sristymultimedia.com

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯, ২৯ কার্তিক ১৪২৬


খায়রুল হোসেনের পদত্যাগের বিষয়টি পুরোটাই মিথ্যা

০৫:৫৭পিএম, ১৫ অক্টোবর ২০১৯

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান ড. এম খায়রুল হোসেন পদত্যাগ করছেন বলে একটি মহল গুজব ছড়িয়েছে। যার পুরোটাই বানোয়াট এবং মিথ্যা। বাজারকে অস্থিতিশীল করার জন্য মহলটি এমন গুজব ছড়িয়েছে বলে মনে করছে কমিশন।

কমিশন সূত্রে জানা গেছে, খায়রুল হোসেন পদত্যাগ করছেন বলে গুজব ছড়ানো হয়েছে। যার কোন ভিত্তি নাই। বিষয়টি পুরোটাই মিথ্যা। এক্ষেত্রে কোন একটি মহল নিজেদের স্বার্থে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে বিএসইসি চেয়ারম্যানের পদত্যাগের গুজব ছড়িয়েছে।

অন্যদিকে বিএসইসি বর্তমান চেয়ারম্যানকে সড়িয়ে দিয়ে কাউকে নিয়োগ দেওয়ার সম্ভাবনা নেই বলে কমিশন সূত্রে জানা গেছে। এছাড়া এ সংশ্লিষ্ট সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, শেয়ারবাজারে ২০১০ সালের ধসে বিএসইসি ঢেলে সাজানো হয়। এর আলোকে ২০১১ সালের ১৫ মে বিএসইসিতে চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ পান অধ্যাপক ড. এম খায়রুল হোসেন। ২০১০ সালে শেয়ারবাজারে ধসের কারন অনুসন্ধানে খন্দকার ইব্রাহিম খালেদের নেতৃত্বে গঠিত তদন্ত কমিটির বিএসইসিকে ঢেলে সাজানোর পরামর্শের আলোকে এই নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল। প্রথমবার ৩ বছরের জন্য খায়রুল হোসেনকে নিয়োগ দেওয়া হয়। যা শেষ হওয়ার আগেই পূণ:নিয়োগ পান তিনি। তবে এক্ষেত্রে তিনি ৪ বছরের জন্য পূণ:নিয়োগ পান। কারণ এরইমধ্যে কমিশনের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের মেয়াদ ৩ বছর থেকে বৃদ্ধি করে ৪ বছর করা হয়। এরপরে ২ বছরের জন্য আরেক দফায় পূণ:নিয়োগ পান খায়রুল হোসেন। তার ৩ দফায় নিয়োগের ৯ বছর পূর্ণ হবে আগামি ১৪ মে। এ হিসাবে কমিশনে তার মেয়াদ আছে ৭ মাস।

বিজনেস আওয়ার/১৫ অক্টোবর, ২০১৯/আরএ

উপরে