ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬
sristymultimedia.com

প্রচ্ছদ » অর্থনীতি » বিস্তারিত


ss-steel-businesshour24

Runner-businesshour24

চার কিলোমিটার দৃশ্যমান মেট্রোরেল

আপডেট : 2019-07-16 12:31:15
চার কিলোমিটার দৃশ্যমান মেট্রোরেল



বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : রাজধানীর যানজট নিরসনে মেট্রোরেল প্রকল্প ২০১২ সালের ডিসেম্বরে একনেকে অনুমোদন হয়। ২০১৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে জাপানের আন্তর্জাতিক সহায়তা সংস্থা জাইকার সঙ্গে ঋণ চুক্তি হয়। প্রকল্পের মেয়াদ ২০২৪ সাল পর্যন্ত।

তবে সরকার প্রথমে চলতি বছরের ডিসেম্বরে উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত অংশ চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। কিন্তু এখন পুরোটা একসঙ্গেই ২০২১ সালের ডিসেম্বরে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

মেট্রোরেল প্রকল্পের ২০ কিলোমিটারের মধ্যে এখন পর্যন্ত চার কিলোমিটারের মতো দৃশ্যমান। বাকি ১৬ কিলোমিটার সড়কে চলছে নানা কর্মযজ্ঞ।

কোথাও পাইলিং, কোনো কোনো স্থানে পিলার, কিছু কিছু স্থানে চলছে উড়ালসড়কের স্ল্যাব বসানোর কাজ। দেশের বাইরে জাপানের কারখানায় ইঞ্জিন-কোচ তৈরির কাজও চলমান।

মেট্রোরেল প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের অধীন স্বায়ত্তশাসিত কোম্পানি ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড (ডিএমটিসিএল)।

প্রকল্প অগ্রগতিসংক্রান্ত প্রতিবেদন বলছে, গত এপ্রিল পর্যন্ত প্রকল্পের অগ্রগতি প্রায় ২৪ শতাংশ। এর মধ্যে উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত অংশের অগ্রগতি ৩৯ থেকে ৯৩ শতাংশ।

সরকার শুরুতে উত্তরা থেকে আগারগাঁও অংশ চলতি বছরের ডিসেম্বরে চালুর ঘোষণা দিয়েছিল। কিন্তু কাঙ্ক্ষিত গতিতে কাজ না এগোনোর কারণে পুরো সড়কই ২০২১ সালে চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

উত্তরা তৃতীয় পর্ব থেকে মতিঝিলের বাংলাদেশ ব্যাংক পর্যন্ত মেট্রোরেলের দূরত্ব ২০ দশমিক ১ কিলোমিটার। ১৬টি স্থানে স্টেশন থাকবে। এর পুরোটাই হবে মাটির ১৩ মিটার ওপর দিয়ে।

এ জন্য প্রথমে উড়ালসড়ক নির্মাণ হচ্ছে। পরে রেলের লাইন বসানো হবে। কর্তৃপক্ষ বলছে, শব্দ নিয়ন্ত্রণের জন্য লাইনের পাশে শব্দনিরোধক দেয়াল থাকবে।

সূত্র বলছে, উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত ১২ কিলোমিটারের মধ্যে প্রায় ৪ কিলোমিটার উড়ালসড়ক দৃশ্যমান হয়েছে। আগারগাঁও থেকে মতিঝিল পর্যন্ত দূরত্ব ৮ দশমিক ১২ কিলোমিটার। এই পথে পাইলিং ও পিলার তৈরির কাজ চলছে।

প্রকল্পের কাজ আটটি ভাগে বা কন্ট্রাক্ট প্যাকেজে (সিপি) ভাগ করা হয়েছে। এর মধ্যে একমাত্র উত্তরায় ডিপোর মাটি উন্নয়নের কাজ পুরোপুরি শেষ হয়েছে।

বাকি সাতটি ভাগের মধ্যে রয়েছে উত্তরায় ডিপোর অবকাঠামো নির্মাণ, লাইন নির্মাণের তিনটি ভাগ, বৈদ্যুতিক ব্যবস্থা স্থাপন এবং ইঞ্জিন ও কোচ তৈরি। এসব কাজ এখন চলমান।

মেট্রোরেলের স্টেশন হবে ১৬টি। এগুলো হচ্ছে উত্তরা উত্তর, উত্তরা সেন্টার, উত্তরা দক্ষিণ, পল্লবী, মিরপুর ১১, মিরপুর ১০, কাজীপাড়া, শেওড়াপাড়া, আগারগাঁও, বিজয় সরণি, ফার্মগেট, কারওয়ান বাজার, শাহবাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, সচিবালয় ও মতিঝিল।

মেট্রোরেলের স্টেশনগুলোও হবে তিনতলা উচ্চতায়। টিকিট কাউন্টার এবং অন্যান্য সুবিধাদি থাকবে দ্বিতীয় তলায়। আর ট্রেনে ওঠার জন্য প্ল্যাটফর্ম থাকবে তৃতীয় তলায়।

স্টেশনগুলোতে ওঠার জন্য সাধারণ সিঁড়ির পাশাপাশি থাকবে লিফট ও চলন্ত সিঁড়ি। টিকিট দিয়ে প্ল্যাটফর্মে প্রবেশের ব্যবস্থা হবে স্বয়ংক্রিয়। নিরাপত্তার জন্য স্টেশনের প্ল্যাটফর্মে নিরাপত্তাবেষ্টনী বা প্ল্যাটফর্ম স্ক্রিন ডোর স্থাপন করা হবে।

শুরুতে মেট্রোরেলে ২৪টি ট্রেন চলাচল করবে। প্রতি ট্রেনে কোচ থাকবে ছয়টি। ঘণ্টায় সাড়ে ২২ হাজার যাত্রী পরিবহন সম্ভব হবে। দিনে যাত্রী পরিবহন করতে পারবে ৫ লাখের কাছাকাছি।

বিজনেস আওয়ার/১৬ জুলাই, ২০১৯/এ

পাঠকের মতামত: