ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ২ কার্তিক ১৪২৬
sristymultimedia.com

প্রচ্ছদ » রাজনীতি » বিস্তারিত


ss-steel-businesshour24

Runner-businesshour24

'দেশ দুর্নীতি-মাদকসহ নানা অপরাধে ছেয়ে গেছে'

আপডেট : 2019-09-20 15:24:53
'দেশ দুর্নীতি-মাদকসহ নানা অপরাধে ছেয়ে গেছে'

বিজনেস আওয়ার প্রতিবেদকঃ দেশ দুর্নীতি-মাদকসহ নানা অপরাধে ছেয়ে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেছেন, রাজধানীসহ সারা দেশের শহরগুলোতে ক্লাবের নামে ক্যাসিনোতে জুয়ার আড্ডা বসছে। এই ক্যাসিনোগুলো চালাচ্ছে ক্ষমতাসীন দল ও তাদের অঙ্গ সংগঠন যুবলীগের ক্যাডাররা।

শুক্রবার (২০ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে যুবদল আয়োজিত মানববন্ধন চলাকালে সরকারের উদ্দেশ্যে এসব কথা বলেন বিএনপি মহাসচিব। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ও প্রতিহিংসামূলক মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।

তিনি বলেন, 'অবিলম্বে এই সংসদ বাতিল করুন, নিরপেক্ষ সরকারে অধীনে নির্বাচনের আয়োজন করুন এবং নির্বাচন কমিশনকে সরিয়ে নিরপেক্ষ ব্যক্তিকে নির্বাচন পরিচালনায় দায়িত্ব দিন। অন্যথায় এদেশের মানুষদের কাছে জবাবদিহি করতে হবে।'

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো দুর্নীতিতে ছেয়ে গেছে মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আওয়ামী লীগ সব অযোগ্যদের উপাচার্য নিয়োগ দিয়েছে। আজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়-জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য যাদের আমরা অনেক সম্মান করি, তারাও ঘুষ-কমিশন বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িত। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বিরুদ্ধেও দুর্নীতির অভিযোগে আন্দোলন চলছে। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র-শিক্ষক সবাই আন্দোলন করছে। আরও কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলন চলছে। অযোগ্যদের উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে আওয়ামী লীগ।

দেশের বিচার বিভাগ সরকার নিয়ন্ত্রণ করছে মন্তব্য করে বিএনপির এই নেতা বলেন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া চরম অসুস্থ। আমরা নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে তার জামিন চাচ্ছি, তাকে জামিন দেয়া হচ্ছে না। অথচ বর্তমান সরকারের আমলে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের নামে থাকা সাড়ে সাত হাজার মামলা তুলে নেয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মামলাও তুলে নেয়া হয়েছে।

রোহিঙ্গা ইস্যু সরকারের ভুল নীতির সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, আজ ১০ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়ে বসে আছে। তাদের দেশে ফেরানোর কোনো কার্যকর উদ্যোগ নেই। প্রধানমন্ত্রী মাদার অব হিউম্যানিটিখ্যাত। কিন্তু আমাদের মাদার অব হিউম্যানিটি একজন রোহিঙ্গাকেও দেশে ফেরাতে পারলেন না।

বিজনেস আওয়ার/২০ সেপ্টেম্বর,২০১৯/ এমআর

পাঠকের মতামত: