ঢাকা, বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ৫ ভাদ্র ১৪২৬
sristymultimedia.com

প্রচ্ছদ » শেয়ারবাজার » বিস্তারিত


ss-steel-businesshour24

Runner-businesshour24

নেপথ্য নায়কেরা বিনিয়োগকারীদের রাস্তায় নামিয়েছে

আপডেট : 2019-07-31 16:24:03
নেপথ্য নায়কেরা বিনিয়োগকারীদের রাস্তায় নামিয়েছে

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদক : রাস্তায় বিনিয়োগকারীদের বিক্ষোভ ও মিছিল নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান অধ্যাপক হেলাল উদ্দিন নিজামী। ১০-২০ জন বিনিয়োগকারী দিয়ে বিক্ষোভ করানোর নেপথ্যে নায়ক রয়েছে বলে মনে করছেন তিনি। যাদের শেয়ারবাজারে কোন ভূমিকা নেই। এরা অযৌক্তিক কারনে রাস্তায় নেমে মিছিল করে।

বুধবার (৩১ জুলাই) রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

হেলাল উদ্দিন নিজামী বলেন, আপনি আপনার গোডাউনে আলু তুলেছেন, বন্যায় বাজার দরে কিছুটা নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। কয়েক হাজার টন মজুদ করেছেন। সেটি ২০ টাকা থেকে ১৮ টাকা কেজিতে নেমেছে। এতে গোডাউনের আলু কি উধাও হয়ে গেছে। এই আলু যখন নষ্ট হয়ে যায়, তখন কি কেউ রাস্তায় মিছিল করে। কেউ তো সেটা করে না। সুতরাং শেয়ারবাজার নিয়ে মিছিলের বিরুদ্ধে আপনাদের অবস্থান কি? আপনারা কি এই ধরনের মিছিল চান?

তিনি বলেন, আমরা কি এই বিনিয়োগকারীদের চাহিদার উপর নির্ভর করে শেয়ারবাজার চাই। তাহলে ইস্যু ম্যানেজারদের দায়িত্ব কি? আন্ডাররাইটারদের দায়িত্ব কি? তাহলে কি করে আমরা অর্থনীতিকে বেগবান ও শক্তিশালী করব? কি করা যায় আমাদের? এভাবে একটি অর্থনীতির পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হচ্ছে আমাদের। যে দেশের ব্যাংকের মধ্যে তারল্য সংকট, আমানতকারীদের টাকা ফেরত দিতে পারবে কিনা- তা নিয়ে অনাস্থা তৈরী হয়েছে। সারাদেশে যখন অর্থনীতির এরকম একটি অবস্থা বিরাজ করে, সেখানে শেয়ারবাজারে তারল্য সংকটের জন্য কমিশনকে দায়ী করা হয়। কিন্তু কেনো?

আরও পড়ুন..

‘আমাদের চাকরীর ভয় দেখিয়ে লাভ নেই’

গত বছর এডি রেশিও বাড়ানো হয়েছে, এর জন্য তো আমরা দায়ী না। ব্যাংকের টাকা ফেরত দিতে হয় না, এজন্যতো আমরা দায়ী নই। এই সংকটতো আমরা তৈরী করিনি। এডি রেশিও আমরা বাড়াইনি। বিটিআরসির কারনে গ্রামীণফোনের দাম ৪৫০ টাকা থেকে ৩৫০ টাকায় নেমে এসেছে- এ জন্য তো আমরা দায়ী নই। পিপলস লিজিং অবসায়নে যাবে, সেজন্য কি আমাদের দায় আছে? এসবের কারনে বাজারে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। কিন্তু মিছিল করা হলো আমাদের বিরুদ্ধে। কি চান আপনারা? কি ভূমিকা আপনারা পালন করেছেন? কারা এইসব মিছিল করিয়েছে? আমরা কি ১০-২০ জন্য বিনিয়োগকারীর উপর শেয়ারবাজারের ভাগ্য ছেড়ে দিতে পারি। এর নেপথ্য নায়কেরা কি তাদের রাস্তায় নামিয়ে দেয়নি বলে প্রশ্ন রাখেন নিজামী।

এই প্রাপ্ত ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বলেন, আমরা তো কাউকে বিনিয়োগ করতে বলিনি। গতকালকের পত্রিকায় দেখলাম বিনিয়োগকারীদের আস্থা ফিরে এসেছে। কি হলো শেয়ারবাজারের? কিন্তু তার দুই দিন আগে ২৭ হাজার কোটি টাকা উথাও, নিয়ন্ত্রক সংস্থার প্রতি আস্থা নেই, পদত্যাগ করতে হবে ইত্যাদি নিউজ দেখিছি। দুই দিন পরেই আস্থা কিভাবে ফিরে আসে। এটাই হচ্ছে সংবাদ মাধ্যমের পরিপক্কতার অভাব। দু-একটি পত্রিকা ইতিবাচক। অধিকাংশ পত্রিকার রিপোর্টে পরিপক্কতার বালাই থাকে না।

এদেশের একটি আইপিওতে ৪০ গুণ আবেদন জমা পড়ে। আমরা কি এই আবেদনের জন্য বলেছি। এরপরে লেনদেনের শুরুতেই ১০ টাকার শেয়ার ৪০ টাকায় বিক্রি হয়। এর ২-৬ মাস পরে হয়তো ২০-২৫ টাকায় বিক্রি হয়। এবার মিছিল শুরু হয়ে গেলো। কে বলেছে আপনাকে আইপিওতে আবেদন করতে। কিন্তু দাম যখন বাড়তেছিল, তখন আপনি কোথায় ছিলেন? আপনিতো কৌশলে বিনিয়োগকারী নন। অথবা আপনি লোভের ব্যবসায় সেখানে বিনিয়োগ করেছেন। আমরা তো বলছি শেয়ারবাজার ঝুকিপূর্ণ। কাউকে তো আহবান করি না। যার বুঝ জ্ঞান নাই, তার শেয়ারবাজারে না আসাই ভালো বলে যোগ করেন তিনি।

তিনি বলেন, আমরা আর্থিক হিসাবের কোন নিশ্চয়তা দেই না। এক্ষেত্রে নিরীক্ষকের উপর নির্ভর করি। সেখানেও আমাদেরকে দোষারোপ করা হয়। এছাড়া ইস্যু ম্যানেজাররাও নিষ্চিত করেন। যদিও আমরা সেটির বিরুদ্ধে ইনফোর্সমেন্টে যাচ্ছি না। তবে এ বিষয়ে নিয়ে চিন্তা করছি। কিন্তু তারপরেও মিছিল কিন্তু আমাদের বিরুদ্ধেই হচ্ছে। তাহলে অভিসন্ধিটা কি, সেটা তো আমাদেরকে বুঝতে হবে। এসবের পেছনের অভিসন্ধি কি, পেছনের শক্তিটা কি? এগুলো আমাদেরকে বুঝতে হবে।

বিজনেস আওয়ার/৩১ জুলাই, ২০১৯/আরআই/আরএ

পাঠকের মতামত: