businesshour24.com

ঢাকা, বুধবার, ২২ জানুয়ারি ২০২০, ৯ মাঘ ১৪২৬


শৃঙ্খলার অভাবে হয়রানির শিকার অভিবাসীরা

১০:১৭এএম, ১১ ডিসেম্বর ২০১৭

বিজনেস আওয়ার ডেস্কঃ মালয়েশিয়ায় প্রায় দশ লাখ বাংলাদেশির মাত্র এক-তৃতীয়াংশ বৈধভাবে রয়েছেন। বাকিরা মালয়েশিয়া সরকারের রি-হায়ারিং কর্মসূচির আওতায় বৈধ কাগজপত্র পেতে প্রতিদিন ভিড় করছেন সেখানকার বাংলাদেশ হাইকমিশনে।

তবে, দেশটির বিভিন্ন শহর থেকে এসে দূতাবাস থেকে প্রত্যাশিত সেবা না পাওয়ায় চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ কর্মীদের। হাইকমিশন বলছে, বর্তমানে স্বাভাবিকের চেয়ে তিন-চারগুণ বেশি কর্মীকে সেবা দেয়া হচ্ছে।

মালয়েশিয়া অর্থনৈতিকভাবে শক্তিশালী এবং জীবনযাত্রার মান উন্নত হওয়ায় স্বপ্নের সোনার হরিণ ধরতে অনেক বাংলাদেশি পাড়ি জমিয়েছেন, এই দেশটিতে।

সরকারি পরিসংখ্যান আর আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার হিসেব অনুসারে, বর্তমানে প্রায় দশ লাখ বাংলাদেশি আছেন মালয়েশিয়ায়। এর মাত্র এক-তৃতীয়াংশের বৈধ কাগজপত্র থাকলেও বাকিরা রয়েছেন অবৈধভাবে।

এই অবৈধ অভিবাসীদের বৈধ হতে মালয়েশিয়া সরকার ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছে। এর মধ্যে প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে প্রতিদিন সেখানকার বাংলাদেশ দূতাবাসে ভিড় করছেন, হাজার হাজার বাংলাদেশি।

পাসপোর্ট নবায়ন, নতুন পাসপোর্ট সংগ্রহ করাসহ নানা কাজে দূতাবাসে এসে চরম ভোগান্তির শিকার হতে হয় বলে অভিযোগ করেন এসকল কর্মী।

তবে, অবৈধ বাংলাদেশিদের বৈধ হওয়ার বিষয়টি সর্বোচ্চ বিবেচনায় নিয়ে বাংলাদেশ হাইকমিশন সাধ্যমত কাজ করছে বলে জানান সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

মিনিস্টার ওয়াহিদা আহমেদ বলেন, যে কারণে তাদের সময় মত হয়না তা হচ্ছে, কোন ধরনের তথ্য যদি গোপন করেন, তাহলে পাসপোর্ট আটকে যায়।

দেড় হাজার থেকে চারশো ডেলিভারি হয়। ঠিক তার সমসংখ্যক রি-ইস্যু এবং এন্ডলমেন্ট হয়, এছাড়া ট্রাভেল ফরম্যাট আছে, অনেক কিছু আছে যার জন্য বলছি, অনেক কারণে দেরি হচ্ছে।

আসছে, ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে রি-হায়ারিং এর মাধ্যমে বৈধ হওয়ার সুযোগ পাবেন মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত অনেক অবৈধ বাংলাদেশি।

এ কারণেই বাংলাদেশের দূতাবাসের সামনে ভিড় করছে বাংলাদেশি অভিবাসীরা। তাদের দাবি মালয়েশিয়া দূতাবাসের শৃঙ্খলা অভাবে নানা হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে তাদের।


বিজনেস আওয়ার / ১১ ডিসেম্বর / এমএএস

এই বিভাগের অন্যান্য খবর

উপরে