করোনাভাইরাস লাইভ আপডেট
বাংলাদেশ
আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু
৫৪
২৬
সূত্র:আইইডিসিআর
বিশ্বজুড়ে
দেশ
আক্রান্ত
মৃত্যু
১৮০
৮৫৮৭৮৫
৪৪২০২
সূত্র: জনস হপকিন্স ইউনিভার্সিটি ও অন্যান্য।

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২ এপ্রিল ২০২০, ১৮ চৈত্র ১৪২৬


১০ পরীক্ষাগার স্থাপনের ঘোষণা, এক সপ্তাহ পর চালু হয়েছে ৩টি

০৮:৪১পিএম, ২৬ মার্চ ২০২০

বাংলাদেশে কোভিড-১৯ রোগী বেড়ে যাওয়ার পাশাপাশি আইইডিসিআরের নমুনা পরীক্ষা প্রক্রিয়ায় দেরি নিয়ে ক্ষোভের পর দেশের বিভিন্ন স্থানে ১০টি পরীক্ষাগার চালুর ঘোষণার এক সপ্তাহ গড়ালেও এ পর্যন্ত চালু হয়েছে মাত্র তিনটি।

চীনে সংক্রমণের দুই মাসের বেশি সময় পর গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম কোভিড-১৯ রোগী শনাক্তের কথা জানায় সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট-আইইডিসিআর।

শুরুতে শুধু আইইডিসিআরেই রোগ পরীক্ষা চলছিল। তাতে অসুস্থ হয়ে তাদের হটলাইনে ফোন করেও নমুনা পরীক্ষার সুযোগ না হওয়ায় অনেকে ক্ষোভ জানাচ্ছিলেন; যদিও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ১৬ মার্চও দেশগুলোকে বলছিল, সন্দেহভাজন প্রতিটি রোগীকে পরীক্ষা কর, যত বেশি পার তত নমুনা পরীক্ষা কর।

এরপর এক সপ্তাহ আগে সরকারেরর পক্ষ থেকে জানানো হয়, আইইডিসিআরের নিজস্ব পরীক্ষাগার ছাড়াও আরও ১০টি পরীক্ষাগার স্থাপন করা হবে করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য।

এগুলো হলো- ঢাকার মধ্যে জনস্বাস্থ্য হাসপাতাল, ঢাকা শিশু হাসপাতাল, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।

আর ঢাকার বাইরে চট্টগ্রামের ফৌজদারহাটে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিকাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিসেস, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আইইডিসিআরের ফিল্ড ল্যাবরেটরি, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।

বৃহস্পতিবার খবর নিয়ে দেখা যায়, এর মধ্যে তিনটিতে কেবল পরীক্ষা করা যাচ্ছে। এগুলো হল রাজধানীর মহাখালীতে জনস্বাস্থ্য হাসপাতাল, ঢাকা শিশু হাসপাতাল এবং চট্টগ্রামের ফৌজদারহাটের বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিকাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিসেস হাসপাতাল।

ঢাকার বাইরের ফৌজদারহাটের বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস- বিআইটিআইডিতে বুধবার দুপুরে কিট পৌঁছেছে বলে জানান প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক এম এ হাসান চৌধুরী। কিট চট্টগ্রামে পৌঁছানোর পর নমুনা সংগ্রহ শুরু হয়েছে।

খুলনা, বরিশাল, রাজশাহী, ময়মনসিংহ, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এখনো ল্যাব চালু হয়নি বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ড. এটিএম মঞ্জুর মোরশেদ বলেন, তাদের টেস্টিং ল্যাব স্থাপন হয়নি, কিটও পৌঁছেনি। ফলে পরীক্ষাও শুরু করা যায়নি।

বরিশালের শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. বাকীর হোসেন বলেন, “আমরা এখনও পরীক্ষা চালু করতে পারেননি। আমরা চিঠি চালাচালির মধ্যে আছি। অবকাঠামো তৈরি হয়নি। মেশিনটা কারা সরবরাহ করবে, সেটাও নির্ধারিত হয়নি। কবে নাগাদ ল্যাব চালু হবে, সেই অপেক্ষায় আছি।”

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌ বলেন, “আমরা শুধু জায়গা নির্ধারণ করেছি। তবে এখনও কিছুই আসেনি।”

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক লক্ষ্মীনারায়ণ মজুমদার বলেন, “ল্যাব তৈরি হচ্ছে। চিকিৎসকরা প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। এখনও কিট দেয়নি। ল্যাবের কাজ শেষ হলে ও কিট পেলে কাজ করতে পারব।”

কক্সবাজারের সিভিল সার্জন ডা. মো. মাহবুবুর রহমান বলেন, “এখনও অনেক উপকরণ সঙ্কট রয়েছে। ট্রায়াল পর্যায়ে আছে। কিছুদিনের মধ্যে উপকরণ হাতে আসবে। উপকরণ পেলে পুরোপুরি চালু করা যাবে।”

বিজনেস আওয়ার/ ২৬ মার্চ,২০২০/কমা

এই বিভাগের অন্যান্য খবর

ব্যক্তি উদ্যোগে যুবলীগ নেতার সহযোগিতা
বেতনের টাকায় খাবার পৌঁছে দিচ্ছে পুলিশ

উপরে