ঢাকা, রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ৫ কার্তিক ১৪২৬


ছাত্রলীগে পদ হারিয়েছেন যারা

২০১৯ সেপ্টেম্বর ১৬ ০৮:২১:১৭

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। সুদীর্ঘ এই সময়ে সংগঠনটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে আসীন হয়েছেন ৫৮ জন নেতা।

তাদের মধ্যে অপসারিত বা বহিষ্কার হয়েছেন ৬ জন। যার সর্বশেষ দৃষ্টান্ত সদ্য সাবেক সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী।

স্বেচ্ছাচারিতা, অদক্ষতা, দুপুর পর্যন্ত ঘুমানো, নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন না করা, কেন্দ্রীয় নেতাদের উপেক্ষা, ফোন রিসিভ না করার মতো অসংখ্য অভিযোগ ছিলো এই দুই নেতার বিরুদ্ধে। এরপর যোগ হয় জাবির উন্নয়ন প্রকল্প থেকে চাঁদা দাবির অভিযোগ।

ছাত্রলীগ থেকে সর্বপ্রথম বহিষ্কৃত হন ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ তৎকালীন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক বর্তমান বিএনপি নেতা শাহজাহান সিরাজ। ১৯৭০-৭২ সালের মেয়াদের সেই কমিটিতে সভাপতি ছিলেন নূরে আলম সিদ্দিকী।

মুক্তিযুদ্ধের পর সংগঠনের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে তিনি বহিষ্কৃত হন। তার জায়গায় সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়া হয় ইসমত কাদির গামাকে।

অবশ্য এর আগে, ১৯৬৮-৬৯ মেয়াদের ১০ম ছাত্রলীগের কমিটি থেকে বাদ পড়েন তৎকালীন সভাপতি আব্দুর রউফ। ছাত্রলীগেও ওই কমিটিতে থাকা অধিকাংশ নেতা তার প্রতি অনাস্থা জানালে তিনি পদত্যাগ করেন।

১৯৭৩-৭৪ সালের ছাত্রলীগের চতুর্দশ কমিটি থেকে বহিষ্কৃত হন তৎকালীন ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক শফিউল আলম প্রধান। ছাত্রলীগের সেই কমিটির সভাপতি ছিলেন মনিরুল ইসলাম চৌধুরী।

১৯৭৪ সালে ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীন কোন্দলের কারণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মহসীন হলে সাত ছাত্র নিহত হলে শফিউল ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কৃত হন।

শফিউল আলম প্রধানের স্থলাভিষিক্ত হন মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন। পরবর্তীতে এক সম্মেলন বাদে মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন ছাত্রলীগের ১৬তম সম্মেলনে ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন।

১৯৮৮ সালে ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন হাবিবুর রহমান হাবিব। ১৯৯০- এর সর্বদলীয় ছাত্রঐক্যের অন্যতম নেতা হিসেবে তিনি পরিচিতি পান। এরশাদবিরোধী আন্দোলনে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

তবে সংগঠনবিরোধী কাজের অভিযোগ থাকায় ১৯৯১ সালে তাকে বহিষ্কার করা হয়। তার স্থলাভিষিক্ত হন শাহে আলম। ছাত্রলীগের ওই কমিটির সাধারণ সম্পাক ছিলেন অসীম কুমার উকিল।

বিজনেস আওয়ার/১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯/এ

উপরে