ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০১৯, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬
sristymultimedia.com

প্রচ্ছদ » আন্তর্জাতিক » বিস্তারিত


ss-steel-businesshour24

Runner-businesshour24

জাপানের নতুন সম্রাট নারুহিতো

আপডেট : 2019-05-01 11:54:13
জাপানের নতুন সম্রাট নারুহিতো

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : জাপানের সম্রাট আকিহিতোর সিংহাসন ত্যাগের একদিন পর এবার সেই জায়গায় স্থলাভিষিক্ত হলেন তার ছেলে নারুহিতো। বুধবার সকালে সাদামাটা ও গভীর প্রতীকী আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে সিংহাসনের উত্তরাধিকারী হলেন তিনি।-খবর সিএএন ও বিবিসির।

বুধবার সকালে সূর্যের দেখা মেলার পর টোকিওর রাজপ্রাসাদে আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। চতুর্দশ শতকের সাম্রাজ্যিক যুগের ধারাবাহিকতা রক্ষার মধ্য দিয়ে ৫৯ বছর বয়সী নারুহিতো হলেন দেশটির ১২৬তম সম্রাট।

জাপানের সম্রাটের রাজনৈতিক কোনো ক্ষমতা নেই, কিন্তু তিনি জাতীয় প্রতীক হিসেবে ভূমিকা পালন করেন। এর আগে মঙ্গলবার স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেন জাপানের এমেরিটাস সম্রাট আকিহিতো।

৮৫ বছর বয়সী সম্রাটের অবনতিশীল স্বাস্থ্যের কারণে সিংহাসন ছাড়ার পথ বেছে নেন তিনি। এর মধ্য দিয়ে জাপানের রাজপরিবারের ২০০ বছরের ঐতিহ্যে ছেদ পড়লো। আকিহিতোই প্রথম সম্রাট যিনি স্বেচ্ছায় সিংহাসন ছাড়েন।

জাপানের স্থানীয় সময় সকাল সোয়া ১০টায় কেনজি-তো-শোকেই-নো-জি বা সাম্রাজ্যিক রাজদণ্ড ও রাজকীয় সিলমোহরের উত্তরাধিকার গ্রহণের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। এসময় সিংহাসনের উত্তরসূরি আকিশহিনো বাঁ পাশে দাঁড়িয়েছিলেন।

সিংহাসনে আরোহনের পর নারুহিতো বলেন, শপথ করছি যে সংবিধান অনুসারে পূর্ণ দায়িত্বশীলতার সঙ্গে আমি আমার সব কাজ করে যাব। আমি মানুষের সুখ ও শান্তি কামনা করছি। এছাড়া বিশ্ব শান্তির পাশাপাশি দেশের উন্নয়ন প্রার্থনা করছি।

বিদায়ী ভাষণে আকিহিতো বলেন, তিরিশ বছর আগে অভিষেক হওয়ার পরে মানুষের জন্য গভীর আস্থা ও শ্রদ্ধা নিয়ে সম্রাট হিসেবে দায়িত্বপালন করতে পেরে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করছি। দেশের প্রতীক চিহ্ন হিসেবে আমাকে স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য দেশবাসীর অকুণ্ঠ সমর্থন ও ভালোবাসার জন্য ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

উল্লেখ্য, ১৯৮৯ সালের ৮ জানুয়ারি বাবা সম্রাট হিরোহিতোর প্রয়াণের পরে জাপানের ১২৫তম সম্রাট আকিহিতোর অভিষেক হয়। সেই সঙ্গেই দেশে শুরু হয় হেইসেই যুগ। তিন বছর আগে সিংহাসন ত্যাগ করার বাসনা ব্যক্ত করেন আকিহিতো।

কিন্তু জাপানের সংবিধানে সম্রাটের পদত্যাগ করা সম্পর্কে কোনও আইন না থাকায় সংশোধনী প্রস্তাব আনা হয়। সেই প্রস্তাব পাশ হয়ে নতুন আইন তৈরি হলে তার পদত্যাগ করার পথ তৈরি হয়।

বিজনেস আওয়ার/০১ মে, ২০১৯/এ

পাঠকের মতামত: