করোনাভাইরাস লাইভ আপডেট
বাংলাদেশ
আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু
৫৬
২৬
সূত্র:আইইডিসিআর
বিশ্বজুড়ে
দেশ
আক্রান্ত
মৃত্যু
১৮০
৯৮১২২১
৫০২৩০
সূত্র: জনস হপকিন্স ইউনিভার্সিটি ও অন্যান্য।

ঢাকা, শুক্রবার, ৩ এপ্রিল ২০২০, ২০ চৈত্র ১৪২৬


চিকিৎসার জন্য বিদেশ যেতে জামিন চাইলেন খালেদা

০৪:১৭পিএম, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : শারীরিক অবস্থার বিষয়টি উল্লেখ করে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ফের জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেছেন বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। মঙ্গলবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি একেএম জহিরুল হকের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে এই আবেদন করা হয়। আবেদন জমা দেন খালেদা জিয়ার আইনজীবী সগির হোসেন লিয়ন।

এর আগে, খালেদা জিয়ার প্যানেল আইনজীবী অ্যাডভোকেট আমিনুল ইসলাম রোববার (১৬ ফেব্রুয়ারি) রাতে জানিয়েছিলেন, খালেদা জিয়া মারাত্মক অসুস্থ। দিন দিন তার অবস্থা খারাপের দিকে যাচ্ছে। তার স্বাস্থ্যের তথ্য উল্লেখ করে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় তার জামিন আবেদন করা হবে। জামিন হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়াকে দেশের বাইরে নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

আমিনুল ইসলামের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গতকাল সোমবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) হাইকোর্টে আবেদনটি দাখিল করার কথা ছিল। তবে একদিন পিছিয়ে আবেদনটি আজ দাখিল করা হলো।

জামিন আবেদনে যুক্তি দেখানো হয়েছে, খালেদা জিয়া গুরুতর অসুস্থ, তার উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে তার উন্নত চিকিৎসা হচ্ছে না। তাই জামিন পেলে তিনি উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশেযাবেন।

এর আগে, জিয়া চ্যারিটেবল মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন গত ১২ ডিসেম্বর খারিজ করেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন ছয় বিচারপতির আপিল বেঞ্চ। এরপর ফের আপিল বিচারাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চে জামিন আবেদন করা হচ্ছে।

কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে প্রায় দেড় ডজন মামলা থাকলেও অধিকাংশ মামলাতেই তিনি জামিনে আছেন। এর মধ্যে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় জামিন পাননি তিনি। ২০১৮ সালের ২৯ অক্টোবর জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলার রায় ঘোষণা করেন পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারে স্থাপিত ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫।

রায়ে খালেদা জিয়া ছাড়া বাকি তিন আসামিকেও সাত বছর করে কারাদণ্ড দেন ওই আদালতের বিচারক ড. মো. আকতারুজ্জামান। প্রত্যেককে ১০ লাখ টাকা করে অর্থদণ্ড দেওয়া হয়। এ রায়ের বিরুদ্ধে খালেদা জিয়া আপিল করলে ২০১৯ সালের ৩০ এপ্রিল তা শুনানির জন্য গ্রহণ করে অর্থদণ্ড স্থগিত করেন হাইকোর্ট।

পরে গত বছরের ৩১ জুলাই জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন খারিজ করে দেন বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ। এ আদেশের বিরুদ্ধে আপিলে আবেদন করেন খালেদা জিয়া।

বিজনেস আওয়ার/১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০/এ

এই বিভাগের অন্যান্য খবর

সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যা মামলা
৭১ বারেও ফিরে গেল তদন্ত প্রতিবেদন

উপরে