sristymultimedia.com

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ২৭ কার্তিক ১৪২৬


সাংসদ হারুন'র ৫ বছরের কারাদণ্ড

০২:৫৭পিএম, ২১ অক্টোবর ২০১৯

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : শুল্কমুক্ত গাড়ি এনে পরবর্তীতে তা বিক্রি করে শুল্ক ফাঁকির ঘটনায় দায়ের করা মামলায় বিএনপির সাংসদ হারুন উর রশিদসহ তিনজনকে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

একই সঙ্গে, তাকে ৫০ লাখ টাকা অর্থদণ্ড করা হয়েছে। অনাদায়ে আরও ছয় মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪ এর বিচারক শেখ নাজমুল আলম সোমবার (২১ অক্টোবর) এ রায় দেন।

এই তথ্য নিশ্চিত করে দুদকের আদালত পরিদর্শক আশিকুর রহমান বলেন, দুর্নীতির এই মামলায় বিএনপির সাংসদ হারুন উর রশিদকে পাঁচ বছর কারাদণ্ড এবং ৫০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

আর ব্যবসায়ী এনায়েতুর রহমানকে দুই বছর এবং ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। গাড়ি ব্যবসায়ী ইশতিয়াক সাদেককে তিন বছর কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে এবং জরিমানা করা হয়েছে ৪০ লাখ টাকা। হারুন উর রশিদ ছাড়া বাকিরা পলাতক রয়েছেন।

ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতের হাজতখানার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক মইনুল ইসলাম কে বলেন, রায় ঘোষণার পর দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হারুন উর রশিদকে আদালতের হাজতখানায় রাখা হয়।

এ সময় ব্যবসায়ী এনায়েতুর রহমানের আইনজীবী আমিনুল গণী টিটো বলেন, সাংসদ থাকা অবস্থায় শুল্কমুক্ত গাড়ি এনে তা বিক্রি করে টাকা আত্মসাতের মামলায় হারুন উর রশিদসহ তিনজনের বিরুদ্ধে এই মামলা হয় ২০০৭ সালে।

দণ্ডবিধির ৪০৯ এবং কাস্টমস অ্যাক্ট এর ১৫৬ ধারায় হারুন-উর-রশিদ, ব্যবসায়ী এনায়েতুর রহমান এবং গাড়ি ব্যবসায়ী সাদেককে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

মামলার কাগজপত্রের তথ্য অনুযায়ী, সাংসদ থাকা অবস্থায় শুল্ক মুক্ত গাড়ি এনে তা বিক্রির ঘটনায় বিএনপির সাংসদ হারুনসহ তিনজনের বিরুদ্ধে তেজগাঁও থানায় মামলা হয় ২০০৭ সালের ১৭ মার্চ। মামলার বাদী হলেন পুলিশের উপপরিদর্শক ইউনুস আলী।

মামলাটি তদন্ত করে সাংসদ হারুনসহ তিনজনের বিরুদ্ধে ওই বছরের ১৮ জুলাই আদালতে অভিযোগপত্র দেন দুদকের সহকারী পরিচালক মোনায়েম হোসেন। হারুনসহ তিনজনের বিরুদ্ধে ২০০৭ সালের ২০ আগস্ট বিচার শুরু করেন আদালত।

বিজনেস আওয়ার/২১ অক্টোবর, ২০১৯/এ

উপরে