১৩ সালের ব্যবসায় কোম্পানিটির পর্ষদ ১০০ শতাংশ বোনাস শেয়ার ঘোষণা করে। এরপরের বছর কমে আসে ১০ শতাংশে। যা পরবর্তী ৩ বছর ৫ শতাংশ করে বোনাস শেয়ার ঘোষণা করে।

তালিকাভুক্তির বছরে অর্থাৎ ২০১৩ সালে ফেমিলিটেক্সের মুনাফা হয়েছিল ৯২ কোটি ১৮ লাখ টাকা। যা ২০১৪ সালে কমে হয় ৯১ কোটি ২০ লাখ টাকা। এরপরের ১৮ মাসে (জানুয়ারি ১৫-জুন ১৬) মুনাফা কমে আসে ২৫ কোটি ২৩ লাখ টাকায়। এরপরে ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ১ কোটি ৪১ লাখ টাকা ও ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ২ কোটি ৪৩ লাখ টাকা লোকসান হয়েছে।

এদিকে নিয়মিত বোনাস শেয়ার প্রদানের কারনে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদ (এনএভিপিএস) তলানিতে। ২০১৩ সালের ২২ টাকার এনএভিপিএস এখন ১২ টাকা।

ফেমিলিটেক্সের নিয়মিত ব্যবসায় ধসে কোম্পানিটির প্রতি বিনিয়োগকারীদের আস্থাও তলানিতে নেমে এসেছে। যাতে শেয়ারটি এখন ইস্যু মূল্যের নিচে মাত্র ৩.৯০ টাকায় অবস্থান করছে।

উল্লেখ্য তৎকালীন কাজী সাইফুর রহমানের নেতৃত্বে বানকো ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্টের মাধ্যমে শেয়ারবাজারে আসে ফেমিলিটেক্স।

বিজনেস আওয়ার/১১ আগস্ট, ২০১৯/আরএ

উপরে