sristymultimedia.com

ঢাকা, শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬


কারামুক্তি আন্দোলনে খালেদার 'না'

০১:১১পিএম, ১৬ নভেম্বর ২০১৯

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : নিজের কারামুক্তি ইস্যুতে কোনও ধরনের আন্দোলনে সম্মতি নেই বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার। দলের সিনিয়র নেতাদের পাশাপাশি তৃণমূলের পক্ষ থেকে কর্মসূচির চাপ থাকলেও রাজপথের আন্দোলন-সংগ্রামের বিরুদ্ধে এখনও তার অবস্থান। তার এই মনোভাবে পরিবর্তন আসার কোনও সম্ভাবনা নেই।

পরিবারের সদস্যদের মাধ্যমে নিজের এই অবস্থানের কথা তিনি নিয়মিত পৌঁছেও দিচ্ছেন দলের নীতিনির্ধারকদের কাছে। দলের একাধিক সদস্য এ তথ্য জানিয়েছেন।

এদিকে, বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে আরও সতর্ক অবস্থানে থাকার চিন্তা-ভাবনা করছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্যরা। কমিটির প্রভাবশালী কয়েকজন সদস্য জানিয়েছেন, ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলোর নেতাদের গ্রেফতার ও দ্রব্যমূল্যের হঠাৎ ঊর্ধ্বগতির নেপথ্যে কী, তা নিশ্চিত হতে পারছে না বিএনপি।

হাইকমান্ডের ঘনিষ্ঠ একাধিক দায়িত্বশীল নেতা জানান, শুধু আন্দোলন করে খালেদা জিয়াকে বের করা যাবে, এমন কৌশলে বিশ্বাসী নয় দলের হাইকমান্ড। এক্ষেত্রে প্রধান নির্দেশনা হিসেবে কাজ করছে চেয়ারপার্সনের বক্তব্যই। ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি কারাগারে যাওয়ার আগে প্রকাশ্যে ও ঘরোয়া—উভয় ক্ষেত্রেই যেকোনও পরিস্থিতিতে নেতাকর্মীদের শান্ত থেকে ষড়যন্ত্র মোকাবিলার কথা বলেছেন খালেদা জিয়া।

এর আগে, ৩ ফেব্রুয়ারি ঢাকার লা মেরিডিয়ানে অনুষ্ঠিত দলের নির্বাহী কমিটির সভায় ও ৭ ফেব্রুয়ারি গুলশানে নিজের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে জোর দিয়েই প্রতিহিংসামূলক আচরণ থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন বিএনপি প্রধান।

দলটির হাইকমান্ডের ঘনিষ্ঠ এক নেতা বলেন, খালেদা জিয়া নিজের মুক্তির আন্দোলনের বিপক্ষে বলেছেন। এছাড়া পরবর্তী সময়ে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ও পরিবারের সদস্যরা যখনই তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন, সব সময়ই খালেদা জিয়া বিষয়টি মনে করিয়ে দিয়েছেন।

খালেদার কারামুক্তি ও আন্দোলন প্রসঙ্গে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, খালেদা জিয়া যেভাবে বলেছেন, আমরা সেভাবেই অনুসরণ করছি। আমরা যদি রাস্তায় নামি, তখন সরকারই সহিংসতা সৃষ্টি করবে।

দলের স্থায়ী কমিটির আরেক প্রভাবশালী সদস্য বলেন, রাস্তায় নামলে পুলিশ ধরবে, মামলা হবে, এখন এই ঝুঁকি কেন আমরা নিতে যাবো? এক্ষেত্রে আমরা নতুন কোনও কৌশলে যাবো কিনা, তা নির্ভর করছে খালেদা জিয়ার ওপর। তিনি কী চান, আমরা সেটা জেনেই বাস্তবায়ন করবো।

বিএনপি হাইকমান্ডের দায়িত্বশীলরা জানান, ইতোমধ্যে দলের প্রায় ২০ লাখ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা চলছে। নতুন করে নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা, গ্রেফতার করার পরিস্থিতি তৈরি করার বিরুদ্ধে হাইকমান্ড। তাই পরিস্থিতির গুণগত পরিবর্তন ছাড়া নতুন করে ঘরোয়া কর্মসূচিতেই সীমাবদ্ধ থাকবে মুক্তি দাবির প্রক্রিয়াও।

দলের হাইকমান্ড সাংগঠনিক প্রস্তুতি সম্পন্ন করেই কর্মসূচিতে সক্রিয় হওয়ার পক্ষে। এখন সারাদেশের কমিটিগুলো পুনর্গঠনের কাজ চলছে। এই কমিটিগুলো সরাসরি ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হচ্ছে।

দলের স্থায়ী কমিটির একজন সদস্য বলেন, প্রশাসন অনুমতি দিলে মিটিং হবে, না দিলে হবে না। এটি আপাতত এভাবেই চলবে। কারাগারে যাওয়ার আগে খালেদা জিয়া জামায়াতের কয়েকজন নেতাকেও এ বিষয়ে জোর দিয়ে বলেছেন, আপনারা সহিংস হবেন না। সহিংস আন্দোলনের কথা খালেদা জিয়া বলেননি, তারেক রহমানও বলেননি।

এ বিষয়ে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার বলেন, আমাদের দলের চেয়ারপার্সন বেগম সহিংস আন্দোলনের পক্ষে কোনও দিনই ছিলেন না। আজও নেই।

কিন্তু দলের হাইকমান্ডের নির্দেশনা থাকার পরও সিনিয়র ও মধ্যম সারির নেতারা কেন আন্দোলনের বিষয়ে কর্মীদের উত্তেজিত করেন, এমন প্রশ্নে বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্বের ঘনিষ্ঠ সূত্রটির ভাষ্য, কেন সমন্বিতভাবে বিষয়টি মোকাবিলা করা যাচ্ছে না, বিষয়টি সত্যি পরিষ্কার নয়।

বিজনেস আওয়ার/১৬ নভেম্বর, ২০১৯/এ

এই বিভাগের অন্যান্য খবর

উপরে