ঢাকা, সোমবার, ২৬ আগস্ট ২০১৯, ১১ ভাদ্র ১৪২৬
sristymultimedia.com

প্রচ্ছদ » ধর্ম » বিস্তারিত


ss-steel-businesshour24

Runner-businesshour24

ইসলামে হাজিদের মর্যাদা ও হজের ফজিলত

আপডেট : 2019-07-17 17:25:40
ইসলামে হাজিদের মর্যাদা ও হজের ফজিলত

বিজনেস আওয়ার ডেস্ক : হজ মহান আল্লাহ তায়ালার নির্ধারিত বিধান। এটি আর্থিক ও দৈহিক ইবাদত। ফলে হজের জন্য আর্থিক ও দৈহিক উভয় দিক দিয়ে সামর্থ্যবান হওয়া আবশ্যক।

হজ ফরজ হওয়ার ৭টি শর্ত- ১. মুসলিম হওয়া। ২. জ্ঞানবান হওয়া। ৩. সুস্থ মস্তিষ্কসম্পন্ন হওয়া। ৪. প্রাপ্তবয়স্ক হওয়া। ৫. আজাদ হওয়া। ৬. আর্থিক ও দৈহিকভাবে সামর্থ্যবান হওয়া। ৭. হজের সময় হওয়া।

হজের রয়েছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ফজিলত। তবে সে ফজিলত লাভে হজ একনিষ্ঠভাবে সঠিক পদ্ধতিতে আদায় করতে হবে। আর্থিকভাবে সক্ষম ব্যক্তির জন্য দ্রুত আল্লাহর নৈকট্য অর্জনে এ ইবাদতের বিকল্প নেই।

সঠিকভাবে হজ সম্পাদনকারীকে আল্লাহ তায়ালা নিষ্পাপ করে দেন। জান্নাতে উচ্চ মর্যাদা ও স্থান দান করেন।

হাদিসে এসেছে-

> হজরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, ‘আল্লাহর পথের মুজাহিদ এবং হজ ও ওমরাকারী হলো আল্লাহর প্রতিনিধি। তারা আল্লাহর ডাকে সাড়া দেন আর আল্লাহও তাদের প্রার্থনা কবুল করেন।’ (ইবনে মাজাহ)।

> অন্য বর্ণনায় এসেছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহিওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন, ‘হজ ও ওমরাকারীরা হলো আল্লাহর প্রতিনিধি। তারা আল্লাহর ডাকে সাড়া দেন আর আল্লাহও তাদের প্রার্থনা কবুল করেন।’

হজের ফজিলত সম্পর্কে হাদিসের কিছু বর্ণনা তুলে ধরা হলো-
> হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি, ‘যে ব্যক্তি হজ করে এবং অশ্লীলতা ও কটুক্তি থেকে বিরত থাকে সে এমনভাবে ফিরে আসে করে, তার মা যেভাবে তাকে প্রসব করেছিল।’ (বুখারি)।

> হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, ‘রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে জিজ্ঞাসা করা হলো, সর্বোত্তম আমল কোনটি? তিনি বললেন, আল্লাহ ও তাঁর রাসূলের প্রতি বিশ্বাস স্থাপন। জিজ্ঞাসা করা হলো, এর পর কী? বললেন, আল্লাহর পথে জিহাদ করা। বলা হলো, এরপর? তিনি বললেন, মাবরূর (কবুল) হজ।’ (বুখারি)।

> হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন, ‘আল্লাহ তায়ালা তিন ব্যক্তির দায়িত্বভার গ্রহণ করেন-

(১) যে ব্যক্তি আল্লাহর কোনো মসজিদের উদ্দেশে বের হয়।
(২) যে ব্যক্তি আল্লাহর পথে জিহাদ করতে বের হয়। আর
(৩) যে ব্যক্তি হজের উদ্দেশে বের হয়।’

নারীদের হজের ফজিলত: হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা থেকে বর্ণিত তিনি প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে জিজ্ঞাসা করলেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ! (সা.) আমরা জেহাদকে সর্বোত্তম আমল মনে করি। তাহলে আমরা (নারীরা) কি জেহাদ করব না?

প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, ‘না’। তোমাদের জন্য উত্তম জেহাদ হলো মাবরূর হজ।’ (বুখারি)।

হজে খরচ করার ফজিলত: হজরত ইবনে আওন ইব্রাহিম ও আসওয়াদের সূত্রে বর্ণিত হয়েছে যে, হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বললেন, হে আল্লাহর রাসূল! লোকেরা তো দুইটি ইবাদত নিয়ে ফিরে যাচ্ছে। আর আমি শুধু একটি নিয়ে ফিরব?

তখন তাকে বলা হলো, অপেক্ষা কর। যখন তুমি পবিত্র হবে তখন তানঈমে যাবে এবং (ওমরার) ইহরাম বাঁধবে। এরপর অমুক স্থানে যাও। অবশ্য এসবের প্রতিদান হবে তোমার ব্যয় ও কষ্ট অনুযায়ী।’ (বুখারি)।

হজের সফরের ফজিলত: হজরত ইবনে ওমর রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি, ‘আল্লাহ তায়ালা হজ পালনকারীর জন্য তার উটনির (বাহনের) প্রতি কদমে একটি নেকি লেখেন কিংবা একটি গোনাহ মুছে দেন। অথবা একটি মর্যাদা বাড়িয়ে দেন।’ (ইবনে হিব্বান, বাইহাকি)।

আল্লাহ তায়ালা মুসলিম উম্মাহর সব হজ পালনকারীকে সঠিক আক্বিদা বিশ্বাসের সঙ্গে যথাযথভাবে হজ পালন করে নিষ্পাপ হয়ে পরকালের প্রস্তুতি গ্রহণ করার তাওফিক দান করুন। দুনিয়া ও পরাকলের স্বচ্ছলতা ও সফলতা দান করুন। আমিন।

বিজনেস আওয়ার/১৭ জুলাই, ২০১৯/এ

পাঠকের মতামত: