ঢাকা, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৯, ১১ বৈশাখ ১৪২৬
sristymultimedia.com

প্রচ্ছদ » আন্তর্জাতিক » বিস্তারিত


ss-steel-businesshour24

Runner-businesshour24

ডিম বালকের জীবন সঙ্গিনী হতে চায় অস্ট্রেলিয় তরুণীরা

আপডেট : 2019-03-21 17:37:41
ডিম বালকের জীবন সঙ্গিনী হতে চায় অস্ট্রেলিয় তরুণীরা

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : অস্ট্রেলীয় সিনেটরের মাথায় ডিম ভেঙ্গে উইল কনোলি বিশ্বে সাহসী তরুণ হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। পরিচিতি পেয়েছেন ‘ডিম বালক’ নামে। এবার তাকে বিয়ের প্রস্তাব দিচ্ছেন অস্ট্রেলিয় তরুণীরা।

সারা বিশ্ব এখন তাকে এগ বয় বা ডিম বালক নামেই চেনেন। নিউজিল্যান্ডের মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় বিতর্কিত মন্তব্য করায় অস্ট্রেলিয়ান সিনেটর ফ্রেজার অ্যানিংয়ের মাথায় ডিম ফাটিয়ে এর প্রতিবাদ জানিয়েছিল উইল। আর এতেই রীতিমতো বীর উপাধি পেয়ে গেছে সে।

ডিম বালকের বীরত্বে মুগ্ধ অস্ট্রেলিয়ান তরুণীরা এখন তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ। তবে কেবল প্রশংসাই নয়, শত শত অস্ট্রেলিয়ান তরুণী তাকে দিচ্ছেন বিয়ের প্রস্তাবও। এছাড়া ডিম বালক এখন এত জনপ্রিয় যে, তার ছবি সম্বলিত টি-শার্ট কিনে পড়েছেন তরুণ-তরুণীরা।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম দ্য মিররের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গতকাল মঙ্গলবার (২০ মার্চ) প্রতিবাদকারীরা মেলবোর্নের সিবিডি স্টেট লাইব্রেরিতে প্ল্যাকার্ড হাতে সমাবেশ করেন। সেখানে সিনেটর ফ্রেজারকে নিন্দা জানিয়ে কনোলিকে ঘিরে প্রশংসা করেন তারা।

এদিকে সিনেটর ফ্রেজারের পদত্যাগ দাবিতে ক্যানবেরার রাস্তায় হাজার হাজার মানুষ বিক্ষোভে নামেন। বিক্ষোভে অংশ নেওয়া বেশ কিছু তরুণীকে দেখা যায়, ‘মেরি মি এগ বয়’ সংবলিত প্ল্যাকার্ড হাতে দাঁড়িয়ে থাকতে।

আরেকটি প্ল্যাকার্ডে লেখা ছিল, বর্ণবাদী মন্তব্যের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানোর মাধ্যমেই ডিম বালক সত্যিকারের পুরুষে পরিণত হয়েছে।

এদিকে, উইল কনোলির পক্ষে আইনি লড়াই ও ডিম কেনার তহবিলে জমা পড়েছে বাংলাদেশি টাকায় ৪৯ লাখের বেশি টাকা। এখন পর্যন্ত প্রায় তিন হাজার মানুষ দান করেছে এই তহবিলে। তবে কলোনি ঘোষণা দিয়েছেন, এসব অর্থ ক্রাইস্টচার্চে হামলায় নিহত মুসলিম পরিবারগুলোর মধ্যে দান করা হবে।

এ ছাড়া বিশ্বের বিভিন্ন মিউজিশিয়ান ও ব্যান্ড দল কনোলির পাশে দাঁড়িয়েছে। তাকে নৈতিক সমর্থন দেওয়ার পাশাপাশি ফ্রি-তে তাদের শো উপভোগ করার অফারও দিয়েছে।

এর আগে বিতর্কিত সিনেটার ফ্রেজার অ্যানিং নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলার জন্য মুসলিম অভিবাসীদেরকেই দায়ী করেন। তার এ মন্তব্যকে তীব্র বর্ণবাদমূলক আখ্যা দিয়ে দেশজুড়ে তার পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন শুরু হয়। একই সঙ্গে তার পদত্যাগ দাবি করে তৈরি এক পিটিশনে ইতোমধ্যে স্বাক্ষর করেছে প্রায় এক কোটি ৩০ লাখ মানুষ।

মঙ্গলবারের সমাবেশে প্রতিবাদকারীরা স্লোগান দেন, ‘বর্ণবাদের বিরুদ্ধে দাঁড়ান: ফ্রেজার অ্যানিং পদত্যাগ করুন’। বিক্ষোভে মুসলিমদেরকে সাহায্য ও সমর্থনের আশ্বাসও দেয় সাধারণ অস্ট্রেলিয় নাগরিকরা।

বিজনেস আওয়ার/২১ মার্চ, ২০১৯/আরএইচ

পাঠকের মতামত: