ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ৭ কার্তিক ১৪২৬
sristymultimedia.com

প্রচ্ছদ » বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি » বিস্তারিত


ss-steel-businesshour24

Runner-businesshour24

সাইবার নিরাপত্তা সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্যগুলো জেনে রাখুন

আপডেট : 2018-10-18 14:12:01
সাইবার নিরাপত্তা সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্যগুলো জেনে রাখুন

বিজনেস আওয়ার ডেস্ক: ডিজিটাল আইনে সাইবার নিরাপত্তা নিয়ে আমরা অনেক রকম কিছুই শুনেছি। তবে সঠিকভাবে এর প্রয়োগ করতে পারলে নানারকম হ্যাকিংয়ের হাত থেকে রক্ষা পেতে পারি সহজেই।তবে এই সাইবার নিরাপত্তা সম্পর্কে হয়ত আমরা এখনও অনেকেই অজ্ঞ।

সোশ্যাল মিডিয়া থেকে শুরু করে নানা জায়গায় আমরা হেনস্থার শিকার হই, এছাড়া আমাদের ব্যাংকের প্রয়োজনীয় কার্ডগুলো থেকে টাকা উধাও ইত্যাদি ঝামেলা থেকেও সচেতন হলেও মুক্তি পেতে পারি।

১. কোন অপরিচিত নাম্বার হতে ফোন করে আপনার অনলাইনের কোন তথ্য চায় যেমন-এনআইডি নাম্বার, মেইল একাউন্ট, জন্ম তারিখ, ব্যাংক একাউন্ট নাম্বার, রকেট নাম্বার, বিকাশ নাম্বার ইত্যাদি। তাহলে সেই ফোন বর্জন করতে হবে। অপরিচিত কাউকেই ব্যক্তিগত কোন তথ্য দেওয়া থেকে বিরত থাকুন।

২.কম্পিউটার, মোবাইল অথবা ই-মেইলের পাসওয়ার্ড সর্বোচ্চ ৩ মাস ব্যবহার করবেন। এরপর অবশ্যই তা পরিবর্তন করবেন।

৩.কোনক্রমেই লোকেশন/অবস্থান জানিয়ে ছবি আপডেট দেওয়া যাবে না। যেমন-আমি সাক্ষী দিতে যাচ্ছি, আমি এখন ট্রেনে,বাসে ইত্যাদি।

৪.আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারে কিংবা মেসেঞ্জারে কোন অপরিচিত নাম্বার হতে কোন মেইল কিংবা ছবি আসলে তা কোনক্রমেই ওপেন করতে যাবেন না।

৫.অনলাইনের সব অ্যাকাউন্ট ব্যবহার শেষে লগ আউট করবেন। এছাড়াও ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে শুরু করে ই-মেইল এমনকি ব্যাংক অ্যাকাউন্টসহ সবকিছুতেই টু-স্টেপ ভেরিফিকেশনের অপশন চালু করতে পারেন। এ অপশন চালু থাকলে প্রতিবার অ্যাকাউন্টে লগ-ইন করার সময়ে মোবাইলে মেসেজ আকারে একটি লগইন এপ্রুভাল; কোড আসবে এবং সেই লগইন এপ্রুভাল কোড ইনপুট না দেয়া অবদি আপনি লগ-ইন করতে পারবেন না। এ অপশন চালু থাকার সুবিধাটি হল, হ্যাকার আপনার পাসওয়ার্ড জেনে ফেললেও আপনার মোবাইলে আসা কোডটি ছাড়া সে অ্যাকাউন্টে ঢুকতে পারবে না। আর এভাবেও বেঁচে যেতে পারেন হ্যাকিংয়ের হাত থেকে।

৬.আপনার সঙ্গে কোন তারকার চেহারা মিল আছে, অথবা ৫০ বছর পর আপনাকে কেমন দেখাবে এই জাতীয় লিংকে কখনোই ঢুকবেন না।

৭.আপনার ফেসবুক বা ই-মেইল পাসওয়ার্ড চায় এ ধরনের লিংকে কখনই প্রবেশ করবেন না।

৮.অপরিচিত কোনো মেইল বা লিংকে কোনক্রমেই প্রবেশ করা যাবে না।

৯.আপনি লটারিতে টাকা বা গাড়ি জিতেছেন এরকম লোভনীয় কোন মেইল থেকে সতর্ক থাকুন।

১০.আপনার ফেসবুকের টাইমলাইনের সেটিংস যথাযথভাবে ঠিক করুন। আপনার টাইমলাইনে অন্য কেউ যাতে কিছু লিখতে না পারে সেভাবে সেটিং সাজান।

১১.সিকিউরিটি সিস্টেম যত আপডেট হচ্ছে তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়ে চলেছে হ্যাকিংয়ের কৌশল। তাই হ্যাকারদের থাবা থেকে বাঁচতে ব্যবহার করতে পারেন ফিঙ্গারপ্রিন্ট সিকিউরিটি। এতে একদিকে যেমন কোনো পাসওয়ার্ডের ঝামেলা নেই, অন্যদিকে খুব সহজেই লগ-ইন করতে পারেন নিজের অ্যাকাউন্টে। প্রায় সব স্মার্টফোনেই এখন এ ফিঙ্গারপ্রিন্ট প্রযুক্তি ব্যবহার করছে।

১২.রেস্টুরেন্ট ও পাবলিক প্লেসগুলোতে পাবলিক ওয়াই-ফাই কানেক্ট হওয়া থেকে বিরত থাকুন। ওয়াই-ফাই সেটআপের ক্ষেত্রে পাসওয়ার্ড দিন। ডিফল্ট পাসওয়ার্ড ব্যবহার করবেন না। সিকিউরিটি এনক্রিপশন দেয়ার বেলায় ডব্লিউপিএ-২ নির্বাচন করে দিন। বেশিরভাগ রাউটারে ওয়্যারড ইকুভ্যালেন্ট প্রাইভেসি (ডব্লিউইপি) বা ওয়্যারলেস প্রটেক্টেড অ্যাকসেস (ডব্লিউপিএ) ডিফল্ট আকারে দেয়া থাকে। যে কোনো মূল্যে এ এনক্রিপশন বাদ দিন।

১৩.কেউ একজন কল করল আর আপনাকে বাল্ক এসএমএস পাঠিয়ে বলল ভুলে আপনার ওয়ালেটে টাকা চলে গিয়েছে আপনি অ্যাকাউন্ট না দেখে শুধু এসএমএস দেখেই তার নাম্বারে টাকা ট্রান্সফার করে দিলেন। কিছু সময় পর দেখতে পেলেন আসলে আপনি আপনার নিজের টাকাই তাকে পাঠিয়েছেন। এমন স্পাম কল এলে ফোন কেটে আগে নিজের অ্যাকাউন্ট চেক করুন, নিশ্চিত হোন তারপর ডিসিশন নিন।

১৪.কোন অপরিচিত নাম্বার থেকে ফোন করে যদি আপনাকে জানানো হয় যে, ফোন কোম্পানির কাস্টমার কেয়ার সেন্টার থেকে ফোন করা হয়েছে। তাদের সার্ভারের সমস্যার কারনে আপনার মোবাইল ফোনটি কিছু সময়ের জন্য বন্ধ রাখতে হবে। এ ধরনের কোন তথ্য শুনে ফোন বন্ধ করতে যাবেন না।

১৫.কোন অপরিচিত নাম্বার হতে মিস কল আসলে তা ব্যাক করা যাবে না; এতে আপনার নাম্বার ক্লোন হতে পারে।

১৬.যেকোন সফট্ওয়ার বা এ্যাপসে প্রবেশের সময় আপনার ব্যক্তিগত তথ্য বা এক্সেস চায়; সেখানে না প্রবেশ করাই শ্রেয়।

১৭.সব একাউন্টে সব সময় শক্তিশালী পার্সওয়ার্ড, যেমন-সংখ্যা, Symbol ও অক্ষরের Mixed/Complexযুক্ত পার্সওয়ার্ড ব্যবহার করুন।

১৮.মোবাইল বা কম্পিউটারে কোনো অন্তরঙ্গ ছবি রাখা যাবে না। এই ধরনের কাজ হতে বিরত থাকুন। কারন যে কোন সময় আপনার মোবাইল ফোনটি হারিয়ে যেতে পারেকিংবা যে কোন সময় আপনার বন্ধু-বান্ধব আপনার কম্পিউটারে ঢুকে আপনার ছবি চুরি করে নিয়ে আপনাকে কিংবা আপনার প্রিয়জনকে ব্ল্যাকমেইল করতে পারে।সুত্র-সময় সংবাদ।

বিজনেস আওয়ার/১৮ অক্টোবর, ২০১৮/এমএএস

পাঠকের মতামত: