businesshour24.com

ঢাকা, রবিবার, ২৬ জানুয়ারি ২০২০, ১৩ মাঘ ১৪২৬


আরও ৫৭ 'বাংলাদেশি' কে পুশব্যাক করতে চলেছে ভারত

১১:০১এএম, ২৩ নভেম্বর ২০১৯


আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতে আটক হওয়া ৫৭ 'বাংলাদেশি'কে পশ্চিমবঙ্গ সীমান্ত দিয়ে পুশব্যাক করতে চলেছে দেশটির সরকার। আটকদের মধ্যে ২২ জন পুরুষ, ২৫ জন নারী এবং ১০ শিশু। সম্প্রতি বেঙ্গালুরুতে আটক আরও ৮২ জনকে বনগাঁ সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে ফেরত পাঠায় ভারত।

কলকাতার দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়েছে, ২৬ দিন বেঙ্গালুরুর একটি হোমে আটক ছিলেন এই ৫৭ জন। শুক্রবার অন্ধ্রপ্রদেশ থেকে তাদের ট্রেনে চাপানো হয়। পথে যাতে কেউ যেন না পারে সে জন্য বেঙ্গালুরু পুলিশের ৪০ জনের একটি দল সবাইকে পাহারা দিয়ে আনছে।

বেঙ্গালুরু পুলিশের দাবি, আটককৃতদের কাছে ভারতীয় নাগরিকত্বের কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তারা নিজেদের বাংলাদেশি বলে স্বীকার করেছেন। আটকদের ফোনের কল ঘেঁটে প্রমাণ পাওয়া গেছে যে তারা বাংলাদেশি। তাদের কাজের কথা বলে ভারতে নেয়া হয়েছিল। তাই তারা পাচার হয়ে এসেছে গণ্য করে তাদের বিরুদ্ধে কোনো মামলা রুজু করা হয়নি।

আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে আরও বলা হয়, বেঙ্গালুরু পুলিশ হাওড়ায় রেলপুলিশের হাতে আটককৃতদের তুলে দেবে। তারা সীমান্তরক্ষী বাহিনীর কাছে বাংলাদেশ সীমান্তে পৌঁছে দেবে। এরপর সীমান্তরক্ষী বাহিনী তাদের বাংলাদেশে ফেরত পাঠাবে। বনগাঁ সীমান্ত দিয়ে এই ৫৭ জনকে বাংলাদেশে পুশব্যাক করা হবে।

রাজ্য পুলিশ কর্তারা স্বীকার করেন, সাম্প্রতিক অতীতে এত বড় সংখ্যায় বাংলাদেশি নাগরিকদের এভাবে এ রাজ্য দিয়ে 'পুশ ব্যাক' করা হয়েছে বলে তাঁরা মনে করতে পারেন না।

এদিকে এ ঘটনার তীব্র সমালোচনা করে দেশটির মানবাধিকারকর্মী রঞ্জিত সুর বলেন, ভয়াবহ ঘটনা। কর্ণাটক সরকার দেশের আইন-সংবিধান সব লঙ্ঘন করেছে। কাউকে এভাবে পুশব্যাক করা যায় নাকি? কোনো মামলা নেই ওদের বিরুদ্ধে। পুলিশ কী করে নিশ্চিন্ত হল ওরা বাংলাদেশি? ওরা পশ্চিমবাংলার বাঙালিও হতে পারে।

তিনি বলেন, পুলিশকে বাংলাদেশি নির্ধারণের ক্ষমতা কে দিল? কোন আইনে? পুশব্যাকের অর্ডার কে দিল? কোর্টের আদেশ ছাড়া পুশব্যাক কখনওই করা যায় না। কর্ণাটক সরকার ফেরত পাঠাচ্ছে, তাতে সাহায্য করছে বাংলার সরকার। আমরা পশ্চিমবঙ্গ সরকারের কাছে দাবি করছি, এই পুশব্যাক বন্ধ করুক।

বিজনেস আওয়ার/২৩ নভেম্বর, ২০১৯/এ

এই বিভাগের অন্যান্য খবর

উপরে