businesshour24.com

ঢাকা, শনিবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২০, ৫ মাঘ ১৪২৬


প্রথমদিন রিং শাইনের সর্বোচ্চ দর বৃদ্ধি

০২:৫৯পিএম, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : রিং শাইন টেক্সটাইলের শেয়ার প্রথমদিন সর্বোচ্চ দর বৃদ্ধি পেয়েছে। এদিন কোম্পানিটির শেয়ার সার্কিট ব্রেকারের (উত্থান-পতনের সীমা) সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ বা ৫ টাকা বেড়ে ১৫ টাকায় পৌছেছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর) সার্কিট ব্রেকার নিয়ে রিং সাইনের লেনদেন শুরু হয়। ১০ টাকা ইস্যু মূল্যের শেয়ারটির প্রথমদিন সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ বা ৫ টাকা বাড়ার সুযোগ ছিল। আর এদিন সর্বোচ্চ দরই বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে লেনদেনের প্রথম দিন সার্কিট ব্রেকার চালুর কারনে রিং সাইনের শেয়ারে অধিকাংশ সময় বিক্রেতা ছিল না। অন্যথায় শেয়ারটির দর আরও বেশি বাড়তে পারত।

প্রথম দিনে রিং সাইনের শেয়ারটি লেনদেন শুরু হয় ১৫ টাকা দিয়ে। যা সর্বনিম্ন ও সর্বোচ্চ ১৫ টাকায় লেনদেন হয়েছে। যে শেয়ারটি দিন শেষেও ১৫ টাকায় দাড়িঁয়েছে। ফলে আজকে যারা ১৫ টাকা দরে রিং সাইনের শেয়ার বিক্রি করেছেন, তারা ৫ টাকা বা ৫০ শতাংশ মুনাফা করেছেন। এছাড়া প্রতিটি শেয়ারের বিপরীতে প্রাপ্য ০.১৫টি বোনাস শেয়ারের দর রয়েছে ২.২৫ টাকা। এ হিসাবে তারা ৫০ শতাংশ মুনাফা করার পাশাপাশি আরও ২২.৫০ শতাংশ মুনাফায় রয়েছেন।

দ্বিতীয় দিনও রিং সাইনের শেয়ারের ৫০ শতাংশ দর বৃদ্ধির সুযোগ থাকবে। তবে এক্ষেত্রে প্রথমদিনের ক্লোজিং প্রাইস বিবেচ্য হবে। অর্থাৎ প্রথম দিনের ক্লোজিং প্রাইস ১৫ টাকা বিবেচনায় দ্বিতীয় দিন ৭.৫০ টাকা বৃদ্ধির সুযোগ থাকবে। এরপরে যথারীতি ১০ শতাংশ সার্কিট ব্রেকার কার্যকর হবে।

প্রথম দিন কোম্পানিটির ১ কোটি ২০ লাখ ২১ হাজার ৬৯২টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এসব শেয়ার হাত বদল হয়েছে ১০ হাজার ৮৪৬ বার। এর মাধ্যমে কোম্পানিটির ১৮ কোটি ৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ১৫ কোটি শেয়ার ইস্যু সত্ত্বেও প্রথম দিন সার্কিট ব্রেকার চালুর কারনে এতো কম লেনদেন হয়েছে। অথচ সর্বশেষ ২ কোটি শেয়ার ইস্যু কপারটেক ইন্ডাস্ট্রিজের প্রথমদিন ৩১ কোটি ৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছিল।

গত ১৪ নভেম্বর বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) এক নির্দেশনায় যেকোন নতুন শেয়ারের লেনদেনের প্রথমদিনে সার্কিট ব্রেকার আরোপের সিদ্ধান্ত জানায়। যা আজকে রিং সাইনের মাধ্যমে শুরু হয়েছে। ওই নির্দেশনায় জানানো হয়, নতুন শেয়ারে ইস্যু মূল্যের উপর প্রথম দিন ৫০ শতাংশ সার্কিট ব্রেকার (উত্থান-পতন সীমা) কার্যকর হবে। দ্বিতীয় দিনও ৫০ শতাংশ সার্কিট ব্রেকার থাকবে। তবে দ্বিতীয় দিনের ৫০ শতাংশ সার্কিট ব্রেকার আরোপ হবে আগের দিনের ক্লোজিং প্রাইসের উপরে। এরপরে যথারীতি আগের নিয়মে ১০ শতাংশ সার্কিট ব্রেকার কার্যকর হবে।

লেনদেনের প্রথম দিনে কোম্পানির শেয়ারে অস্বাভাবিক উত্থান হওয়ায় ডিএসই কর্তৃপক্ষ প্রথমদিনে সার্কিট ব্রেকার চেয়ে কমিশনে প্রস্তাব করেছিল। এরই আলোকে কমিশন লেনদেনের প্রথম দিনেই সার্কিট ব্রেকার আরোপের সিদ্ধান্ত নেয়। কারন ওই অস্বাভাবিক উত্থান পরবর্তীতে স্বাভাবিকভাবেই কমে যায়। এতে একটি পক্ষ লাভবান হলেও আরেকটি পক্ষকে লোকসান গুণতে হয়।

বিজনেস আওয়ার/১২ ডিসেম্বর, ২০১৯/আরএ

এই বিভাগের অন্যান্য খবর

উপরে