ঢাকা, শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৬ আশ্বিন ১৪২৬


মিন্নিকে নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে পুলিশ

২০১৯ আগস্ট ২৪ ১২:১০:০৭

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক (বরগুনা) : বরগুনার রিফাত হত্যা মামলার অভিযোগপত্র দেওয়ার ব্যাপারে তড়িঘড়ি মনোভাব থেকে সরে এসেছে পুলিশ। মামলার তদন্ত-সংশ্লিষ্টরা এখন গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে চান না। হাইকোর্ট এই মামলার বিষয়ে ব্যাখ্যা চাওয়ার পর পুলিশ এখন সতর্ক।

রিফাতকে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যার সময় স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি যেভাবে স্বামীকে রক্ষার চেষ্টা করেছিলেন, তা সিসিটিভিতে ধারণ করা ভিডিওতে দেখা গেছে।

কিন্তু হামলাকারীদের বাদ দিয়ে পুলিশ কেন মিন্নিকে ফাঁসানোর জন্য উঠেপড়ে লেগেছে, তা কারও কাছেই স্পষ্ট নয়। এখন মিন্নিকে মামলার প্রধান আসামি না হুকুমের আসামি করা হবে, তা নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে পড়েছেন তদন্তসংশ্লিষ্টরা।

সূত্রে জানা গেছে, উচ্চ আদালত থেকে এই মামলার অগ্রগতি সম্পর্কে জানতে চাওয়ার পর চার্জশিট তৈরির ক্ষেত্রে বুঝে–শুনে এগোচ্ছেন তদন্তসংশ্লিষ্টরা। মিন্নিকে কোন ধরনের আসামি করা হবে, সে ব্যাপারে আইনি মতামত নেওয়ারও প্রক্রিয়া চলছে।

এদিকে রিফাত হত্যা মামলায় নিহতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে কেন জামিন দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে তদন্ত কর্মকর্তাকে মামলার নথিপত্রসহ আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

জামিন প্রশ্নে রুল শুনানির জন্য ২৮ আগস্ট দিন ধার্য রেখেছেন আদালত। বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ গত মঙ্গলবার দুপুরে এই আদেশ দেন।

মিন্নি ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেওয়ার আগে বরগুনার পুলিশ সুপার (এসপি) মারুফ হোসেন গত ১৮ জুলাই সংবাদ সম্মেলন করে আয়শার সংশ্লিষ্টতার কথা জানান। সে বিষয়েও এসপির লিখিত বক্তব্য চেয়েছেন আদালত।

জেলা পুলিশের একটি সূত্র জানায়, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বরগুনা থানার পরিদর্শক হুমায়ন কবির ২৮ আগস্ট উচ্চ আদালতে মামলার নথি উপস্থাপনের জন্য বর্তমানে ঢাকায় অবস্থান করছেন। তাঁর সঙ্গে আছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. শাহজাহানও।

এর আগে পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির অভিযোগপত্র তৈরির ব্যাপারে উচ্চপর্যায়ের মতামত নিতে ঢাকায় ছিলেন। তাঁরা বরগুনায় ফিরে যখন অভিযোগপত্র প্রস্তুতের উদ্যোগ শুরু করেন, তখনই উচ্চ আদালত রুল দেন।

মিন্নি হয়ে আইনি সহায়তা দেওয়া জ্যেষ্ঠ আইনজীবী জেড আই খান পান্না বলেন, রিফাত হত্যাকাণ্ডের পর থেকেই বিভিন্ন চাপে মিন্নি ও তাঁর পরিবার প্রতিকূল অবস্থার মধ্যে ছিল। স্থানীয় আদালতে আয়শার পক্ষে কোনো আইনজীবীও ছিলেন না।

এই অবস্থায় ঢাকা ও বরিশাল থেকে আইনজীবী পাঠিয়ে মিন্নিকে আইনি সহায়তা দেওয়া হয়েছে। রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ডের একমাত্র প্রত্যক্ষদর্শী ও মামলার প্রধান সাক্ষীকে আসামি করা হলে মামলার মান নষ্ট হয়ে যাবে।

মিন্নির পক্ষে লড়াই করা এই আইনজীবী বলেন, মামলায় মিন্নিকে আসামি করার জন্য পুলিশ তড়িঘড়ি করে আদালতে অভিযোগপত্র দেওয়ার ব্যাপারে প্রস্তুতি নিলেও সম্প্রতি উচ্চ আদালত বিষয়টি নিয়ে তদন্তসংশ্লিষ্টদের কাছে ব্যাখ্যা তলব করায় পুলিশ এখন অনেকটা সংযত।

এ প্রসঙ্গে বরগুনার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন বলেন, মামলার তদন্তে যেভাবে আসবে সেভাবেই তাঁর (মিন্নি) নাম অভিযোগপত্রে অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

উল্লেখ্য, গত ২৬ জুন সকালে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে কুপিয়ে গুরুতর আহত করেন রিফাত শরীফকে। পরে তিনি বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

এ ঘটনায় রিফাতের বাবা আবদুল হালিম শরীফ বাদী হয়ে ১২ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করেন। তাতে প্রধান সাক্ষী করা হয় রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়শাকে।

কিন্তু মিন্নির শ্বশুর মামলা দায়েরের ১৮ দিন পর গত ১৩ জুলাই এই হত্যাকাণ্ডে আয়শা জড়িত—এমন দাবি করে সংবাদ সম্মেলন করার পর মামলার তদন্ত নাটকীয় মোড় নেয়। সংবাদ সম্মেলনের পরদিন আয়শার গ্রেপ্তারের দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেন তাঁরা।

সমাবেশে রিফাত শরীফের বাবা আবদুল হালিম শরীফ ছাড়াও বরগুনা জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক ও স্থানীয় সাংসদের ছেলে সুনাম দেবনাথ বক্তৃতা দেন। ১৬ জুলাই আয়শাকে জিজ্ঞাসাবাদের নামে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গ্রেপ্তার করা হয়।

এই মামলার এজাহারভুক্ত প্রধান আসামি সাব্বির আহম্মেদ ওরফে নয়ন বন্ড ২ জুলাই পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন। মামলার দুই নম্বর আসামি রিফাত ফরাজীকে পুলিশ ৩ জুলাই গ্রেপ্তার দেখায়।

এই মামলায় এ পর্যন্ত ১৫ জন গ্রেপ্তার হয়েছেন। এর মধ্যে এজাহারভুক্ত ৮ জন এবং সন্দেহভাজন ৭ জন। তাঁরা সবাই আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

বিজনেস আওয়ার/২৪ মাগস্ট, ২০১৯/এ

উপরে