ঢাকা, বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩ আশ্বিন ১৪২৬
sristymultimedia.com

প্রচ্ছদ » খেলা » বিস্তারিত


ss-steel-businesshour24

Runner-businesshour24

ঘরের মাঠে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ, ইতিবাচক খেলার চেষ্টা নবির

আপডেট : 2019-09-02 11:58:29
ঘরের মাঠে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ, ইতিবাচক খেলার চেষ্টা নবির

স্পোর্টস ডেস্কঃ আফগানিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র টেস্ট খেলতে চট্টগ্রামে পৌঁছেছে বাংলাদেশ দল। আফগানদের বিপক্ষে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি খেলার অভিজ্ঞতা থাকলেও টেস্ট খেলা হয়নি টাইগারদের।

তবে, ঘরের মাঠে ম্যাচ বলে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ। আর উইকেট সম্পর্কে এখনো কোন ধারণা না থাকলেও, ব্যক্তিগত ভাবে মোসাদ্দেক আর তাসকিনের লক্ষ্য লম্বা সময় পর টেস্ট দলে ফেরাটাকে স্মরণীয় করে রাখা।

আফগানদের বিপক্ষে একমাত্র টেস্ট। ঢাকা পর্বের অনুশীলন শেষে ম্যাচ ভেন্যু সাগরিকার উদ্দেশ্যে সাকিবের দল। একে একে একাডেমিতে আসলেন ক্রিকেটাররা। এরপর মিরপুর থেকে বিমানবন্দরে। সিনিয়র ক্রিকেটাররা আসলেন নিজেদের মতো করে। ব্যক্তিগত গাড়িতে সাকিব মুশফিক মাহমুদুল্লাহ আসলেন বিমানবন্দরে। এরপর বিদায় নিলেন হাসি মুখে।

সফরকারীদের বেশিরভাগ দলই বাংলাদেশের আবহাওয়াকে তাদের বড় প্রতিপক্ষ মনে করলেও আফগানিস্তানের বেলায় সেটা ভিন্ন। বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেট নিয়মিতভাবেই অংশ নিচ্ছেন আফগানিস্তানের খেলোয়াড়রা। যে কারণেই এখানকার কন্ডিশনের সাথে তারা পরিচিত। তাদের বিশ্বাস এখানকার কন্ডিশন তাদের জন্য মোটেও দুর্বোধ্য নয় এবং এটাই একটা সুবিধা হিসেবে দেখছে আফগানিস্তান দল।

আগামী ৫ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে শুরু হওয়া একমাত্র টেস্টের প্রস্তুতি হিসেবে বর্তমানে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) একাদশের বিপক্ষে দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলছে সফরকারী আফগানিস্তান ক্রিকেট দল। অতীতে দেখা গেছে এমনকি এশিয়ার দেশগুলোকেও চট্টগ্রামের উষ্ণ আবহাওয়ার সাথে মানিয়ে নিতে কষ্ট হয়েছে। তবে নিয়মিতভাবে বাংলাদেশ সফর করা আফগান অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নবি এর সাথে একমত নন।

সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘এখানকার আবহাওয়া কোনো বিষয় নয়। কেননা আমরা মাত্র আবুধাবি থেকে এসেছি, যেখানে তাপমাত্রা ছিল ৪৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আমরা সেখানে দশ দিন কাটিয়েছি। সুতরাং এর সাথে আমরা অনেকটাই অভ্যস্ত।’

নবি বলেন, ‘এখানকার (চট্টগ্রামে) আর্দ্রতা কিছুটা বেশি। তবে আশা করছি ৪-৫ দিনে আমরা এটা মানিয়ে নিতে পারব। গত ৫-৬ বছর ধরে আমরা নিয়মিতভাবে এখানে খেলতে আসছি। আমাদের দলের অধিকাংশ সদস্যই এ ধরনের কন্ডিশনের সাথে অভ্যস্ত।’

টেস্ট ক্রিকেট তার দল নতুন হওয়ায় নবি বরং ইতিবাচক ক্রিকেট খেলার ওপর গুরুত্ব দেন। বলেন, ‘টেস্টে আমরা ইতিবাচক খেলতে আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করব। আমি মনে করি উভয় দলের জন্যই বাড়তি পাওনা হচ্ছে তারা এশিয়ান কন্ডিশনে অভ্যস্ত এবং এশিয়ান খেলোয়াড়।’

নিজ মাঠে টেস্টে সাধারণত চার স্পিনার নিয়ে সেরা একাদশ সাজায় বাংলাদেশ এবং এবারো তার ব্যতিক্রম হবে না। তবে নবির মতে বাংলাদেশের পেসাররাও হুমকি হয়ে উঠতে পারেন এবং ধৈর্য এবং ম্যাচের পরিস্থিতি অনুযায়ী খেলতে নিজ দলের প্রতি আহবান জানান তিনি।

নবি বলেন, ‘ভালো স্পিনর আক্রমণ ছাড়া তাদের ভালো ফাস্ট বোলারও রয়েছে। আমার মনে পিচ খুব বেশি বাউন্সি হবে না। অধিকাংশ সময়েই চট্টগ্রামের পিচ ব্যাটিং সহায়ক হয়ে থাকে এবং আমাদের দলে মানসম্মত বেশ কয়েকজন ব্যাটসম্যান ও স্পিনারও আছে।’

এদিকে দীর্ঘ দিন পর টেস্ট দলে পেসার তাসকিন আহমেদ। এরই মধ্যে ছেলের বাবা হয়েছেন এই পেসার। বাবাকে বিদায় দিতে বিমানবন্দরে ছেলে তাসমিন। লম্বা সময় পর টেস্ট দলে ফেরা। তাই প্রত্যাবর্তনটা করে রাখতে চান স্মরণীয়।

তাসকিন বলেন, যদি সুযোগ পাই চেষ্টা করবো নিজের সেরাটা দেয়ার। সবাই দোয়া করবেন।

আরেক অলরাউন্ডার মোসাদ্দেক সৈকতও ফিরেছেন বেশ কিছুদিন পর। আফগানদের বিপক্ষে কেমন হবে সিরিজ। ঘরের মাঠ বলে আত্মবিশ্বাসী ক্রিকেটাররা। তবে ব্যাক্তিগত ভাবেও একটা লক্ষ্য আছে। দীর্ঘ দিন পর পাওয়া সুযোগের যথার্থ ব্যবহার করতে মুখিয়ে আছেন এই ক্রিকেটার।

মোসাদ্দেক বলেন, এর আগে ওদের সাথে টি-২০ ও ওয়ানডে খেলছি। টেস্ট খেলা হয়নি। আমি মনে করছি ভালো একটা ম্যাচ হবে। আশা করি সুযোগ হলে ভালো কিছু হবে।

চট্টগ্রামের উইকেট ব্যাটিং সহায়ক। অভিজ্ঞতা বলে সাগরিকার উইকেটে পেসারদের জন্য থাকবে না বাড়তি কোন সুবিধা। দলে সুযোগ পাওয়া আরেক পেসার এবাদত অবশ্য এটাকে নিয়েছেন চ্যালেঞ্জ হিসেবে। প্রস্তুতি ম্যাচ আত্মবিশ্বাসী করেছে আরেক পেসার আবু জায়েদ রাহিকে। সুযোগ পেলে খেলতে চান নিজের সেরাটা দিয়ে।

এবাদত বলেন, আমাদের দেশের মাটিতে খেলা। ইনশাল্লাহ ভালো কিছু হবে।

বিজনেস আওয়ার/২ সেপ্টেম্বর,২০১৯/ আরআই

পাঠকের মতামত: