businesshour24.com

ঢাকা, শনিবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২০, ১২ মাঘ ১৪২৬


পদ্মা সেতুর ১৭তম স্প্যান বসবে কাল

০৩:১৫পিএম, ২৫ নভেম্বর ২০১৯


বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : পদ্মার বহু রূপ। সময় এবং প্রকৃতির সঙ্গে সঙ্গে তাই পাল্টে যায় নদীর চেহারা। সবশেষ ১৬তম স্প্যানটি বসাতে খুব একটা ঝামেলা পোহাতে হয়নি। সব কিছু ঠিক থাকলে পদ্মা সেতুর ১৭তম স্প্যান বসবে মঙ্গলবার (২৬ নভেম্বর)। দৃশ্যমান হবে আড়াই কিলোমিটারের বেশি।

খরস্রোতা পদ্মায় দিন-রাত পাইলিং করে তার উপর খুঁটি বসিয়ে তৈরি করা হয়েছে কংক্রিটের পিয়ার। পিয়ারগুলোর উপর বসছে স্টিলের তৈরি বিশালাকার স্প্যান। স্প্যানের কিছু অংশের উপর সড়ক ও রেললাইনের স্ল্যাব বসানোর কাজ চলমান। এতদিন নদীর উত্তাল ঢেউয়ের উপর দাঁড়িয়ে থাকা সাদা পিয়ারগুলোর পর মূল সেতুর অনেকটাই এখন দৃশ্যমান।

প্রমত্তা পদ্মাকে 'বশ' করে দেশি-বিদেশি শ্রমিকেরা পদ্মার উপর ২ দশমিক ৪ কিলোমিটার মূল সেতুর কাঠামো তৈরি করে ফেলেছেন। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দূরত্বের এই সেতুর কাজ শেষ হওয়া এখন কেবল সময়ের ব্যাপার বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ঠরা।

এর আগে ১৫তম স্প্যান বসাতে কিছু অপ্রত্যাশিত ঝামেলা হওয়ায় সময় লেগেছিল ৮ দিন। ক্রেনে তুলে নদীতে ভাসিয়ে রাখতে হয়েছিল স্প্যান। দিনরাত ড্রেজিং করে সরাতে হয়েছে নদীর তলদেশের পলি। বর্ষায় প্রায় সাড়ে ৩ মাস কাজ বন্ধ রাখার পর নদীর স্রোত কমে আসায় অক্টোবর মাসে পরিকল্পনা ছিল ৩-৪টি স্প্যান বসানোর। বসানো যায় মাত্র একটি।

১৬তম স্প্যান বসানোর প্রস্তুতি নেয়ার পরও ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কারণে সরিয়ে নিতে হয় সব যন্ত্রপাতি। ১৬টি স্প্যান নদীতে বসানো আছে। চীন থেকে দেশে এসে পৌঁছেছে আরও ১৭টি স্প্যান, এর মধ্যে বসানোর জন্য পুরো প্রস্তুত আছে ৫টি। সেতুর ৪২টি পিলারের মধ্যে পুরো প্রস্তুত এখন ৩২টি।

প্রকল্প পরিচালক জানিয়েছেন, ড্রেজিং করে কাজ এগিয়ে নিতে হচ্ছে। এ জন্য প্রকল্প পিছিয়ে যাচ্ছে। ঢাকার পার্শ্ববর্তী মাওয়া ও পদ্মানদীর ওপারে জাজিরা পয়েন্টে সেতু নির্মাণের মহাযজ্ঞ চললেও মূলত জাজিরা পয়েন্টে মূল সেতুর অনেকটাই দৃশ্যমান হয়েছে।

সেতু প্রকল্পের প্রকৌশলী সুত্রে জানা গেছে, জাজিরা পয়েন্টে ৩৩ থেকে ৪২ নম্বর পিয়ার এবং ২৩ থেকে ২৫ নম্বর পিয়ারের উপরে স্প্যান বসানো শেষ হয়েছে। মোট ৩৩টির কাজ সম্পন্ন শেষ হয়েছে। বাকি ৮, ১০, ১১, ২৬, ২৭ ও ৩১ নম্বর পিয়ারের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। ৬, ৭ এবং ৩০ নম্বর পিয়ারের কাজও দ্রুত শেষ হবে।

পদ্মা সেতুর মাওয়া পয়েন্টে মূল নদীর মধ্যে বসানো ৬ ও ৭ নম্বর পিয়ার বসানোর কাজ সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং ছিল। কারণ, এই এলাকায় নদীর গভীরতা ও স্রোতও বেশি থাকে সব সময়।৪০টি স্প্যানের মধ্যে ১৬টি তৈরির কাজও শেষ হয়েছে। সর্বশেষ দুইটি পিয়ারের কাজ চলছে।

এদিকে মূল সেতুর পাশাপাশি চলছে পদ্মার দুই পাড়ে নদী শাসনের কাজও। দুই পাড়ে ১১ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে নদীশাসন করা হবে। ওপারে ১১ কিলোমিটার এপারে দুই কিলোমিটার। ওপারের মাটির ভঙ্গুরতার পাড় বেশি ভেঙে যায়। এজন্য এলাকাও বেশি। ওপারের প্রায় ৬ কিলোমিটার নদী শাসনের কাজও শেষ হয়েছে।

সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী (২০২১) বছরের জুনের মধ্যে স্বপ্নের পদ্মাসেতু দিয়ে যানবাহন চলাচল করবে বলে আশা করছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকার।

বিজনেস আওয়ার/২৫ নভেম্বর, ২০১৯/এ

এই বিভাগের অন্যান্য খবর

উপরে