sristymultimedia.com

ঢাকা, রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬


ন্যাশনাল টি’র মুনাফার ৮৯ শতাংশ রিজার্ভে রাখার সিদ্ধান্ত

১১:০১এএম, ২১ অক্টোবর ২০১৯

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ন্যাশনাল টি’র ২০১৮-১৯ অর্থবছরের ব্যবসায় অর্জিত মুনাফার মাত্র ১১ শতাংশ শেয়ারহোল্ডারদের মাঝে লভ্যাংশ আকারে বিতরন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ। বাকি ৮৯ শতাংশ কোম্পানির রিজার্ভে রাখা হবে।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

ন্যাশনাল টি’র ২০১৮-১৯ অর্থবছরে শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ২০.২৪ টাকা। আর এই মুনাফার বিপরীতে কোম্পানিটির পর্ষদ ২২ শতাংশ হারে প্রতিটি শেয়ারে ২.২০ টাকা লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। যা মুনাফার মাত্র ১১ শতাংশ। আর বাকি ৮৯ শতাংশ কোম্পানির রিজার্ভে যোগ হবে।

কোম্পানিটির ২০১৮-১৯ অর্থবছরে শেয়ারপ্রতি ২০.২৪ টাকা হিসেবে মোট ১৩ কোটি ৩৬ লাখ টাকা মুনাফা হয়েছে। এরমধ্য থেকে ২২ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ আকারে শেয়ারপ্রতি ২.২০ টাকা হিসাবে শেয়ারহোল্ডারদের মাঝে ১ কোটি ৪৫ লাখ টাকা বিতরন করা হবে। অর্থাৎ লভ্যাংশ প্রদান অনুপাত হবে ১১ শতাংশ। মুনাফার বাকি ১১ কোটি ৯১ লাখ টাকা বা ৮৯ শতাংশ রিজার্ভে যোগ হবে।

এদিকে ন্যাশনাল টি’র শেষ প্রান্তিকের (এপ্রিল-জুন ১৯) ব্যবসায় ব্যাপক উত্থান হয়েছে। ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রথম ৯ মাসে বা ৩টি প্রান্তিকে (জুলাই ১৮- মার্চ ১৯) শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছিল ৯.৬৯ টাকা। আর বছরের শেষ প্রান্তিকে ইপিএস হয়েছে ১০.৫৫ টাকা। যাতে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে মোট ইপিএস হয়েছে ২০.২৪ টাকা। এক্ষেত্রে শেষ প্রান্তিকের অবদান ৫২ শতাংশ। আর বাকি ৪৮ শতাংশ এসেছে আগের ৩টি প্রান্তিকের একত্রে।

কোম্পানিটির ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর ১৮) ইপিএস হয় ১৯.৮০ টাকা। যা দ্বিতীয় প্রান্তিকে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৮) ৭.৭৫ টাকা মুনাফা হয়েছিল। তবে তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি-মার্চ ১৯) শেয়ারপ্রতি ১৭.৮৬ টাকা লোকসান হয়। যাতে ৯ মাসে ইপিএস হয়েছিল ৯.৬৯ টাকা।

৬ কোটি ৬০ লাখ টাকা পরিশোধিত মূলধনের ন্যাশনাল টিতে ৯৪ কোটি ৫৬ লাখ টাকার রিজার্ভ রয়েছে।

উল্লেখ্য রবিবার (২০ অক্টোবর) লেনদেনে শেষে ন্যাশনাল টি’র শেয়ার দর দাড়িঁয়েছে ৬২৯.২০ টাকায়।

বিজনেস আওয়ার/২১ অক্টোবর, ২০১৯/আরএ

উপরে