sristymultimedia.com

ঢাকা, শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯, ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬


নিম্ন আয়ের মানুষের কাছে দুর্লভ বস্তু পেঁয়াজ

০৪:২৩পিএম, ০৩ নভেম্বর ২০১৯

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : সাম্প্রতিক সময়ে পেঁয়াজের দরে নাভিশ্বাস অবস্থা সাধারণ মানুষের। নানা অজুহাতে বেড়েই চলেছে পণ্যটির দাম। বর্তমানে কেজিপ্রতি দর প্রায় ১৫০ টাকা ছুঁই ছুঁই অবস্থা। ফলে দরিদ্র ও নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য পেঁয়াজ পরিণত হয়েছে দুর্লভ বস্তুতে।

এ অবস্থায় দরিদ্র ও নিম্ন আয়ের মানুষেরা মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে খুচরা বাজার থেকে। তাদের একমাত্র ভরসা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) ট্রাক সেল।

তবে সেখানেও ভোগান্তি কম না। দীর্ঘ লাইনে অপেক্ষার পর পাওয়া যাচ্ছে ৪৫ টাকায় এক কেজি পেঁয়াজ। হিমশিম খেতে হচ্ছে বিক্রেতাদেরও।

এর আগে ট্রাক সেলে জনপ্রতি দুই কেজি করে বিক্রি করা হলেও রোববার (৩ নভেম্বর) পেঁয়াজ কিনতে আসা মানুষের সংখ্যা বাড়ায় কমাতে হয়েছে জনপ্রতি বিক্রির পরিমাণ। রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাব ও সচিবালয়ের মধ্যবর্তী এলাকায় এমন চিত্রই দেখা গেছে।

প্রেসক্লাব এলাকায় কাজে এসেছিলেন মশিউর। তিনি দেখেন টিসিবির ট্রাক সেলে ৪৫ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি হেচ্ছে। দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে যান তিনি। প্রায় এক ঘণ্টা অপেক্ষার পর ৪৫ টাকা দিয়ে হাতে পান এক কেজি পেঁয়াজ।

মশিউর বলেন, বাজারে ১৫০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে। এখান থেকে দুই কেজি কেনার কথা থাকলেও ৪৫ টাকা দিয়ে এক কেজি কিনতে পেরেছি। তবে ভালোই লাগছে। কারণ কম দামে ভালো মানের পেঁয়াজ কিনতে পেরেছি।

এদিকে মানুষের ভিড় বাড়তে থাকায় বেশ হিমশিম খেতে হচ্ছে বিক্রেতাদেরও। অনেকেই ধাক্কা দিয়ে একজন অন্যজনের আগে কেনার চেষ্টা করছেন। তবে শৃঙ্খলা বজায় রেখেই বিক্রি করা হচ্ছে পেঁয়াজ।

টিসিবির বিক্রেতা সাঈদ হোসেন পাপ্পু বলেন, সকাল থেকে আমরা ৪৫ টাকা কেজি দরে জনপ্রতি দুই কেজি করে পেঁয়াজ বিক্রি করছিলাম। তবে মানুষের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় এখন আমরা এক কেজি করে দিচ্ছি। যাতে সবাই পেঁয়াজ কিনতে পারে।

এ বিষয়ে টিসিবির ডিলার রফিকুল ইসলাম বলেন, বাজারে পেঁয়াজের দাম বাড়ায় সরকারিভাবে ট্রাক সেলে বিক্রি চলছে অনেক আগে থেকেই। আমরা সরকারি ছুটির দিন ব্যতীত প্রতিদিনই পেঁয়াজ বিক্রি করছি।

তিনি আরও বলেন, প্রতিদিন প্রায় এক হাজার কেজি পেঁয়াজ আমরা বিক্রি করছি। তবে মানুষের সংখ্যা বেশি হলে সবাই যাতে পায় এজন্য এক কেজি করে দেওয়া হয়। বাজার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত আমাদের বিক্রি অব্যাহত থাকবে।

বিজনেস আওয়ার/০৩ নভেম্বর, ২০১৯/এ

উপরে