ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০১৯, ৫ আষাঢ় ১৪২৬
sristymultimedia.com

প্রচ্ছদ » কর্পোরেট » বিস্তারিত


eid-ul-fitor-businesshour24

ss-steel-businesshour24

Runner-businesshour24

তিনটি উদ্ভাবনী পুরস্কার জিতলো হুয়াওয়ে

আপডেট : 2018-12-05 15:35:23
তিনটি উদ্ভাবনী পুরস্কার জিতলো হুয়াওয়ে

বিজনেস আওয়ার ডেস্ক: বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে তিনটি উদ্ভাবনী পুরস্কার জিতেছে। পুরস্কারগুলো হলো- ভিওএলটিই ইনোভেশন অফ দ্য ইয়ার, এলটিই ইনোভেশন অফ দ্য ইয়ার এবং স্মার্ট সিটি ইনোভেশন অফ দ্য ইয়ার। সম্প্রতি হংকংয়ে অনুষ্ঠিত ১১তম রিডার্স চয়েস অ্যান্ড ইনোভেশন অ্যাওয়ার্ডস প্রোগ্রামে এসব পুরস্কার ঘোষণা করা হয়। টেলিকম এশিয়া রিডার্স চয়েস অ্যান্ড ইনোভেশন এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

তিনটি পুরস্কার জেতার বিষয়ে হুয়াওয়ের দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের চিফ স্ট্র্যাটেজি অ্যান্ড মার্কেটিং অফিসার লিম চী সিওং বলেন, সম্প্রতি জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে ডিজিটাল প্রযুক্তির তাৎক্ষণিক বিবর্তন এ খাতকে অত্যন্ত গতিশীল করেছে। আমাদের স্মার্ট সিটি সল্যুশন, ভয়েস ওভার ফাইভজি এবং ক্লাউড সল্যুশন একটি সাথে অন্যটি সম্পর্কিত এবং এগুলো আমাদের নতুন নতুন উদ্ভাবনীর স্বাক্ষর বহন করে। তথ্য প্রযুক্তি খাতের রূপান্তরে নিয়মিত কাজ করা ও চেষ্টার স্বীকৃতি পাওয়া আমাদের জন্য গর্বের বিষয়।

টেলিকম এশিয়ার চিফ এডিটর অ্যালেন তান বলেন, কনজ্যুমার ও এন্টারপ্রাইজগুলো এমন সেবাদাতাদের খোঁজে, যারা নির্ভরযোগ্য, নিরাপদ এবং স্কেলেবল প্ল্যাটফর্ম হিসেবে পরিচিত। এ ধরনের পরিবেশ তৈরি করা খুব সহজ কাজ নয়। সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোকে জটিল সমস্যা সমাধানে এবং উদ্ভাবন ও প্রবৃদ্ধির সুযোগ সৃষ্টিতে হুয়াওয়ের মতো শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের সাথে অংশীদার হওয়া প্রয়োজন।

ভিওএলটিই ইনোভেশন অফ দ্য ইয়ার: হুয়াওয়ে ভিওফাইভজি:
বিশ্বব্যাপী ফাইভজি বিবর্তন নিশ্চিত করতে হুয়াওয়ের ভয়েস ওভার ফাইভজি (ভিওফাইভজি) সল্যুশন মৌলিক ও স¤প্রসারিত সেবা সরবরাহ করে। এই সেবার নকশা অত্যন্ত ফ্লেক্সিবল রিয়েল-টাইম কমিউনিকেশন (আরটিসি) সেবা দিতে সক্ষম। বাসাবাড়ি, এন্টারপ্রাইজ বা ইন্ডাস্ট্রির বিভিন্ন প্রয়োজন পূরণে (যেমন: ইন্টারনেট অব ভিহিকেলস, ইন্ডাস্ট্রিয়াল কন্ট্রোল, এগ্রিকালচার এবং এনার্জি) সক্ষম এই সেবা।

এলটিই ইনোভেশন অফ দ্য ইয়ার: হুয়াওয়ে ক্লাউডএয়ার:
মোবাইল অপারেটর কোম্পানিগুলো ২০১৮-২০২৫ সাল পর্যন্ত একটি রূপান্তরের মধ্যে দিয়ে যাবে। এই সময়ের মধ্যে ২জি ও ৩জি নেটওয়ার্কেও প্রয়োজনীয়তা শেষ হবে, ৪জি নেটওয়ার্কের উন্নয়ন ও ব্যবহার বাড়বে এবং ফাইজ নেটওয়ার্কের ব্যাপক বিবর্তন হবে। হুয়াওয়ের ক্লাউডেএয়ার সল্যুশন এই খাতের প্রথম এয়ার ইন্টারফেস ক্লাউডভিত্তিক সল্যুশন, যা অপারেটরদের জটিল রেডিও নেটওয়ার্ক স্থাপনে সহায়তা করবে, সক্ষমতা বাড়াবে এবং ব্যবহারকারীদের আরও উন্নত অভিজ্ঞতা দেবে।

স্মার্ট সিটি ইনোভেমন অব দ্য ইয়ার: হুয়াওয়ে স্মার্ট সিটি ইনটেলিজেন্ট অপারেশন্স সেন্টার:
হুয়াওয়ের স্মার্ট সিটি ইনটেলিজেন্ট অপারেশনস সেন্টার দৃশ্যমান সিটিগুলোকে ডিজিটাল করতে সহায়তা করে। পুরো শহরের মধ্যে ইন্টারনেট অব থিংস (আইওটি) সেন্সরের মাধ্যমে (ভিডিও/নন ভিডিও) তথ্য সংগ্রহ করা হয় এবং তারহীন নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে সেই তথ্য আইওসি প্ল্যাটফর্মে পাঠানো হয়। ক্লাউড, আইওটি সেন্সর, জিআইএস (সিটি ভিজ্যুয়াল), বিগ ডাটা (অ্যানালিটিক্স), ভিডিও ম্যানেজমেন্ট এবং অ্যানালিটিক্সসহ অন্যান্য সিস্টেমগুলোর মাধ্যমে আরো উন্নত নগর ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করা হয়।

এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে নতুন নতুন প্রযুক্তির উদ্ভাবন এবং এ খাতে অবদান রাখায় শীর্ষ টেলিকম ভেন্ডরদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করতেই রিডার্স চয়েস অ্যান্ড ইনোভেশন অ্যাওয়ার্ডস অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

বিজনেস আওয়ার/০৫ ডিসেম্বর, ২০১৮/এমএএস

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

পাঠকের মতামত: