ঢাকা, রবিবার, ১৯ মে ২০১৯, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬
sristymultimedia.com

প্রচ্ছদ » বিনোদন » বিস্তারিত


ss-steel-businesshour24

Runner-businesshour24

চিকিৎসাধীন অবস্থায়ও হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছেন সুবীর নন্দী

আপডেট : 2019-05-05 12:18:07
চিকিৎসাধীন অবস্থায়ও হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছেন সুবীর নন্দী

বিনোদন ডেস্ক : সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালের এমআইসিইউতে টানা ১৮ দিন অজ্ঞান থাকার পর গত শুক্রবার চোখ খুলেছেন সংগীতশিল্পী সুবীর নন্দী। তবে তিনি শঙ্কামুক্ত নন। শনিবার বিকেলে আবার হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছেন তিনি। এ তথ্য জানিয়েছেন সুবীর নন্দীর মেয়ে ফাল্গুনী নন্দী।

এদিকে, সুবীর নন্দীর চিকিৎসার বিষয়টি বাংলাদেশে সমন্বয় করেছেন জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের জাতীয় সমন্বয়ক সামন্তলাল সেন। সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন তিনি।

সুবীর নন্দীর শারীরিক অবস্থার ব্যাপারে সামন্তলাল সেন জানান, সুবীর নন্দীর রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হচ্ছে না।

ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন থাকার সময় গত ৩০ এপ্রিল সুবীর নন্দীকে সিঙ্গাপুর নেওয়া হয়। দীর্ঘদিন ধরে ফুসফুস, কিডনি ও হৃদরোগে ভুগছেন সুবীর নন্দী।

উল্লেখ্য, গত ১২ এপ্রিল শ্রীমঙ্গলে একটি পারিবারিক অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গিয়েছিলেন সুবীর নন্দী ও তাঁর পরিবার। পয়লা বৈশাখে শ্রীমঙ্গল থেকে ঢাকা ফেরার পথে উত্তরায় কাছাকাছি আসতেই শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে শুরু করে সুবীর নন্দীর।

এর পর সেখান থেকে সরাসরি সিএমএইচে নেওয়া হয়। সিএমএইচ হাসপাতালে নেওয়ার পরই লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়েছিল কুশে পদকপ্রাপ্ত এই সংগীতশিল্পীকে।

জনপ্রিয় এই সংগীতশিল্পীর প্রথম একক অ্যালবাম প্রকাশিত হয় ১৯৮১ সালে। আর ১৯৭৬ সালে ‘সূর্যগ্রহণ’ চলচ্চিত্রে প্রথম প্লে-ব্যাক করেন তিনি। দীর্ঘ ৪০ বছরের সংগীত ক্যারিয়ারে আড়াই হাজারের বেশি গান গেয়েছেন তিনি।

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন পাঁচবার। সংগীতে অবদানের জন্য এ বছর তিনি পান দেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা একুশে পদক।

সুবীর নন্দীর গাওয়া উল্লেখযোগ্য গানগুলো হলো—‘ও আমার উড়াল পঙ্খী রে’, ‘কেন ভালোবাসা হারিয়ে যায়’, ‘চাঁদে কলঙ্ক আছে যেমন’, ‘বধূ তোমার আমার এই যে পিরিতি’, ‘একটা ছিল সোনার কন্যা’, ‘কত যে তোমাকে বেসেছি ভালো’, ‘আমি বৃষ্টির কাছ থেকে’, ‘দিন যায় কথা থাকে’, ‘আশা ছিল মনে মনে’ ইত্যাদি।

বিজনেস আওয়ার/০৫ মে, ২০১৯/এ

পাঠকের মতামত: