ঢাকা, শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬
sristymultimedia.com

প্রচ্ছদ » খেলা » বিস্তারিত


ss-steel-businesshour24

Runner-businesshour24

ইতিহাসে প্রথম ডাবল সেঞ্চুরির রেকর্ড সৌম্যর

আপডেট : 2019-04-23 17:01:55
ইতিহাসে প্রথম ডাবল সেঞ্চুরির রেকর্ড সৌম্যর

স্পোর্টস ডেস্ক : লিগে জুড়ে ব্যাটে কোনো রান নেই। এমন বাজে ফর্মের কারণেই বিশ্বকাপের দল ঘোষণার আগ মুহূর্তে নির্বাচকরা সৌম্য সরকারকে নিয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারছিলেন না।

শেষ পর্যন্ত সেই সৌম্য শুধু রানেই ফিরলেন না। রীতিমত রেকর্ডই গড়ে ফেললেন। বাংলাদেশের ক্রিকেটের ইতিহাসে এই প্রথম কোনো ডাবল সেঞ্চুরি করার কৃতিত্ব দেখালেন সৌম্য সরকার।

বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের ৩১৭ রানের বিশাল পাহাড় টপকাতে নেমে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ক্রিকেটে ডাবল সেঞ্চুরি পূরণ করেন সৌম্য। ১৪৯ বলে, ১৪ চার আর ১৫ ছক্কা মেরে ঐতিহাসিক এই মাইলফলকে পৌঁছান এই ড্যাশিং ব্যাটসম্যান।

রীতিমত রান খরায় ভোগার পর শতরানের দেখা পান সৌম্য। এ যেন কঠিন মরুর মাঝে পাহাড়ী ঝরনার পানির কল কল শব্দের মত। অনেকদিন পর সেই শতরানের পর চোখে-মুখে ছিল স্বস্তির পরশ।

তবে দিন শেষে কন্ঠে খানিক অতৃপ্তি-অনুশোচনা, অনেকদিন পর রানে ফিরে এবং সেঞ্চুরি করে ভাল লাগছে। তবে শতরানের পর ইনিংসটি বড় হয়নি, শেষ করে আসতে পারিনি- তাই কিছুটা আফসোস থেকেই গেছে। এ রকম অবস্থায় আসলে ইনিংসটাকে বড় করা উচিৎ।

সেদিনের সে অতৃপ্তি, আর আফসোস ও অনুশোচনা অঅজ কড়ায় গন্ডায় পুষিয়ে দিলেন সৌম্য সরকার। আজ বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে শেখ জামালের বিপক্ষে প্রিমিয়ার সুপার লিগের শেষ ও অতি গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ছক্কা বৃষ্টিতে রেকর্ড গড়ার পাশাপাশি আরও এক অনন্য কীর্তি গড়লেন সৌম্য সরকার।

বাংলাদেশের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে প্রথম ডাবল সেঞ্চুরির দূর্লভ কৃতিত্বের অধিকারি হলেন সাতক্ষীরার এ ব্যাটিং প্রতিভা।

শেখ জামালের ৩১৭ রানের বিশাল পাহাড় টপকাতে নেমে জহুরুল ইসলাম অমিকে নিয়ে ৩১২ রানের অবিশ্বাস্য জুটি গড়ে ফেলেন সৌম্য। ১২৮ বলে ১০০ রান করে জুহুরুল ইসলাম অমি আউট হয়ে গেলেও সৌম্য থাকেন অপরাজিত।

এমনকি ৪৮তম ওভারের প্রথম বলে তাইজুলকে ছক্কা মেরে আবাহনীকে চ্যাম্পিয়ন করে দেন তিনি। শেখ জামালের বোলারদের ওপর প্রথম থেকে কতটা খড়গহস্ত ছিলেন সৌম্য, সেটা তার ইনিংসের দিকে তাকালেই বোঝা যায়।

শুরুতে খেলেছিলেন রয়ে-সয়ে। ৫২ বলে পূরণ করেন হাফ সেঞ্চুরি। ৪টি বাউন্ডারির সঙ্গে ৪টি ছক্কা দিয়ে। এরপর সেঞ্চুরি পূরণ করেন ৭৮ বলে। ৮টি বাউন্ডারি আর ৮টি ছক্কায়। অর্থ্যাৎ, দ্বিতীয় পঞ্চাস আসে তার মাত্র ২৬ বলে।

১৫০ রানের মাইলফলকে পৌঁছান তিনি ১০৪ বলে। ৮টি বাউন্ডারির সঙ্গে ১৫টি ছক্কা। তৃতীয় ৫০ পূরণ করতেও তিনি খেলেন ২৬ বল। বাউন্ডারি মেরেছেন ৬টি। কোনো ছক্কা নেই। ৪৫ বলে পৌঁছান চতুর্থ ফিফটিতে।

শেষ পর্যন্ত ১৪৯ বলে ২০০ রানের মাইলফলক স্পর্শ করলেন ১৪ বাউন্ডারি এবং ১৫ ছক্কায়। ম্যাচ শেষে অপরাজিত থাকলেন ১৬ ছক্কায়। যা বাংলাদেশের ইতিহাসে ওয়ানডে কিংবা লিস্ট এ ক্রিকেটে যে কোনো ব্যাটসম্যানের হয়ে সর্বোচ্চ ছক্কা মারার রেকর্ড।

বিজনেস আওয়ার/২৩ এপ্রিল, ২০১৯/এ

পাঠকের মতামত: