sristymultimedia.com

ঢাকা, শুক্রবার, ৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬


শাকিব খানের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি!

০৭:২৩পিএম, ০৪ নভেম্বর ২০১৯

বিনোদন ডেস্ক : ঢাকাই ছবির শীর্ষ নায়ক শাকিব খানের বিরুদ্ধে শিডিউল ফাঁসানোর অভিযোগ এনে মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন তারই এক ছবির প্রযোজক মনিরুজ্জামান। শাকিবের 'মাই ডার্লিং' সিনেমার প্রযোজক তিনি।

মনিরুজ্জামান বলেন, ২০১৪ সালে 'মাই ডার্লিং' ছবির নির্মাণ কাজ শুরু করি। ওই সময় ১৫ লাখ টাকা পারিশ্রমিকে চুক্তি করে সাইনিংয়ের পুরো টাকার (১৫ লাখ) চেক শাকিব খানকে দিয়। এরপর কিছুদিন শুটিং করেই শাকিব নানান টালবাহানা শুরু করেন।

এক চেক-এ শাকিবকে পুরো ১৫ লাখ টাকা দিয়েছি। কিছুদিন কাজ করেই তিনি শিডিউল ফাঁসান। এরপর আরো পাঁচ লাখ টাকা দাবি করেন। পরে সাদ্দামের মাধ্যমে আরও ২ লাখ টাকা দিলে শুটিংয়ে অংশ নেন শাকিব।

এরপর আবারো শুরু হয় শাকিবের টালবাহানা। পরে অমিত হাসান, হিমেলের মধ্যস্থতায় এফডিসির লাইটিং রুমে বসে আরো তিন লাখ টাকা দিয়ে রশিদ নিয়েছি। এরপরও শিডিউল দেয়নি শাকিব।

এটি ছিল অপু বিশ্বাস প্রেগনেন্ট হওয়ার আগের ঘটনা। ওই সময় তিনি অপু বিশ্বাসের সঙ্গে অন্য সিনেমায় কাজ করলেও আমাকে শিডিউল দেননি। শিডিউল চাইলে বলতেন, দিচ্ছি, দিব। কিন্তু এখনো দেয়নি।

একাধিকবার পরিচালক সমিতিতে অভিযোগ করা সত্ত্বেও কোনো ফল পাইনি। এখন পরিচালক সমিতি আমাকে চিঠি দিয়ে জানিয়েছেন, আপনি আইনত ব্যবস্থা নিতে পারেন। আমরা সহযোগিতা করবো।

শিল্পী সমিতিতে দুইবার গিয়েছিলাম। জায়েদ খান দেখি বলে কিন্তু পরে আর পাত্তা দেয়নি। প্রযোজক সমিতিতে অভিযোগ করেছি। এখন আবার নির্বাচিত প্রযোজক সমিতিতেও অভিযোগ করেছি। দেখি, তারা কী করেন।

মনিরুজ্জামান আরও বলেন, আমি শিডিউল চাই না, ক্ষতিপূরণ চাচ্ছি। এ সিনেমায় আমি প্রায় দুই কোটি টাকা খরচ করেছি। শাকিব এই সিনেমায় ২৮ দিন শুটিং করেও শেষ করতে পারেননি। অথচ ১৭ দিনে অন্য সিনেমার কাজ তিনি শেষ করেছেন।

শাকিব শুধু আমাকে নয় পুরো ইউনিটকে অনেক কষ্ট দিয়েছেন। বেলা চারটা-পাঁচটায় আমাদের শুটিং-এ শাকিব আসতেন। আবার আটটা বাজলেই চলে যেতেন। আমি প্রযোজক সমিতির উত্তরের অপেক্ষায় আছি। এরপর মামলায় যাবো। সেই প্রস্তুতি নিচ্ছি।

উল্লেখ্য, মনতাজুর রহমান আকবর পরিচালিত 'মাই ডার্লিং' ছবির শুটিং শুরু হয়েছিল ২০১৪ সালে। শাকিব-অপু জুটি ছাড়াও এই ছবিতে অভিনয় করেছেন অমিত হাসান, প্রবীর মিত্র, রেহানা জলি ও কাবিলা। এর কাহিনি, চিত্রনাট্য ও সংলাপ লিখেছেন পরিচালক নিজেই।

এদিকে কিং খানের শিডিউল ফাঁসানো ও শুটিং সেটে দেরি করে আসা নতুন কিছু নয়। এ নিয়ে চলচ্চিত্রের সংগঠনগুলোতে একাধিকবার অভিযোগও করেছেন অনেকেই।

বিজনেস আওয়ার/০৪ নভেম্বর, ২০১৯/এ

এই বিভাগের অন্যান্য খবর

উপরে