businesshour24.com

ঢাকা, বুধবার, ২২ জানুয়ারি ২০২০, ৯ মাঘ ১৪২৬


রূপপুর বিদ্যুৎ প্রকল্পে অর্থ ছাড় দিলো রাশিয়া

১০:০৯এএম, ১১ ডিসেম্বর ২০১৭

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদকঃ রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্পের জন্য বড় অংকের অর্থছাড় দিলো রাশিয়া। চলতি মাসেই তাদের দেয়া মোট প্রতিশ্রুতির ৪০০ কোটি টাকা ছাড় করবে দেশটি। এর মাধ্যমে প্রকল্পের কাজে আরও গতি আসবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এ বিষয়ে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিব কাজী শফিকুল আযম বলেন, ডিসেম্বরে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে ৫০ কোটি ডলার সমপরিমাণ অর্থছাড় করবে রাশিয়া।

এর মাধ্যমে প্রকল্পটি বাস্তবায়নে কোনো অর্থ সংকট থাকবে না। বাড়বে কাজের গতি। অন্যদিকে উন্নয়ন সহযোগীদের অর্থছাড়ের যে টার্গেট, তাও সহজে পূরণ হবে।

পরিকল্পনা কমিশন জানিয়েছে, দেশের ইতিহাসে সর্ববৃহৎ ব্যয়ের প্রকল্প হচ্ছে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র।

এটি নির্মাণে ব্যয় হচ্ছে এক লাখ ১৮ হাজার ১৮০ কোটি ৮১ লাখ টাকা। মোট এ ব্যয়ের মধ্যে প্রকল্প সাহায্য হিসেবে রাশিয়া দিচ্ছে ৯১ হাজার ৪০ কোটি টাকা।

আর সংশ্লিষ্টদের দাবি, এ প্রকল্প উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে নতুন দিগন্তের আরেক মাইলফলকে পৌঁছেছে বাংলাদেশ।

সরকারের ফাস্ট ট্র্যাক প্রকল্পের আওতাধীন বিদ্যুৎকেন্দ্রটির সার্বিক কার্যক্রম সরাসরি তদারকি করছেন খোদ প্রধানমন্ত্রী।

ইতোমধ্যে প্রকল্পে ব্যয় হয়েছে পাঁচ হাজার ৮৭ কোটি নয় লাখ টাকা। এর মাধ্যমে প্রকল্পের প্রথম পর্যায়ের কাজ শেষ হয়েছে।

আলোচিত বিদ্যুৎকেন্দ্রটি বাস্তবায়নে কাজ করছে বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে ভিভিইআর-১২০০ (এইএস-২০০৬) রিঅ্যাক্টরের দুটি বিদ্যুৎ ইউনিটের (ইউনিট-১ ও ২) সমন্বয়ে দুই হাজার ৪০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতার পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করা হবে।

প্রকল্প পরিচালক ড. শওকত আকবর জানান, প্রথম পর্যায়ের প্রস্তুতিমূলক কাজ সম্পাদনের জন্য প্রকল্পের কাজ শেষ হয়েছে। এ পর্যায়ের ব্যয় ধরা হয়েছিল পাঁচ হাজার ৮৭ কোটি নয় লাখ টাকা।

আর দ্বিতীয় পর্যায়ে মূল প্রকল্পে ২০১৬ সালের জুলাই থেকে শুরু হয়েছে। এ পর্যায়ের ব্যয় হচ্ছে এক লাখ ১৩ হাজার ৯২ কোটি ৯১ লাখ টাকা, যা এখন পুরোদমে চলছে। গত ৩০ নভেম্বর এ অংশের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

দুই পর্যায় মিলে এক লাখ ১৮ হাজার ১৮০ কোটি ৮১ লাখ টাকা ব্যয়ে প্রকল্পটির কাজ শুরু হয় ২০১৩ সালে। প্রকল্প সম্পন্ন করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ২০২৫ সালের ডিসেম্বর।


বিজনেস আওয়ার / ১১ ডিসেম্বর / এমএএস

এই বিভাগের অন্যান্য খবর

সিএএ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী
'বুঝতে পারছি না কেন ভারত এটা করল'

নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনের দাবি
শাহবাগে ফের বিক্ষোভ, কঠোর কর্মসূচীর হুঁশিয়ারি

উপরে